নাস্ত্মিকদের জন্য বিপজ্জনক দেশের তালিকায় বাংলাদেশযাযাদি ডেস্ক আন্ত্মর্জাতিক এক গবেষণা বলছে, বিশ্বের ৮৫টি দেশে ধর্মে অবিশ্বাসী বা নাস্ত্মিকরা প্রচ- বৈষম্য-নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন।
এর মধ্যে, গত এক বছরে অন্ত্মত সাতটি দেশে নাস্ত্মিকদের বিরম্নদ্ধে চরম নির্যাতন হয়েছে। এই দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে ভারত, পাকিস্ত্মান, সৌদি আরব এবং মালয়েশিয়া।
ধর্ম বা সৃষ্টিকর্তায় অবিশ্বাসীদের জন্য ৩০টি সবচেয়ে বিপজ্জনক দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম রয়েছে।
ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যানিস্ট অ্যান্ড এথিক্যাল ইউনিয়ন (আইএইচইইউ) নামে একটি সংস্থার উদ্যোগে পরিচালিত গবেষণা প্রতিবেদনটি এ সপ্তাহে ইউরোপীয় সংসদে পেশ করা হয়েছে।

হকোন কোন দেশ সবচেয়ে বিপজ্জনক?
গত এক বছরে নাস্ত্মিকদের ওপর হামলা নির্যাতনের প্রসঙ্গে পাকিস্ত্মান, ভারত, সৌদি আরব, সুদান এবং মালয়েশিয়ার নাম একাধিকবার এসেছে।
এপ্রিল মাসে, ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে অন্য ছাত্ররা পিটিয়ে হত্যা করেছে।
তার কয়েক সপ্তাহ আগে, মালদ্বীপে এক বস্নগার, যিনি ধর্ম নিরপেক্ষতার স্বপক্ষ নিয়ে লেখালেখি করতেন এবং মাঝে মধ্যে ধর্ম নিয়ে কটাক্ষ করতেন, তিনি নিজের ঘরে ছুরিকাঘাতে নিহত হন।
সুদানে মোহামেদ আল দোসোগি নামে একজন মানবাধিকার কর্মী তার জাতীয় পরিচয়পত্রে মুসলিম পরিচয় বদলে নাস্ত্মিক হিসাবে পরিচিত হতে চাইলে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।
এরকম কয়েকটি উদাহরণ তুলে ধরে আইএইচইইউ বলছে - যে সব মানুষ ধর্ম, সৃষ্টিকর্তা এসব মানে না, এসব নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে তাদের ওপর পৃথিবীর দেশে দেশে অত্যাচার, নির্যাতন, বৈষম্য বাড়ছে।
তাদের গবেষণা রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালে বিশ্বের ৮৫টি দেশে এই ধরনের নির্যাতন চরমে পৌঁছেছে।
তার মধ্যে সাতটি দেশে- ভারত, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, মৌরতানিয়া, ভারত, পাকিস্ত্মান, সুদান, সৌদি আরব- ধর্ম অবিশ্বাসীদের ধরে ধরে বিচারের মুখোমুখি করা হচ্ছে।

৩০টি সবচেয়ে বিপজ্জনক দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম রয়েছে।
এই তালিকায় আরো রয়েছে মিশর, কাতার, আফগানিস্ত্মান, ইরান ও ইরাক। এর মধ্যে ১২টি দেশে ধর্মত্যাগীদের বিরম্নদ্ধে মৃতু্যদ-ের বিধান রয়েছে।
এই ৩০টি দেশেও গত এক বছরে নাস্ত্মিক তকমা দিয়ে চরম মানবাধিকার লঙ্ঘনের অনেক ঘটনা ঘটেছে। বিচার বহির্ভূত হত্যাকা- হয়েছে, তথাকথিত ধর্ম অবমানকারীদের গুম করার ঘটনাও ঘটেছে।

সবচেয়ে বিপজ্জনক
২০১৭ সালে নাস্ত্মিকরা বৈষম্য ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন যেসব দেশে সবচেয়ে বেশি
ৈহবৈষম্য হয়েছে- আফগানিস্ত্মান, চীন, বাহারাইন, বাংলাদেশ, ব্ররম্ননেই, কমোরোস, মিশর, এরিত্রিয়া, ইথিওপিয়া, গাম্বিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, ইরাক, জর্দান, কুয়েত, লিবিয়া, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, মোওরিতানিয়া, মরক্কো, নাইজেরিয়া, উত্তর কোরিয়া, পাকিস্ত্মান, কাতার, সৌদি আরব, সোমালিয়া, সিরিয়া, সুদান, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ইয়েমেন।

পশ্চিমা দেশও ঝুঁকিমুক্ত নয়
হযে সব দেশে নাস্ত্মিকরা সবচেয়ে ঝুঁকিতে রয়েছে, সেগুলোর অধিকাংশই মুসলিম প্রধান দেশ।
কিন্তু কয়েকটি ইউরোপীয় দেশ এবং যুক্তরাষ্ট্রেও ধর্মে অবিশ্বাসী লোকজনের বিরম্নদ্ধে বৈষম্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে ধর্মে অবিশ্বাসীদের বিরম্নদ্ধে ঘৃণা বা বৈষম্য সাধারণ ঘটনা, বলছেন ব্রিটেনের কেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের ধর্ম বিষয়ক গবেষক ড. লোয়া লি।
বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের তথাকথিত বাইবেল- বেল্টে নাস্ত্মিকদের বিরম্নদ্ধে অসহিষ্ণুতা দিন দিন বাড়ছে।
হকেন এই প্রবণতা?
অনেক পর্যবেক্ষক মনে করছেন, এসব হত্যা নির্যাতনের খবর বেশি শোনা যাচ্ছে তার কারণ বিশ্বজুড়ে ধর্ম বিশ্বাস যত তীব্র হচ্ছে, তেমনি বহু মানুষ নতুন করে নিজেদের অবিশ্বাসী হিসাবে পরিচিত করছে। ফলে দ্বন্দ্ব বাড়ছে।
পিউ রিসার্চ সেন্টারের হিসাবে, ২০৬০ সালে সারা বিশ্বে নাস্ত্মিক এবং ধর্মে অবিশ্বাসীদের সংখ্যা বেড়ে ১২০ কোটিতে দাঁড়াবে। তবে ধর্মে বিশ্বাসীদের সংখ্যা তার চেয়ে বেশি হারে বাড়বে।
বিবিসি বাংলা
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
প্রথম পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin