খালেদাকে এবার সিএমএইচে নেয়ার প্রস্ত্মাব স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীরইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসা ব্যয় বহন করতে চায় বিএনপিযাযাদি রিপোর্ট বিএসএমএমইউর পরিবর্তে ইউনাইটেড হাসপাতালে নিতে খালেদা জিয়ার পরিবারের আবেদনের পর তাকে সিএমএইচে নেয়ার প্রস্ত্মাব দিচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।
বিএনপি চেয়ারপারসনকে মঙ্গলবার সকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নেয়ার প্রস্ত্মুতি থাকলেও তার অনীহার কারণে নেয়া যায়নি বলে কারা মহাপরিদর্শক সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন জানান।
তখন তিনি বলেছিলেন, কারাবিধিতে বেসরকারি হাসপাতালে নেয়ার সুযোগ না থাকায় তা পেতে হলে খালেদা জিয়াকে আবেদন করতে হবে।
এরপর খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে ইউনাইটেড হাসপাতালে নিজ খরচে চিকিৎসা নেয়ার আবেদন নিয়ে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যায়।
সেই আবেদন পাওয়ার পর ইউনাইটেডের বদলে
হঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নেয়ার প্রস্ত্মাব দেন আসাদুজ্জামান কামাল।
তিনি সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, কারাবিধি অনুযায়ী খালেদা জিয়াকে 'সর্বোচ্চ সেবা' দেয়ার লক্ষ্যে তারা এখন সিএমএইচের প্রস্ত্মাবটি দেবেন।
'তিনি যদি সেখানে (সিএমএইচ) যেতে চান, আমরা সেখান থেকেও তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করিয়ে দিতে পারি। আমরা তার চিকিৎসার জন্য সরকারিভাবে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা নিয়েছি।'
বেসরকারি ইউনাইটেডকে বাদ দিয়ে কেন সিএমএইচ- উত্তরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, 'প্রাইভেট হাসপাতালটির চেয়ে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও সিএমএইচ অনেক সমৃদ্ধ। সেখানে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারও রয়েছেন। তাছাড়া সিএমএইচ অনেক ক্রাইসিস মোমেন্টে ভূমিকা রেখেছে। সেই বিবেচনায় আমরা সিএমএইচের প্রস্ত্মাব দেব।'
কারা মহাপরিদর্শকের বক্তব্য অনুযায়ী, খালেদা জিয়া ইউনাইটেড হাসপাতাল ছাড়া অন্য কোথাও চিকিৎসা নিতে চান না।
সেক্ষেত্রে কী হবে- জানতে চাইলে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, 'আমরা মনে করি, তার সিএমএইচে যাওয়া উচিত। আমরা এখন তাকে প্রপোজালটা দেব। তিনি কী রিঅ্যাকশন দেন, সেটা আমরা দেখব।'
ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসার আবেদন বিবেচনার কোনো সুযোগ রয়েছে কি না- এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, 'এটার কোনো যুক্তি আছে বলে আমার মনে হয় না। সিএমএইচে না যাওয়ার মতো যুক্তি আমার মনে হয় থাকতে পারে না।'
খালেদা জিয়া বা তার পরিবার সিএমএইচের প্রস্ত্মাব প্রত্যাখ্যান করলে 'সিচু্যয়েশন বুঝে' পরবর্তী পদক্ষেপ নেবেন বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।
৭৩ বছর বয়সী খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় দ-িত হওয়ার পর থেকে চার মাস ধরে পুরান ঢাকার পরিত্যক্ত এই কারাগারে একমাত্র বন্দি হিসেবে রয়েছেন।
তিনি একবার অসুস্থ হয়ে পড়লে গত এপ্রিলের শুরম্নতে তাকে একবার বিএসএমএমইউতে নিয়ে এক্সরে করানো হয়েছিল।
গত ৫ জুন তিনি হঠাৎ করে কারাগারে 'মাথা ঘুরে' পড়ে গেলে তার স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠে বিএনপি; তাকে দেখতে গত শনিবার কারাগারে যান তার ব্যক্তিগত চারজন চিকিৎসক।
খালেদার 'মাইল্ড স্ট্রোক' হয়েছে ধারণা করে তাকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ইউনাইটেড হাসপাতালে নেয়ার সুপারিশ করেন তারা। বিএনপিও তাদের নেত্রীকে ইউনাইটেড হাসপাতালে নেয়ার দাবি জানিয়ে আসছে।
বঙ্গবন্ধুতে অনীহা প্রকাশ
এর আগে মঙ্গলবার সকালে আইজি প্রিজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন বলেন, অনীহা প্রকাশ করায় চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে না।
তিনি সাংবাদিকদের বলেন, 'ওনাকে (খালেদা জিয়া) সেখানে (বিএসএমএমইউ) নেয়ার জন্য সব প্রস্ত্মুতি সম্পন্ন ছিল। কিন্তু তিনি অনীহা প্রকাশ করেছেন। তাকে হাসপাতালে নেয়ার জন্য গতকাল আমি নিজে তার সঙ্গে কথা বলেছিলাম। কারাবিধি অনুযায়ী বিএসএমএমইউতে ওনার সর্বোচ্চ চিকিৎসা হতো।'
সরকার যদি চায় তাহলে প্রাইভেট হাসপাতালে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করা যেতে পারে বলেও জানান তিনি।
এক প্রশ্নের জবাবে আইজি প্রিজন আরো বলেন, বিএসএমএমইউতে চিকিৎসা নিতে অনীহার কারণ তিনি (খালেদা জিয়া) লিখিত আকারে জানালে আমরা এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য কর্তৃপক্ষকে জানাব।
