পূর্ববর্তী সংবাদ
প্রত্যয়ী তিশমাইদানীং তিশমা খুব বেশি ব্যস্ত্মতার মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছেন। তার ভাষ্য, 'কাজের চাপ রয়েছে। এমনিতে কণ্ঠশিল্পীদের জন্য শীতকালটা সবচেয়ে বেশি কনসার্ট করতে হয়। আমি সর্বশেষ থার্টিফার্স্ট নাইটে গেয়েছি গুলশানের একটি ইনডোর কনসার্টে। তার কিছুদিন আগে কলকাতায় একটি কনসার্ট করেছি। তারা আমার গানে খুব মুগ্ধ হয়েছে। তাই সেখানে আবারও গাইতে যাওয়ার প্রস্ত্মাব দিয়েছে। ফেব্রম্নয়ারিতে আবারও কলকাতার ওই কনসার্টে অংশ নেব।'মোস্ত্মফা মন তিশমাজনপ্রিয় পপ সংগীতশিল্পী তিশমা। গত বছর খানিকটা আড়ালেই ছিলেন। তবে নতুন বছর সংগীত ভুবনে সরব হওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন তিনি। তারই ধারাবাহিকতায় গেল থার্টিফার্স্ট নাইটকে কেন্দ্র করে ইউটিউবে প্রকাশ করেছেন তার নতুন মিউজিক ভিডিও 'লাভ ইউ ফরএভার'।
দীর্ঘদিন পর শ্রোতাদের সামনে আসতে পেরে দারম্নণ উচ্ছ্বসিত পপতারকা তিশমা। নতুন বছরে ভক্তদের নতুন মিউজিক ভিডিও উপহার দিয়েছেন তিনি। উপহারটি কীভাবে গ্রহণ করল জানতে চাইলে তিশমা বলেন, 'বছরের শেষ দিনে ইউটিউবে প্রকাশ হয়েছে আমার নতুন একটি মিউজিক ভিডিও। 'লাভ ইউ ফরএভার' শিরোনামের এ মিউজিক ভিডিও প্রকাশ করেছি আমার অফিসিয়াল ওয়েবসাইট িি.িঃরংযসধড়হষরহব.পড়স, ইউটিউব চ্যানেল িি.িুড়ঁঃঁনব.পড়স/ঃরংযসধড়হষরহব এবং ফেসবুক পেইজ িি.িভধপবনড়ড়শ.পড়স/ঃরংযসধ -তে। এ ছাড়া বিভিন্ন টিভি চ্যানেলেও মিউজিক ভিডিওটি প্রচার হয়েছে। গানটি গাওয়ার পাশাপাশি এর কথা, সুর ও সংগীতায়োজন করেছি আমি নিজেই। ভক্তরা ভীষণ উপভোগ করছে গানটি। কেউ গায়কির, কেউ মিউজিকের আবার কেউ কেউ গানের কথার প্রশংসা করেছেন। সবমিলিয়ে দারম্নণ অনুভূতি বলতে পারি।'
'লাভ ইউ ফরএভার' একটি ইংরেজি ভাষার গান। ২০১৫ সালে মুক্তি পাওয়া তিশমার 'মেসমোরাইজড' অ্যালবামে এই গানটি ছিল। এটি সফট মেলোডিয়াস রক ধাচের গান। এ প্রসঙ্গে তিশমা বলেন, 'এ গানটিতে আমি অ্যাকুস্টিক যন্ত্র ব্যবহার করেছি। এই মিউজিক ভিডিওটি তৈরি করেছি গত বছরের গোড়ার দিকে। কিন্তু নানা কারণে তা প্রকাশ করিনি। কিন্তু ভক্তরা আমার কাছে নতুন বছরে নতুন কিছু চাইছিল। তাই তাদের জন্য এটি ইংরেজি নতুন বছরের উপহার হিসেবে তুলে দিয়েছি।'
তিনি আরও জানালেন, 'লাভ ইউ ফরএভার গানটির একটি বাংলা ভার্সনও তৈরি হয়েছে। যার শিরোনাম দিয়েছি 'আলো আলো'। কয়েক মাসের মধ্যে সেই গানটিও প্রকাশ করার ইচ্ছা রয়েছে।'
ইদানীং তিশমা খুব বেশি ব্যস্ত্মতার মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছেন। তার ভাষ্য, 'কাজের চাপ রয়েছে। এমনিতে কণ্ঠশিল্পীদের জন্য শীতকালটা সবচেয়ে বেশি কনসার্ট করতে হয়। আমি সর্বশেষ থার্টিফার্স্ট নাইটে গেয়েছি গুলশানের একটি ইনডোর কনসার্টে। তার কিছুদিন আগে কলকাতায় একটি কনসার্ট করেছি। তারা আমার গানে খুব মুগ্ধ হয়েছে। তাই সেখানে আবারও গাইতে যাওয়ার প্রস্ত্মাব দিয়েছে। ফেব্রম্নয়ারিতে আবারও কলকাতার ওই কনসার্টে অংশ নেব।'
