না খেতে পেয়ে মরতে বসেছে চিত্রা হরিণগুলোদিনাজপুর প্রতিনিধি দিনাজপুরের রামসাগর জাতীয় উদ্যান চিড়িয়াখানায় চিত্রা হরিণনা খেতে পেয়ে মরতে বসেছে দিনাজপুরের রামসাগর জাতীয় উদ্যান চিড়িয়াখানার ৪৭টি চিত্রা হরিণ।
গত ১০ মাস ধরে খাবারের কোনো বরাদ্দ না আসায় অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটছে তাদের। ফলে পুষ্টিহীনতা ও রোগ ভর করেছে শরীরে। দিন দিন কঙ্কালসার ও দুর্বল হয়ে পড়ছে পাঁজরের হাড় জাগা চিত্রা হরিণগুলো।
শারীরিক অবস্থার অবনতির সঙ্গে সঙ্গে বেশির ভাগ হরিণই মৃতু্যর ঝুঁকিতে থাকলেও বরাদ্দের অভাবে পর্যাপ্ত খাবার দিতে পারছে না কর্তৃপক্ষ।
প্রাচীন ইতিহাস-ঐতিহ্যের ধারক-বাহক রামসাগর দিঘিকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা জাতীয় উদ্যানের ভেতরে রয়েছে চিড়িয়াখানাটি। সারা বছরই দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় থাকে দিঘি-উদ্যান-চিড়িয়াখানায়।
সরেজমিনে চিড়িয়াখানায় গিয়ে দেখা গেছে, ক্রমশ ঝিমিয়ে পড়ছে এক সময়ের দুরন্ত্ম ও চঞ্চল চিত্রা হরিণের দলটি। তাদের মধ্যে আগের মতো প্রাণচাঞ্চল্য নেই। তবে বেড়াতে আসা দর্শনার্থীদের এদিকটাতে এলেই দলবেঁধে খাঁচার ওপার থেকে ছুটে আসছে। খাঁচার ফাঁক দিয়ে মুখ বাড়িয়ে করম্নণ দৃষ্টিতে খাবার চাইছে। দর্শনার্থীরা বাদাম-কলাসহ সামান্য যে খাবার মুখে তুলে দিচ্ছেন, তাতে অসহায় হরিণগুলোর ক্ষুধার সামান্যটুকুও মিটছে না।
ক্ষুধার জ্বালায় চিত্রা হরিণের দলটি খাঁচার ভেতরে ছুটছিল এক প্রান্ত্ম থেকে অন্য প্রান্ত্মে। হঠাৎ পূর্ব-উত্তর কোণের দরজা দিয়ে এক ভ্যান বিভিন্ন গাছের পাতা নিয়ে ঢোকেন চিড়িয়াখানার পরিচর্যাকারী। ভ্যানের কাছে ছুটে যায় ক্ষুধার্ত হরিণের দলটি। ভ্যান থেকে পাতা নামানোর সঙ্গে সঙ্গে মুহূর্তেই খেয়ে শেষ করে ফেলে।
হরিণগুলোর পরিচর্যাকারী বাবুল রায় জানান, চিড়িয়াখানা স্থাপনের পর ছয়টি চিত্রা হরিণ আনা হয়েছিল। সঠিক পরিচর্যায় সেগুলো থেকে এখন ৪৭টি হরিণ হয়েছে। ৪৭টি হলেও সরকার ১০ মাস আগে সর্বশেষ খাবার বরাদ্দ দেয় আগের ৬টির হিসেবেই। এরপর থেকে সে খাবার আসাও বন্ধ রয়েছে। এ দীর্ঘ সময়ে রামসাগর দিঘির চারপাশে থাকা বিভিন্ন গাছের লতাপাতা দিনে তিনবেলা খাইয়ে কোনোমতে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে হরিণগুলোকে।
এর ওপরে ১২টি মা হরিণ কিছুদিনের মধ্যেই সন্ত্মান প্রসব করবে। তাদেরকেও প্রয়োজনীয় বাড়তি খাবার দেয়া প্রয়োজন। ঠিকমতো পুষ্টিকর খাবার না পাওয়ায় পুষ্টির অভাবে দিন দিন বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত্ম হয়ে দুর্বল হয়ে পড়ছে হরিণগুলো। শারীরিক অবস্থা এখন খুবই খারাপ। যেকোনো সময় হরিণগুলোর মৃতু্যর মতো অঘটন ঘটতে পারে।
দর্শনার্থী রমেশ চন্দ্র বলেন, হরিণগুলোর প্রায় সবক'টির পাঁজরের হাড় স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। কঙ্কালসার প্রাণীগুলোকে দেখতেও খারাপ লাগছে। ক্ষুধার্ত হরিণের দলটি মারা গেলে সে দায় কে নেবে? সরকারি এই সম্পদ রক্ষায় খাদ্য সরবরাহে দ্রম্নত বরাদ্দ দেয়া প্রয়োজন।
দিনাজপুর বন বিভাগের কর্মকর্তা ও রামসাগর জাতীয় উদ্যানের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুস সালাম তুহিন জানান, চিকিৎসকরা বলছেন, পুষ্টিহীনতায় হরিণগুলোর মৃতু্যর আশঙ্কা রয়েছে। এদেরকে দ্রম্নত সুস্থ করতে হলে পরিমিত ও পুষ্টিকর খাবার দিতে হবে।
তিনি জানান, চিত্রা হরিণগুলোর খাদ্যের বরাদ্দ চেয়ে একাধিকবার চিঠি দেয়া হয়েছে। চলতি মাসের মধ্যেই বরাদ্দ পাওয়া যেতে পারে বলেও আশাবাদী তিনি।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
শেষের পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close