বাড়িতে সৌরবিদ্যুৎ পেল তোফা-তহুরাগাইবান্ধা প্রতিনিধি এসি রুমে দীর্ঘদিন থাকার পর বাড়িতে এসে গরমে ছটফট ও কান্না করছিল আলাদা হওয়া শিশু তোফা-তহুরা। এ কারণে তাদের জন্য বাড়িতে লাগানো হয়েছে সৌরবিদ্যুৎ। সৌরবিদ্যুতের সোলার ফ্যানের বাতাস পেয়ে এখন আর কান্নাকাটি নেই তোফা-তহুরার।
মঙ্গলবার সকালে বেসরকারি সংগঠন ফ্রেন্ডশিপের সহায়তায় সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এসএম গোলাম কিবরিয়া গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের কাশদহ গ্রামের তোফা ও তহুরার নানার বাড়ি সৌরবিদ্যুৎ লাগিয়ে দেন।
এ সময় সুন্দরগঞ্জ প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নুরুন্নবী সরকার, ফ্রেন্ডশিপ সংগঠনের জেলা সমন্বয়কারী আব্দুস সালাম, এসইডি কর্মসূচির ইনচার্জ বিজয় কুমার উপস্থিত ছিলেন।
সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এসএম গোলাম কিবরিয়া জানান, তোফা-তহুরা কোমড়ে জোড়া লাগা অবস্থায় জন্মগ্রহণ করে। গত ১ আগস্ট ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তাদের আলাদা করা হয়। ১ মাস ১০ দিন চিকিৎসা শেষে ১০ সেপ্টেম্বর রাতে তারা তার নানার বাড়িতে ফেরে। কিন্তু সেখানে বিদ্যুৎ না থাকায় গরমে তারা ছটফট ও কান্না করছিল। সোমবার বিকালে জেলা প্রশাসক গৌতম চন্দ্র পাল তাদের দেখতে গিয়ে সৌরবিদ্যুৎ দেয়ার কথা বলেন। জেলা প্রশাসকের নির্দেশে তোফা-তহুরার বাড়িতে সৌর বিদ্যুৎ লাগানো হয়েছে।
ফ্রেন্ডশিপ সংগঠনের জেলা সমন্বয়কারী আব্দুস সালাম জানান, তোফা-তহুরার জন্য বিনামূল্যে তাদের নানার বাড়িতে সৌরবিদ্যুৎ লাগানো হয়েছে। ৫০ ওয়াটের সোলার প্যানেলের সঙ্গে ৩টি বাল্ব ও একটি ফ্যান সরবরাহ করা হয়েছে।
বাড়িতে সোলার প্যানেল লাগানোর পর তোফা-তহুরার মা শাহিদা বেগম বলেন, 'ঢাকা থেকে বাড়িতে আসার পর থেকে গরমে তারা ছাটফট ও কান্না করছিল। এখন বাড়িতে ফ্যানের বাতাস পাওয়ার পর থেকে তাদের শরীরে গরম নেই। এ কারণে তারা এখন হাত-পা নাড়ছেন। সেই সঙ্গে তারা আর কান্নাও করছে না'।
এদিকে, তোফা-তহুরাকে একনজরে দেখার জন্য মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত তাদের বাড়িতে ভিড় জমান পাড়া-প্রতিবেশীরা। অনেকে তোফা-তহুরাকে কোলে নিয়েও দেখছেন।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
প্রথম পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close