গত মাসে বেশ কিছুদিন অসুস্থ ছিলেন এই গায়িকা। তাই অনেক কাজ জমে গেছে তার। বর্তমানে নিজের অ্যালবামের জন্য নতুন গান তৈরি করছেন তিনি। তবে এখনই তা শেয়ার করতে চান না, চমক হিসাবে রাখতে চান। এরবাইরে টিভির রেকর্ডিং করছেন। টিভি লাইভে গাওয়ার অনেক প্রস্ত্মাব পেলেও বিষয়টি তার পছন্দ নয় বলে এড়িয়ে যান।
এদিকে তিশমার ব্যান্ডের লাইন আপ পরিবর্তন হয়েছে। দু'জন সদস্য বিদেশে চলে গেছে। তিশমা জানালেন, 'যে দুজন বিদেশে চলে গেছে তাদের খুব মিস করছি। তবে এরইমধ্যে নতুনদের নিয়ে প্র্যাকটিস শুরম্ন করেছি, নতুন গানও তোলা হয়েছে।'
একটি গান তৈরি করতে অনেক সময় ও শ্রম দিতে হয় এই গায়িকাকে। কারণ বেশির ভাগ সময় ঘরের বাইরে থাকতে হয় শুটিং আর কনসার্টের জন্য। তাই স্টুডিওতে নতুন গানের জন্য সেভাবে সময় দিতে পারছেন না। আর তিনি যেহেতু গানের কথা, সুর, কম্পোজিশন সব নিজেই করেন তাই সময় বেশি লাগাটাই স্বাভাবিক। এ প্রসঙ্গে তিশমার ভাষ্য, 'অনেক সংগীত পরিচালক কাজ ভাগাভাগি করে নেন। তাদের সহকারী কম্পোজার, আলাদা সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার, কয়েকজন যন্ত্রশিল্পী থাকে। কিন্তু আমি সমস্ত্ম কিছু একাই করি। অবশ্য এ ক্ষেত্রে আমি একটা সুবিধাও পাই। অন্য শিল্পীরা যখন আলাদা সংগীতপরিচালকের সঙ্গে কাজ করেন তখন সবকিছু শিল্পীদের মন মতো হয় না, কিন্তু আমি শতভাগ নিজের মতো করে গানটি করতে পারি।'
একজন মেয়ে শিল্পীর জন্য এই কাজটা কতটা চ্যালেঞ্জের? এমন প্রশ্নের জবাবে তিশমা বলেন, 'পুরম্নষের তুলনায় মেয়েদের জন্য কাজটি করা বেশি কঠিন। বিশেষ করে মেয়েদের স্টেজ পারফরমেন্সে অনেক বিষয় খেয়াল রাখতে হয়। কোন শো করা উচিত, কোনটা উচিত নয়, কি ধরনের প্রেজেন্টেশন করব এসব বিষয় নিয়ে ভাবতে হয়।'
শুধু গানেই সীমাবদ্ধ নয় তিশমার জীবন। লেখাপড়ায় বরাবরই ভীষণ ভালো এই গায়িকা। তিনি ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করেছেন। তবে আরও একটি ডিগ্রি নিতে বিদেশে যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে তার। এ প্রসঙ্গে তিশমা বলেন, 'গান আমার কাছে সবসময় ভালোলাগার বিষয়। এটাকে পেশা হিসাবে নিতে চাই না।' ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে এই গায়িকা বলেন, 'আমি কোনোকিছু দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা করে করতে পারি না। সময় বলে দেয় আমি কি করব। তবে যখন যে কাজটি করি সেটা শতভাগ সৎ থেকে করার চেষ্টা করি।'
উলেস্নখ্য, তিশমার সর্বশেষ অ্যালবাম 'রয়েলিটি' প্রকাশ হয় গত বছর। এটা ছিল তার ১৩ নম্বর একক অ্যালবাম। এ অ্যালবামেরও সবকটি গানের সুর-সংগীত তিনি নিজেই করেছেন। তার সুর-সংগীতে করা প্রথম অ্যালবাম ছিল 'এক্সপেরিমেন্ট'। এটি ২০১১ সালে প্রকাশ হয়েছিল। এ ছাড়া তার জনপ্রিয় হওয়া অ্যালবামের মধ্যে রয়েছে তারা, চাঁদ-সূর্য, বাউলা প্রেম, শ্যাম রাখি না কুল রাখি, মাটির পুতুল, ছলনার দাবা, এক্সপেরিমেন্ট রিলোডেড, হেপনোটাইজড ও মেসমোরাইজড।
 
পূর্ববর্তী সংবাদ
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin