শৈত্যপ্রবাহে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা যশোরেযশোর প্রতিনিধি টানা দশদিন যাবৎ শৈত্যপ্রবাহে বিপর্যস্ত্ম হয়ে পড়েছে যশোরের জনজীবন। কনকনে শীতে জবুথবু হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষসহ প্রাণিকুল। প্রতিদিনই ৫ থেকে ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকছে তাপমাত্রা। শনিবার সকালেও যশোরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। এদিন সকালে যশোরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। এ নিয়ে এই মৌসুমে তিনদিন দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা যশোরে রেকর্ড করা হলো।
জানুয়ারির শুরম্ন থেকেই যশোরে তাপমাত্রা কমতে থাকে। শুরম্ন হয় শৈত্যপ্রবাহ। শৈত্যপ্রবাহের শুরম্নতেই গত ৫ জানুয়ারি দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয় যশোরে। এরপর তাপমাত্রা কমতে কমতে এই জেলায় ৫ দশমিক ২ ডিগ্রি পর্যন্ত্ম নামে। এরপর তাপমাত্রা সামান্য বাড়লেও গত ১১ জানুয়ারি দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয় যশোরে।
শনিবার সকালেও দেশের সর্বনিম্ন ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে যশোরে। যদিও এদিন সকালে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়াতেও সর্বনিম্ন ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ছিল।
আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্যমতে, খুলনা বিভাগজুড়ে চলা মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ আরও দু-একদিন চলতে পারে।
জানা যায়, গত কয়েক বছর পর এবার পৌষের মাঝামাঝিতে এই অঞ্চলে শৈত্যপ্রবাহ শুরম্ন হয়। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে যশোরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল ৪.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
প্রথম পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close