আরম্নষি হত্যা মামলা: খালাস তলওয়ার দম্পতিযাযাদি ডেস্ক আরম্নষি তলওয়ারচাঞ্চল্যকর আরম্নষি ও হেমরাজ হত্যাকা-ের মামলায় ভারতের এলাহাবাদ হাইকোর্ট বৃহস্পতিবার খালাস দিয়েছে আরম্নষির বাবা-মা রাজেশ ও নূপুর তলওয়ারকে। তবে হাইকোর্টের এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিমকোর্টে যাচ্ছে সিবিআই। এর আগে এই মামলায় ২০১৩ সালে নিম্ন আদালত তলওয়ার দম্পতিকে যাবজ্জীবন কারাদ- দিয়েছিল। সেই রায়ের বিরম্নদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেছিলেন এই দম্পতি। সংবাদসূত্র : বিবিসি, ইনডিয়া টাইমস, কে-২৪ নিউজ
উলেস্নখ্য, ২০০৮ সালের ১৫ মে গভীর রাতে উত্তরপ্রদেশের নয়ডায় নিজের শোয়ার ঘরে খুন হয় ১৪ বছরের কিশোরী আরম্নষি। তাকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। খুনের পর প্রথমে সন্দেহের তীর ছিল পরিচারক হেমরাজের দিকে। কিন্তু পরদিন ভোর থেকে তাকেই পাওয়া যাচ্ছিল না। দুদিন পর বাড়ির ছাদ থেকে উদ্ধার হয় হেমরাজের রক্তাক্ত দেহ। নয়ডা পুলিশ দাবি করে, আরম্নষি ও হেমরাজকে আপত্তিজনক অবস্থায় দেখে তাদের খুন করেন তলওয়ার দম্পতি। কিন্তু এই দাবির সমর্থনে পুলিশ কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্যপ্রমাণ দিতে পারেনি। এরপরই রহস্য মোড় নেয়। প্রশ্ন ওঠে, আরম্নষির সঙ্গে হেমরাজের অবৈধ সম্পর্ক মেনে নিতে না পেরেই দুজনকে খুন করেছিলেন তলওয়ার দম্পতি? এই হত্যাকা- ঘিরে সারা ভারতে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে।
এলাহাবাদ হাইকোর্টের বিচারপতি বি কে নারায়ণ ও বিচারপতি এ কে মিশ্রের ডিভিশন বেঞ্চ এদিন জানায়, আরম্নষিকে হত্যা করেননি তার বাবা-মা। রাজেশ ও নূপুর তলওয়ারের বিরম্নদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ এদিন খারিজ করে দেয় হাইকোর্ট। অথচ আদালত এদিন আরও জানায়, তলওয়ার দম্পতির বিরম্নদ্ধে প্রত্যক্ষ সাক্ষ্য প্রমাণ মেলেনি।
আরম্নষি হত্যামামলার তদন্ত্মে নেমে সিবিআই জানিয়েছিল এই ঘটনায় তলওয়ার দম্পতি জড়িত। তাদের ভাষ্য বাবা-মা মিলে খুন করেছেন মেয়ে আরম্নষিকে। অথচ এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায়ে বলা হয়েছে, তলওয়ার দম্পতি খুন করেননি তাদের মেয়েকে। তাই প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে আরম্নষি ও পরিচারক হেমরাজকে হত্যা কে করল? এ নিয়ে আবার ভারতজুড়ে আলোচনা চলছে।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close