সবজির বাজারে আবারও উত্তাপ!যাযাদি রিপোর্ট রাজধানীর মতিঝিল এজিবি কলোনি বাজারের একটি সবজি দোকান -যাযাদিদীর্ঘদিন ধরে সবজির বাজারদরের তা-ব দেখেছেন ক্রেতারা। তবে মাসখানেক আগে সবজির দাম কমে স্বভাবিক হয়। কিন্তু নতুন বছরের শুরম্নতেই আবারও দাম বেড়েছে সবজির।
১০ টাকা থেকে শুরম্ন করে ২০ টাকা পর্যন্ত্ম কেজি প্রতি সবজির দাম বেড়েছে বলে বিক্রেতারা জানান। শীতে সবজির চাষ নষ্ট ও পরিবহন সংকট এই দাম বৃদ্ধির অন্যতম কারণ বলেও বিক্রেতারা জানান।
শুক্রবার রাজধানীর মিরপুর এলাকার বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে এসব তথ্য জানা গেছে।
সর্বশেষ সবজির খুচরা বাজারের তথ্য অনুযায়ী, প্রতি কেজি বেগুন ৩০ টাকা থেকে বেড়ে গিয়ে ৫০ টাকায়, সিম ৩০ টাকা থেকে ৫০ টাকা, পেঁপে ২০ টাকা থেকে ২৫ টাকা, আলু ২০ টাকা থেকে ২৫ টাকা, মুলা ১৫ টাকা থেকে ২০ টাকা, কাঁচামরিচ ৬০ টাকা থেকে ৮০ টাকা, দেশি টমেটো ৩৫ টাকা থেকে বেড়ে ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া আগের দামে রয়েছে আমদানি করা টমেটো ৮০ টাকা, গাজর ৪০ টাকা, শসা ৪০ টাকা, চিচিঙ্গা ৪০ টাকা, ২০-২৫ টাকা করে প্রতি পিস বাঁধাকপি ও ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া লাল শাক, পালং শাক ও ডাটা শাক দুই আটি ১৫ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।
মিরপুর-৬ নম্বরের সবজির খুচরা বিক্রেতা আলাউদ্দিন বলেন, প্রচ- শীতে সবজি চাষ ক্ষতিগ্রস্ত্ম হয়েছে। শীত ও কুয়াশায় সবজির ট্রাক সময়মতো ঢাকায় আসছে না। এসব কারণে হঠাৎ করে সবজির দাম বেড়ে গেছে।
তিনি বলেন, এভাবে আরও কয়েকদিন চলতে থাকলে সবজির দাম আগের বাড়তি দামের কাছে পৌঁছে যাবে।
অন্যদিকে পেঁয়াজের দামের ঝাঁঝ কমার তেমন কোনো সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা। ইতোমধ্যে খুচরা বাজারে নতুন পেঁয়াজের চালান আসলেও দাম কমছে না পেঁয়াজের।
সর্বশেষ খুচরা বাজারের তথ্য অনুযায়ী, প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৭০ টাকা ও আমদানি করা পেঁয়াজও একই দামে ৭০ করে বিক্রি হচ্ছে।
মিরপুর-১০ নম্বরে বাজার করতে আসা ক্রেতা জালাল উদ্দিন বলেন, কিছুদিনের জন্য সবজির দাম কমেছিল ঠিকই। কিন্তু আবার দাম বেড়ে গেল। এই শীত মৌসুমে সবজির দাম সবসময় কম থাকে, কিন্তু এবারই এই অবস্থা চলছে।
এ ছাড়া সবজির দামের পাশাপাশি পেঁয়াজের দাম নিয়েও অনেক ক্রেতা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। পেঁয়াজের দাম নিয়ে খুচরা বিক্রেতা মো. জসিম বলেন, দেশি পেঁয়াজে বাজারের চাহিদা মিটছে না। আর পেঁয়াজের আমদানি এখনো স্বাভাবিক হয়নি। তাই দাম এখনো বেশি চলছে।
চালের বাজারের অস্থিরতা এখনো বিরাজমান। চালের সর্বশেষ খুচরা বাজারের তথ্য অনুযায়ী, কেজি প্রতি নাজিরশাইল চাল বিক্রি হচ্ছে ৬৮-৭০ টাকা, মিনিকেট ৬০-৬২ টাকা, বিআর-২৮ চাল ৫২ টাকা, পারিজা কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৪৪ টাকায়।
অন্যদিকে, সর্বশেষ খুচরা বাজারের তথ্য অনুযায়ী, দেশি রসুন ৮০ টাকা, আমদানি রসুন ৮৫ টাকা, চিনি ৫৫-৬০ টাকা, দেশি মসুর ডাল ১০০ থেকে ১২০ টাকা ও আমদানি করা মসুর ডাল ৬০ টাকা কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে।
এ ছাড়া অপরিবর্তিত রয়েছে মাছ ও মাংসের দাম।
মাছের সর্বশেষ খুচরা বাজারের তথ্য অনুযায়ী, প্রতি কেজি কাতল মাছ ২২০ টাকা, পাঙ্গাশ মাছ ১২০ টাকা, রম্নই মাছ ২৩০-২৮০ টাকা, সিলভারকার্প ১৩০ টাকা, তেলাপিয়া ১৩০ টাকা, শিং মাছ ৪০০ টাকা ও চিংড়ি ৪৫০ থেকে ৫০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
প্রতি কেজি গরম্নর মাংস ৪০০-৪৫০ টাকা, খাসির মাংস ৭০০-৭৫০ টাকা ও ব্রয়লার মুরগি প্রতি কেজি ১৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া কক মুরগি প্রতি পিস সাইজ অনুযায়ী ১৫০-২২০ টাকা পর্যন্ত্ম বিক্রি হচ্ছে।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close