এর আগে সকালে বিএসএমএমইউতে যেতে অনীহা প্রকাশ করেন কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।
তার বরাতে কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবির জানান, 'ওনাকে চিকিৎসা দেয়ার জন্য আমরা সব প্রস্ত্মুতি সম্পন্ন করেছি। কিন্তু তিনি বিএসএমএমইউতে যাবেন না বলে অনীহা প্রকাশ করেছেন।'
তবে তিনি ইউনাইটেড হাসপাতালে যেতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলেও এক প্রশ্নের উত্তরে জানান সিনিয়র জেল সুপার।
চিকিৎসার ব্যয় বহন
করতে চায় বিএনপি
এদিকে কারাবন্দি খালেদা জিয়ার চিকিৎসার ব্যয় দল বহন করবে জানিয়ে তাকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তির দাবি জানিয়েছে বিএনপি। সরকার যথাযথ চিকিৎসার ব্যবস্থা না করায় খালেদা জিয়ার অসুস্থতা দিন দিন বাড়ছে বলেও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে দলটি।
মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে খন্দকার মোশাররফ হোসেন দেরি না করে খালেদা জিয়াকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।
গণমাধ্যমে দেওয়া কারা মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিনের বক্তব্য তুলে ধরে বিএনপি নেতা মোশাররফ বলেন, আইজি প্রিজন বলেছেন, কারাবিধি অনুযায়ী বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়ার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত্ম প্রয়োজন। এমন কোনো সিদ্ধান্ত্ম না থাকায় খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) নিতে হবে। আইজি প্রিজন আরও জানিয়েছেন, বেসরকারি হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানকার চিকিৎসা ব্যয় কে বহন করবে, সে সম্পর্কেও সিদ্ধান্ত্ম প্রয়োজন হবে।
মোশাররফ বলেন, 'তার (আইজি প্রিজন) এই বক্তব্য থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের মতামত এবং আমাদের বারবার অনুরোধ সত্ত্বেও ইউনাইটেড হাসপাতালে দেশনেত্রীকে ভর্তির ব্যাপারে সরকারের অনীহার কারণ বোঝা গেল। আমরা দেশনেত্রীর উপযুক্ত চিকিৎসা চাই বলেই আপনাদের (গণমাধ্যম) মাধ্যমে সরকারকে জানাতে চাই যে প্রয়োজনে এই চিকিৎসার সমুদয় ব্যয় আমাদের দল বহন করবে।'
মোশাররফ হোসেন বলেন, বিএনপির পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে দুবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে খালেদা জিয়াকে ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসা এবং এমআরআইসহ প্রয়োজনীয় অন্যান্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করানোর দাবি করা হলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন। অথচ বাস্ত্মবে কিছুই করা হয়নি।
ইতিমধ্যে খালেদা জিয়ার অসুস্থতা আরও বেড়েছে দাবি করে মোশাররফ হোসেন বলেন, আর্থরাইটিসের ব্যথা বাড়ার কারণে তিনি চলৎশক্তিহীন হয়ে পড়ছেন। পাশাপাশি তার অপারেশন করা চোখ লাল হয়ে আছে। এই পরিস্থিতিতে দ্রম্নত তার উপযুক্ত চিকিৎসা না হলে শারীরিক অবস্থার গুরম্নতর অবনতি হতে পারে। সরকারকে এটা জানানোর পরও তার সুচিকিৎসার কোনো ব্যবস্থাই নেয়া হয়নি।
মোশাররফ হোসেন আরও বলেন, 'গতকাল (সোমবার) থেকে দেশনেত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য বিএসএমএমইউতে নেয়ার কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু এর আগে তাকে সেখানে নেয়া হলে সেখানকার ব্যবস্থাপনা, পরিবেশ এবং চিকিৎসাসেবার বিষয়ে তিনি অসন্ত্মোষ প্রকাশ করেছিলেন।'
মোশাররফ হোসেন বলেন, খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার বিষয়ে রাজনৈতিক কারণে অবহেলা কিংবা বিলম্ব করা হলে তার পরিণাম সরকারের জন্য শুভ হবে না। দেশবাসী বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন। তারা সরকারের অমানবিক আচরণে ক্ষুব্ধ।
খালেদা জিয়ার চিকিৎসার ব্যয়ভার বিএনপি বহন করবে- এ নিয়ে কোনো আবেদন করেছেন কি না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মোশাররফ হোসেন বলেন, 'আমাদের জানা মতে, খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা এই বিষয়ে আজ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার জন্য সচিবালয়ে গিয়েছেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে পরিবারের সদস্যরা লিখিত আবেদন করবেন, যাতে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ব্যয়ভার দল থেকে বহন করা হবে, তাও আবেদনের মাধ্যমে জানানো হবে।'
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরম্নল ইসলাম খান, আমীর খসরম্ন মাহমুদ চৌধুরী, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রম্নহুল কবির রিজভী প্রমুখ।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
প্রথম পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close