প্রচারণা তুঙ্গে, সংঘাতের আশঙ্কা জাতীয় পার্টিররংপুর প্রতিনিধি রংপুর সিটি নির্বাচনরংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা এখন তুঙ্গে। প্রতীক পাওয়ার পরপরই পুরোদমে প্রচারণায় নেমে পড়েছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। পোস্টার, ব্যানারে ছেয়ে গেছে নগরী। সভা-সমাবেশের পাশাপাশি প্রার্থীরা ভোটারদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করে ভোট ও দোয়া চাইছেন।
তবে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী সরফুদ্দিন আহম্মেদ ঝন্টুর বিরম্নদ্ধে ব্যক্তিগত আক্রমণ ও দলের চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদকে কটাক্ষ করার অভিযোগ এনেছেন জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী মোস্ত্মাফিজার রহমান মোস্ত্মফা।
অন্যদিকে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে নির্বাচন কমিশনের দেয়া কারণ দর্শানো নোটিশকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মন্ত্মব্য করছেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী কাওসার জামান বাবলা।
বুধবার দুপুরে নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে 'সংলাপে নাগরিক অগ্রাধিকার' শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে যোগদান শেষে সাংবাদিকদের কাছে এমন অভিযোগ করেন ওই দুই মেয়র প্রার্থী।
কাওসার জামান বাবলা বলেন, কী কারণে তাকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হয়েছে তা জানেন না। তবে একটি সূত্রে জানতে পেরেছেন, গত সোমবার দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে একটি নির্বাচনী মতবিনিময় সভাকে ঘিরে আমাকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হতে পারে।
তিনি বলেন, প্রতীক পাওয়ার পর দলের ২৫-৩০ জন নেতাকর্মীকে নিয়ে মতবিনিময় সভা করেছেন। এর বাইরে কিছু হয়নি। এটাকে আচরণবিধি লঙ্ঘন বলা গণতান্ত্রিক আচরণ নয়।
মঙ্গলবার নগরীর মেডিকেল মোড়ে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মঞ্চ তৈরি করে সভা-সমাবেশ করলেও নির্বাচন কমিশন সে বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে তাকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়াকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মন্ত্মব্য করেন বিএনপির এই মেয়র প্রার্থী।
অপরদিকে জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী মোস্ত্মাফিজার রহমান মোস্ত্মফা সাংবাদিকদের বলেন, জাপা চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ এবং তাকে নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আপত্তিকর কথাবার্তা বলছেন। লাঙলে ভোট না দিতে লিফলেট বিতরণ করায় তিনি আচরণবিধি লঙ্ঘন করছেন। কারণ কোনো প্রার্থী বা দলের বিরম্নদ্ধে আক্রমণ করা নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন।
এ ব্যাপারে রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিফলেট পৌঁছে দেয়া হয়েছে। আশা করেন, তিনি ব্যবস্থা নেবেন।
তিনি বলেন, ব্যক্তিকে আক্রমণ করে ও দলের বিরম্নদ্ধে কথা বললে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এ থেকে সংঘাতের সৃষ্টি হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন।
সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী এবং নির্বাচন কমিশন আন্ত্মরিক হলেও লেভেল পেস্নয়িং ফিল্ড এখনো পুরোপুরি তৈরি হয়নি বলেও মন্ত্মব্য করেন জাপার এই প্রার্থী।
এর আগে ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের আয়োজনে 'সংলাপে নাগরিক অগ্রাধিকার' শীর্ষক অনুষ্ঠানে নিজেদের কর্ম পরিকল্পনা, নগর উন্নয়ন ও সম্ভাবনার বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির তিন মেয়র প্রার্থী।
এদিকে জাতীয় পার্টি প্রার্থীর অভিযোগ সম্পর্কে রিটার্নিং অফিসার ও আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার সুভাষ চন্দ্র সরকার বলেন, কোনো দলের পক্ষ থেকে লিখিত কোনো অভিযোগ পাননি।
বিএনপি প্রার্থীকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি বলেন, আগামী তিন দিনের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
রসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি ছাড়াও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) আব্দুল কুদ্দুস (মই), ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন বাংলাদেশের এটিএম গোলাম মোস্ত্মফা বাবু (হাতপাখা), ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) সেলিম আখতার (আম) এবং একমাত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ার (হাতী) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
প্রথম বারের মতো রংপুর সিটি করপোরেশেনের ভোট হয় ২০১২ সালের ২০ ডিসেম্বর।
তবে এবারেই প্রথম দলীয় প্রতীকে ভোট অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তাই বাড়তি উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে প্রার্থী, ভোটার ও সমর্থকদের মধ্যে।
এ সিটি করপোরেশনে বর্তমানে ভোটার সংখ্যা তিন লাখ ৯৩ হাজার ৯৯৪। এর মধ্যে পুরম্নষ ভোটার এক লাখ ৯৬ হাজার ৩৫৬ এবং নারী ভোটার এক লাখ ৯৭ হাজার ৬৩৮ জন। আগামী ২১ ডিসেম্বর রসিক নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
প্রথম পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin