পূর্ববর্তী সংবাদ
বসন্ত্মের হাওয়ায় ভালোবাসার ছোঁয়াঅনেকেই দ্বিধায় থাকেন ভালোবাসা দিবসের পোশাক নিয়ে। ভালোবাসা দিবস খুব বিশেষ একটা দিন যা বছরে একবারই আসে। এ বিশেষ দিনে সবাই তাদের সবচেয়ে প্রিয় মানুষটিকে খুশি করার জন্য নানা ধরনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। তাই যখন ভালোবাসা দিবসে আপনারা আপনাদের প্রেমিক কিংবা প্রেমিকার সঙ্গে বাইরে যান...আফরিন জাহান ভালোবাসার দিনে চমকে দিন আপনার ভালোবাসার মানুষটিকে ছবি : ইন্টারনেটবিশ্বের সবচেয়ে বেশিবার উচ্চারিত শব্দগুলোর একটি সম্ভবত 'ভালোবাসা'। অবশ্য এর নানা প্রকরণ রয়েছে। বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে ভালোবাসাকে ভাগ করা যায়। এর মধ্যে পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধব, ধর্মীয় কিংবা প্রেমিক-প্রেমিকার মধ্যে ভালোবাসা। তাই বলা চলে ভালোবাসা কেবল প্রেমিক- প্রেমিকার জন্যই নয়। মা-বাবা, স্বামী-স্ত্রী, ভাই-বোন, প্রিয় সন্ত্মান, পরিবার, সমাজ এমনকি দেশের জন্যও ভালোবাসা হতে পারে।
তবে আবেগধর্মী ভালোবাসা সাধারণত গভীর হয়, বিশেষ কারো সঙ্গে নিজের সব অনুভূতি ভাগ করা, এমনকি শরীরের ব্যাপারটাও এ ভালোবাসা থেকে পৃথক করা যায় না।
মোবাইল ফোন বা অবাধ তথ্যপ্রযুক্তির যুগে প্রেম-ভালোবাসার ক্ষেত্রে যোগাযোগের বিষয়টি সহজলভ্য হলেও পাল্টে যাচ্ছে ভালোবাসার ধরন ও সংজ্ঞা। আবেগী পবিত্র ভালোবাসার ঘরে প্রবেশ করছে যৌনতা। এর পরও ভালোবাসার আবেদন কমেনি এতটুকু। আর কমেনি বলেই দিবস ঘিরে এত আয়োজন, এত আহাজারি।
অনেকেই দ্বিধায় থাকেন ভালোবাসা দিবসের পোশাক নিয়ে। ভালোবাসা দিবস খুব বিশেষ একটা দিন যা বছরে একবারই আসে। এ বিশেষ দিনে সবাই তাদের সবচেয়ে প্রিয় মানুষটিকে খুশি করার জন্য নানা ধরনের পরিকল্পনা গ্রহণ করে। তাই যখন ভালোবাসা দিবসে আপনারা আপনাদের প্রেমিক কিংবা প্রেমিকার সঙ্গে বাইরে যান, তখন স্বাভাবিকভাবেই আপনার চেষ্টা থাকে কিভাবে নিজেকে খুব সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা যায়।
ভালোবাসা দিবস খুব বিশেষ একটা দিন যা বছরে একবারই আসে। এ বিশেষ দিনে সবাই তাদের সবচেয়ে প্রিয় মানুষটিকে খুশি করার জন্য নানা ধরনের পরিকল্পনা গ্রহণ করে থাকে। তাই যখন ভালোবাসা দিবসে আপনারা আপনাদের প্রেমিক কিংবা প্রেমিকার সঙ্গে বাইরে যান, তখন স্বাভাবিকভাবেই আপনার চেষ্টা থাকে কিভাবে নিজেকে খুব সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা যায়। ইতোমধ্যে আপনি নিশ্চয়ই পরিকল্পনা করে ফেলেছেন ভালোবাসা দিবসে আপনি কী করবেন, তাই না? এ ক্ষেত্রে দুটি বিষয় হতে পারে। হয় আপনি এ বিশেষ দিনে কী ধরনের পোশাক পরবেন, তা নিয়ে ভাবছেন কিংবা এ ব্যাপারে আপনি কোনো কিছু চিন্ত্মাই করছেন না। যেহেতু সে আপনাকে ভালোবাসে, তাই ভাবছেন বিশেষ কিছু করার কোনো প্রয়োজন নেই। কিন্তু এ বিশেষ দিনে বিশেষভাবে তৈরি হওয়ার প্রয়োজনীয়তা আছেই। এ ভালোবাসার দিনে চমকে দিন আপনার ভালোবাসার মানুষটিকে এক অনন্য সাজে সেজে, দেখবেন আপনার ভালোবাসার মানুষটি একে দারম্নণ উপভোগ করবে।
বিশ্বের সবচেয়ে বেশিবার উচ্চারিত শব্দগুলোর একটি সম্ভবত 'ভালোবাসা'। অবশ্য এর নানা প্রকরণ রয়েছে। বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে ভালোবাসাকে ভাগ করা যায়। এর মধ্যে পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধব, ধর্মীয় কিংবা প্রেমিক-প্রেমিকার মধ্যে ভালোবাসা। তাই বলা চলে ভালোবাসা কেবল প্রেমিক- প্রেমিকার জন্যই নয়। মা-বাবা, স্বামী-স্ত্রী, ভাই-বোন, প্রিয় সন্ত্মান, পরিবার, সমাজ এমনকি দেশের জন্যও ভালোবাসা হতে পারে।
তবে আবেগধর্মী ভালোবাসা সাধারণত গভীর হয়, বিশেষ কারো সঙ্গে নিজের সব অনুভূতি ভাগ করা, এমনকি শরীরের ব্যাপারটাও এ ভালোবাসা থেকে পৃথক করা যায় না।
মোবাইল ফোন বা অবাধ তথ্যপ্রযুক্তির যুগে প্রেম-ভালোবাসার ক্ষেত্রে যোগাযোগের বিষয়টি সহজলভ্য হলেও পাল্টে যাচ্ছে ভালোবাসার ধরন ও সংজ্ঞা। আবেগী পবিত্র ভালোবাসার ঘরে প্রবেশ করছে যৌনতা। এর পরও ভালোবাসার আবেদন কমেনি এতটুকু। আর কমেনি বলেই দিবস ঘিরে এত আয়োজন, এত আহাজারি।
অনেকেই দ্বিধায় থাকেন ভালোবাসা দিবসের পোশাক নিয়ে। ভালোবাসা দিবস খুব বিশেষ একটা দিন যা বছরে একবারই আসে। এ বিশেষ দিনে সবাই তাদের সবচেয়ে প্রিয় মানুষটিকে খুশি করার জন্য নানা ধরনের পরিকল্পনা গ্রহণ করে। তাই যখন ভালোবাসা দিবসে আপনারা আপনাদের প্রেমিক কিংবা প্রেমিকার সঙ্গে বাইরে যান, তখন স্বাভাবিকভাবেই আপনার চেষ্টা থাকে কিভাবে নিজেকে খুব সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা যায়।
প্রেম দিবসের প্রচলিত লাল পোশাক নাকি অন্য রকম কিছু, সনাতনি শাড়ি? নাকি সাহসী কোনো পোশাক। যদি সারা দিনের জন্য বের হওয়ার পরিকল্পনা থাকে তাহলে অবশ্যই ক্যাজুয়াল পোশাকেই মনোনিবেশ করম্নন। যদি রাতে রোমান্টিক ডিনারে যাওয়ার পরিকল্পনা থাকে তাহলে শাড়ি পরতে পারেন। আর যদি নাইট আউটের কথা ভেবে রাখেন তাহলে সব থেকে উপযোগী শর্ট ড্রেস। তবে সবটাই বাছতে হবে নিজের চেহারা ও সেদিনের আবহাওয়ার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে। ঝলমলে রোদ, হালকা শীত, বসন্ত্মের আগমনী বার্তা ও সর্বোপরি প্রেমকে মাথায় রেখে অনুজ্জ্বল রঙে দিন এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। সুন্দর রঙে নিজেকে সুন্দরভাবে সাজিয়ে তুলুন।
