ঢাবির সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনের প্রচারণা শুরম্নযাযাদি রিপোর্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনের প্রচারণা শুরম্ন হয়েছে। আগামী ৬, ১৩ ও ২০ জানুয়ারি এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে সৎ, যোগ্য এবং দুরদর্শী দৃষ্টিসম্পন্ন প্রার্থীদের নিয়ে প্যানেল গঠন করেছে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি 'গণতান্ত্রিক ঐক্য পরিষদ'। এ পরিষদের নেতাদের নিরঙ্কুশ বিজয়ের জন্য রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট ভোটারদের সঙ্গে দেশব্যাপী মাঠে রয়েছেন সাধারণ মানুষ। ভোটারদের একই কথা, গত নির্বাচনের (২০১৩ সালে) মতোই এ বছরও বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হবে ঐক্য পরিষদ।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, '২৫ জন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচন-২০১৮'তে অংশ নিয়েছেন গণতান্ত্রিক ঐক্য পরিষদের নেতারা। এ পরিষদে রয়েছেন শিক্ষাবিদ, অভিজ্ঞ ও সিনিয়র ব্যাংকার, রাজনৈতিক, ডাক্তার, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, মুক্তিযোদ্ধা, কবি, অভিনেতা এবং সমাজসেবক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দীর্ঘদিনের সুনাম অক্ষুণ্ন রাখা এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে এ পরিষদ কাজ করবে।
ঐক্য পরিষদের একাধিক নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেশনজট হ্রাস, বিজয় একাত্তর হল, কবি সুফিয়া কামাল হল, বঙ্গবন্ধু টাওয়ার, মুনীর টাওয়ার, শেখ রাসেল টাওয়ার, ৭ মার্চ ভবন নির্মাণসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকা-ে গণতান্ত্রিক ঐক্য পরিষদ বিগত দিনে কাজ করেছে। এবার নির্বাচনে বিজয়ী হলেও এর ব্যতিক্রম হবে না।
গণতান্ত্রিক ঐক্য পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, ৭ দফা কর্মসূচি বাস্ত্মবায়ন নিয়ে এ পরিষদ মাঠে নেমেছে। এর মধ্যে গণতান্ত্রিক আদেশ ১৯৭৩ অনুযায়ী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন বজায় রাখা। সিনেটের মাধ্যমে উপচার্য নিয়োগ দেয়া। শিক্ষা ও গবেষণা খাতে অর্থ বরাদ্দ বৃদ্ধি করে মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা করা। নতুন নতুন যুগোপযোগী বিভাগ, গবেষণা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা, ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নতুন হল নির্মাণ, শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবাসন, উচ্চগতিসম্পন্ন ইন্টারনেটসহ অন্যান্য সুযোগ-সবিধা বৃদ্ধি করা। প্রশাসনের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা। ডাকসু নির্বচানের উদ্যোগ নেয়া এবং সিনেটে গৃহীত সিদ্ধান্ত্ম অনুযায়ী বছরে দুইটি সিনেট অধিবেশন আহ্বান করা।
গণতান্ত্রিক ঐক্য পরিষদের প্রার্থীরা হলেন- অধ্যাপক ড. অসীম সরকার, এ আর এম মঞ্জুরম্নল আহসান বুলবুল, এ এইচ এম এনামুল হক চৌধুরী, অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, এবিএম বদরম্নদ্দোজা, অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান, মুক্তিযোদ্ধা এম. ফরিদ উদ্দিন, অধ্যাপক ড. এমরান কবীর চৌধুরী, এসএম বাহালুল মজনুন চুন্নু, অধ্যাপক ড. জিনাত হুদা, অধ্যাপক ড. তাজিন আজিজ চৌধুরী, নিজাম চৌধুরী, মিসেস মাহফুজা খানম, অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আবদুস সামাদ (কবি মুহাম্মদ সামাদ), অধ্যাপক মোহাম্মদ আব্দুল বারী, ব্যাংকার মো. আতাউর রহমান প্রধান, অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ, মো. আলাউদ্দিন, মো. নাসির উদ্দিন, ড. মো. লিয়াকত হোসেন মোড়ল, রঞ্জিত কুমার সাহা, রামেন্দু (কৃষ্ণ) মজুমদার, অধ্যাপক শরীফ আহমদ সাদী, অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম এবং অধ্যাপক ড. সৈয়দ হুমায়ুন আখতার।
আগামী ৬ জানুয়ারি ২৯টি কেন্দ্রে ও ১৩ জানুয়ারি ১৩টি কেন্দ্রে ঢাকার বাইরে ভোট গ্রহণ চলবে। এ ছাড়া ২০ জানুয়ারি শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি, শারীরিক শিক্ষা কেন্দ্র্র এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনে ভোট নেয়া হবে।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
শেষের পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close