কারাগারে খালেদার সঙ্গী ফাতেমাই একমাত্র ব্যতিক্রমযাযাদি রিপোর্ট এক-এগারোর সেনাসমর্থিত সরকারের সময় থেকে বদলে গেছে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার জীবন। দুই সন্ত্মানের মধ্যে এক সন্ত্মানকে চিরতরে হারিয়েছেন। আরেকজন নির্যাতনে পঙ্গু হয়ে বিদেশে চিকিৎসাধীন। আপন দুই ভাইবোনও এরই মধ্যে চলে গেছেন না ফেরার দেশে। আর নাতি-নাতনিদের সঙ্গে দেখা হয় কালেভদ্রে। একাকিত্ব যেন তার জীবনে অংশ হয়ে গেছে। সর্বশেষ একমাত্র বন্দি হিসেবে তিনি সাজা খাটছেন নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে।
বার্ধক্যের সঙ্গে যোগ হয়েছে অসুস্থতা। দীর্ঘদিন ধরে সেভাবে একা চলতে-ফিরতে পারেন না খালেদা জিয়া। নিজের নাওয়া-খাওয়া, চলাফেরা, ওষুধ-পানি বা যে কোনো সামান্য দরকারে যে নারীটি বিএনপি চেয়ারপারসনের ছায়াসঙ্গী হয়ে উঠেছেন তিনি হলেন ফাতেমা। বিএনপি চেয়ারপারসনের কারাবন্দি জীবনেরও একমাত্র সঙ্গী হয়ে নজির স্থাপন করলেন তিনি।
জানতে চাইলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহাবুব হোসেন বলেন, 'যেহেতু বেগম জিয়া একজন বয়স্ক মহিলা তাই আমরা আদালতে একটা দরখাস্ত্ম করি। উনি শারীরিকভাবেও সুস্থ নন। যে কারণে তিনি তার দীর্ঘদিনের সেবিকা ফাতেমাকে ওষুধ-পথ্য খেতে সহযোগিতার জন্য পাশে চেয়েছেন।'
তিনি বলেন, 'এর আগে সংবাদ মাধ্যমে দেখেছি ফাতেমাকে বেগম জিয়ার সেবিকা হিসেবে দেয়া হয়েছে। কিন্তু আমরা সেদিন জেলে গিয়ে দেখি ফাতেমাকে দেয়া হয়নি। অন্য কোনো সেবিকাও নেই। তাই আবার আদালতে দরখাস্ত্ম করি, আদালত সেটি অনুমোদন দিয়েছে।'
খন্দকার মাহাবুব বলেন, 'যেহেতু আদালত ফাতেমাকে রাখার অনুমতি দিয়েছে আর ফাতেমা যদি জেলে ম্যাডামের সঙ্গে থাকেন তাহলে সেক্ষেত্রে এটাই হবে প্রথম নজির।'
তিনি বলেন, 'তাছাড়া কোথাও এভাবে কোনো প্রধানমন্ত্রীকে জেলে রাখা হয় না। এটাও একটা প্রথম নজির হিসেবে বিবেচিত হবে। আমি কিন্তু এখনো নিশ্চিত নই যে ফাতেমাকে বেগম জিয়ার সঙ্গে থাকতে দেয়া হয়েছে কিনা।'
যোগাযোগ করলে সাবেক ডিআইজি প্রিজনস মেজর (অব.) শামসুল হায়দার চৌধুরী বলেন, 'ফাতেমার বিষয়টা কোর্ট যেটা অনুমোদন দিয়েছে সেটা বাংলাদেশে একটা নতুন ঘটনা।'
তিনি বলেন, 'কারাগারে বাইরের কোনো লোক দেয়া হয় না। যারা ডিভিশন পাওয়া বন্দি তাদের কাজকর্মের জন্য বন্দিদের ভেতর থেকেই একজনকে নিয়োগ করার কথা সেবক বা সেবিকা হিসেবে।'
সাবেক এই ডিআইজি প্রিজনস বলেন, 'ফাতেমার বিষয়টি প্রথম ব্যতিক্রম বাংলাদেশে। যেহেতু কোর্ট দিয়েছে তখন আর কোনো কথা নেই।'
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
শেষের পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close