মনে রাখবেন, প্রেম মানেই প্যাশন। আর তাই ভালোবাসার রং বললেই মাথায় আসে লাল। যদি আপনার পছন্দের তালিকায় লাল থাকে তাহলে অবশ্যই লাল পরতে পারেন। সারা দিন ঘোরাঘুরি বা লং ড্রাইভে যেতে হলে জিন্সের সঙ্গে লাল হাইনেক পুলোভারের কোনো তুলনা নেই। যদি ঠা-া কম থাকে তাহলে সাদা বা হালকা রঙের কোনো টপের ওপর জড়িয়ে নিতে পারেন লাল স্কার্ফ। শীতের কম-বেশি তারতম্য অনুযায়ী লাল স্টোলও ব্যবহার করতে পারেন।
যদি আপনার চেহারা মেদহীন হয় তাহলে সাদা ফলিং শোল্ডার টপের কাঁধ থেকে উঁকি মারতে পারে লাল লজারি। তবে ভালোবাসা দিবস বলে শুধু লালেই আটকে থাকবেন না। যে কোনো উজ্জ্বল রংই এই সময়ের জন্য এবং প্রেমের জন্য ভালো। পছন্দমতো হালকা গোলাপি, উজ্জ্বল হলুদ, পার্পল, সুন্দর নীল- যে কোনো রঙের পোশাকই আপনি পরতে পারেন। তার সঙ্গে মানানসই জুতা, ব্যাগ, অ্যাক্সেসরিজ নিলেই সাজ সম্পূর্ণ।
এ ছাড়া আপনি কি একটি রোমান্টিক রাতের খাবারের কথা ভাবছেন? তাহলে কালো হবে আপনার জন্য সবচেয়ে মানানসই পোশাক। চাইলে আপনি লাল রঙের পোশাকও পরতে পারেন। যে ধরনের পোশাক সহজে কুঁচকে না সে ধরনের পোশাক নির্বাচন করবেন রাতের ডেটের ক্ষেত্রে। সারা দিনের ব্যাপার বলে মেকআপ কিন্তু হবে হালকা। ভালোবাসা দিবস বলে একগাদা মেকআপ করে ফেললে কিন্তু পুরো সাজটাই মাটি। মূলত গাঢ় কাজল আর নু্যড, গোলাপি বা হালকা বাদামি লিপগস্নসেই শেষ করম্নন সাজ।
হয়তো ভালোবাসা উদ্‌যাপনের জন্য কোনো দিনক্ষণ লাগে না, তার পরও এদিনটি একটু বিশেষভাবেই পালন করতে চান সবাই। কিন্তু এ বিশেষভাবে পালন করতে গিয়ে পকেট থেকে বের হয়ে যায় অনেক টাকা। মাসের মাঝামাঝিতে এই অনেকটা টাকা খরচ করে মাসের শেষ দিকে খালি পকেট নিয়ে ঘুরতে হয় অনেককেই। কিন্তু একটু বুদ্ধি খাটিয়ে খুব সহজেই কমিয়ে আনতে পারেন এ ভ্যালেন্টাইন ডের খরচাপাতি। চলুন দেখে নেয়া যাক।
আজকাল বাজারে কম দামি কিন্তু বেশ আকর্ষণীয় এবং কাজে লাগানোর বহু জিনিস পাওয়া যায়। একটু সময় নিয়ে খুঁজে বের করে উপহার দিতে পারেন। কিংবা কিনে দিন কম দামের হ্যান্ডি ক্র্যাফটের জিনিস কিংবা কয়েকটি গোলাপ ফুল কিংবা একটি ক্যাটবেরি চকলেট বার। ভ্যালেন্টাইন ডে উপলক্ষে কার্ড, শোপিস, চকোলেট বক্স এবং মগ বেশি বিক্রি হচ্ছে। আকার ও ডিজাইনের ওপর নির্ভর করে এর দাম নির্ধারণ করা। প্রেমিকার জন্য কিনতে পারেন কার্ড, ফুল, মগ, সানগস্নাস, চকোলেট, গয়না, ব্যাগ, হাতঘড়ি, সুগন্ধি, গয়নার বক্স, ফুলদানি, পেইন্টিংস, ফটোফ্রেম, মোবাইল ফোন সেট, পোশাক, ডায়েরি, সিডি, বই। প্রেমিকের জন্য- কার্ড, ফুল, মগ, সানগস্নাস, চকোলেট, মানিব্যাগ, সুগন্ধি, চাবির রিং, শেভিং কিটস, হাতঘড়ি, বেল্ট, পোশাক, সিডি, ফটোফ্রেম, কলম, কাফলিংক সেট, টাই, ব্যাগ, আর বই। স্বামী-স্ত্রী, বাবা-মা, ভাই-বোন, সন্ত্মান এবং যে কোনো প্রিয় বন্ধুর জন্যই উপহার দিতে পারেন।
 
পূর্ববর্তী সংবাদ
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close