একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনলক্ষ্মীপুর-২: প্রবীণের সঙ্গে লড়তে হবে নবীন মনোনয়নপ্রত্যাশীদেরলক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি/রায়পুর সংবাদদাতা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে লক্ষ্মীপুরে সম্ভাব্য প্রার্থীরা কৌশলে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। বিএনপি অধ্যুষিত জেলার এই সংসদীয় আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য ছাড়াও সম্ভাব্য প্রার্থীরা দৌড়ঝাঁপ চালিয়ে যাচ্ছেন। নির্বাচনী এলাকায় চলছে গণসংযোগ, শুভেচ্ছা বিনিময়, গ্রুপিং-লবিং। এই আসনে মনোয়ন পেতে প্রবীণের সঙ্গে লড়াই করতে হবে নবীন প্রত্যাশীদের।
রায়পুর উপজেলা ও সদর উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত লক্ষ্মীপুর-২ আসন। ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন ১৪-দল মনোনীত জাতীয় পার্টির (এরশাদ) বর্তমান জেলা সভাপতি মো. নোমান।
আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া-বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক এমপি হারুনুর রশিদ, জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য-বিষয়ক সম্পাদক ডা. এহসানুল কবির জগলুল, কুয়েতের ব্যবসায়ী শহীদ ইসলাম পাপুল, কেন্দ্রীয় যুবলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য ও আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সম্পাদক শামছুদ্দিন পাটোযারি।
বিএনপি থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা হলেন সাবেক এমপি ও জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল খায়ের ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় বিএনপির আইন-বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও বিএনপি চেয়ারপারসন অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হারুনুর রশিদর (ভিপি) ও কর্নেল (অব.) আবদুল মজিদ।
বিএনপি ও আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট প্রার্থীরা এই আসনে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে আসছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও বড় দুই জোটের প্রার্থীরা এই আসনে নির্বাচনের জন্য তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। বর্তমান এমপির দল জাতীয় পার্টির সংগঠন নিতান্তই দূর্বল হওয়ায় আওয়ামী লীগের ওপরই ভর করতে হচ্ছে মো. নোমানকে। আগামীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪-দলীয় জোটের সঙ্গে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নূরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন বলেন, জেলার সবচেয়ে বড় এলাকা ও বেশি ভোটার নিয়ে গঠিত এই আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে এমন ব্যক্তি হতে হবে, যিনি মাঠে-ময়দানে সব সময় থাকেন। নেতাকর্মীরা যাকে সুখে-দুখে কাছে পান, যারা মাঠে-ময়দানের সমস্যা বুঝেন। আমাকে দলীয় মনোনয়ন দিলে আমি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তবে দল অন্য কাউকে মনোনয়ন দিলেও আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যাব।
সাবেক সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুব ও ক্রীড়া-বিষয়ক সম্পাদক হারুনুর রশিদ বলেন, আমি ১৯৯৬ সালের উপ-র্নিবাচনে এই আসন থেকে নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছি। এ ছাড়া এই আসনটি রায়পুর উপজেলা ছাড়াও লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। আমি এলাকার সার্বিক উন্নয়নে অতীতে কাজ করেছি। বর্তমানে দল তথা জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী ও এলাকার উন্নয়নে নিজেকে নিবেদিত রাখব।
সম্প্রতি এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নের আশায় মাঠে নেমেছেন মারাফি কুয়েতিয়া কোম্পানির মালিক কাজী শহিদুল ইসলাম পাপুল। তিনি বলেন, আমার ব্যক্তিগত কোনো চাওয়া-পাওয়া নেই। আমি নিতে আসিনি, কিছু দিতে এসেছি। জনগণের সেবা করতে চাই। এ ব্যাপারে জনগণের সহযোগিতা চাই, যাতে বৃহত্তর পরিসরে সেবা করতে পারি। আমি নিজস্ব তহবিল এবং সরকারি বরাদ্দ মিলিয়ে এলাকার জন্য বড় কিছু করতে চাই।
জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি আবুল খায়ের ভূঁইয়া বলেন, এই এলাকা বিএনপির ঘাঁটি। ছাত্র রাজনীতি থেকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটিতে দলের দায়িত্ব পালন করেছি। বিএনপির সব আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছি। আমি মনোনয়নের ব্যাপারে আশাবাদী। জোট সরকারের সময় প্রতিটি এলাকার বাড়ি, রাস্তাঘাট, পুল-কালভার্ট, মসজিদ-মন্দির, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন করা হয়েছে। যদি ২০-দলীয় জোট নির্বাচনে যায়, তাহলে ভোটাররা অন্য কাউকে ভোট দেয়ার চিন্তা করবে না।
কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-আইন-বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ছাত্রদল থেকে রাজনীতি করছি। বর্তমানে বিএনপির আইন-বিষয়ক সহ-সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। আগামী নির্বাচনে দল তরুণদের প্রাধান্য দিবে। নেত্রী মনোনয়ন দিলে জয়লাভ করব। এ ছাড়া দল থেকে যাকে মনোনয়ন দিবে, তার জন্য কাজ করব।
কর্নেল (অব.) আবদুল মজিদ বলেন, এই এলাকার মাটি ও মানুষের সঙ্গে আমার নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। এলাকার মানুষ তথা বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে। দেশনেত্রী খালেদা জিয়া ও আমাদের নেতা তারেক রহমান যদি মনে করেন আমাকে দিয়ে এই এলাকার মানুষের সেবা করাবেন, তাহলে আমি এই সুযোগ হাতছাড়া করব না।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
স্বদেশ -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin