ষাঁড় নয়, যেন ৩০ মণ এক পাহাড়যাযাদি ডেস্ক রাজধানীর মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধ এলাকায় ছয় ফুট উচ্চতার ৩০ মণ ওজনের দীর্ঘদেহী গরু চেয়ারম্যান। এটির মালিক কোরবানির ঈদে ১২ লাখ টাকায় বিক্রি করতে চান _যাযাদিপুরো শরীর তার কুচকুচে কালো। আর বিশাল শরীর যেন এক কালা পাহাড়। ছোট দুটি শিং সৌন্দর্য আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। ছোট হাতির বাচ্চার সঙ্গে তুলনা করলে খুব একটা ভুল হবে না।
বড় গলার ঝুল, মাটি ছুঁই ছুঁই বাহারি লেজ। লেজের শেষ ভাগ, শিং ও কানের কিছু অংশ বাদে সমস্ত শরীর ওর কালচে রঙে মোড়া। লাল-সাদা রশি নাকের ভেতরে। নাক বেয়ে পুরো গলায় জড়ানো হয়েছে রশি। কালো চোখ আর বিশাল কালো শরীর থেকে শৌর্য যেন ঠিকরে বেরোচ্ছে। এককথায় ভয়ঙ্কর সুন্দর। সাহেবিভাবের এই কালো হাতির ন্যায় গরুর নামটিও বেশ গালভরা- 'চেয়ারম্যান'।
মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধের ভাঙা মসজিদের পশ্চিম দিকে অবস্থিত এক গরুর খামার। খামারের নাম 'দ্য হাম্বা ফ্যাক্টরি'। সেখানেই ওর দেখা পাওয়া যায়। 'চেয়ারম্যান' সেখানে তার বিশাল বপু নিয়ে দাঁড়ানো। আজ থেকে চার বছর আগে কুষ্টিয়ায় জন্ম নেয় চেয়ারম্যান। এর পরে নরসিংদী 'দ্য হাম্বা ফ্যাক্টরি' থেকে মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধ শাখায় আনা হয় চেয়ারম্যানকে। চার দাঁতের চেয়ারম্যানের বয়সও চার।
বিশালদেহী চেয়ারম্যানের দৈনিক খাবার লাগে ২৫ কেজি। অল্প বয়সেই হাতির মতো দেখতে হয়েছে এটি। ওর লালনপালন মূলত দ্য হাম্বা ফ্যাক্টারিতেই। বিশালবপু চেয়ারম্যানের ওজন ১ হাজার ২০০ কেজি বা ৩০ মণ। উচ্চতা ছয় ফুটের ওপরে। দৈর্ঘ্যও ১১ ফুট। এর মালিকের আশা, কোরবানির ঈদে একে ১২ লাখ টাকায় বিক্রি করবেন।
দ্য হাম্বা ফ্যাক্টরি সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, প্রতিবার ঘড়ির কাঁটা মেনে খাবার দিতে হয় চেয়ারম্যানকে। একটু নড়চড় হলেই সমস্যা। বেঁকে বসে সে। আদুরে বাচ্চাদের মতো অভিমানী স্বভাবের সে। সকাল ৮টা, বিকাল ৩টা এবং রাত ৮টার সময় পেট পুরে খায় সে। প্রতিদিন ১৫ কেজি গম, ভুট্টা, খেসারির ভুসি খেতে দেয়া হয়। এর বাইরে চেয়ারম্যানকে কাঁচা ঘাস ও ১০ সঙ্গে চিটাগুড়ও থাকে। খাবারের বহর দেখে বলাই যায়, ও এক নাদুস নুদুস পেটুক চূড়ামণি!
তিনবেলা গোসল করানো হয় চেয়ারম্যানকে। সঙ্গে ডেটল, সাবান ও শ্যাম্পু রাখা হয়। গোসলের পরে গা মুছে দিয়ে নারিকেল তেল মাখানো হয়। এর পাশাপাশি ২৪ ঘণ্টা ফ্যান ঘোরে মাথার ওপরে। সব সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা হয় থাকার স্থানটিকে।
দ্য হাম্বা ফ্যাক্টরির পরিচালক কাজী শাহজাদ বলেন, 'অস্ট্রেলিয়ান জাতের ষাঁড় চেয়ারম্যানের বয়স মাত্র চার বছর। এর মধ্যেই সে (চেয়ারম্যান) অনেক বড় হয়েছে। আশা করছি, কোরবানির ঈদের এর দাম ১২ লাখ টাকা হবে। এটাই আমার খামারের সবচে বড় গরু। এমন বড় গরু দেশে হাতে গোনা কয়েকটি হবে। কাঁচা ঘাস, ভুষি, চিটাগুড় ও খড় খাওয়ানো হয় চেয়ার?ম্যানকে। সবসময় ওকে চোখে চোখে রাখা হয়। শরীরের জ্বর মাপা থেকে শুরু করে ডাক্তারও নিয়োজিত ওর জন্য। ও আমাদের বড়ই আদরের।'
তিনি আরও বলেন, 'ব্যবসার পাশাপাশি গরু পালা আমাদের শখ। যাতে করে মানুষ সুস্থ-সবল গরুর মাংস খেতে পারেন সেই বিষয়টি আমাদের ফার্মে নিশ্চিত করা হয়। মানুষের আস্থা অর্জন করে আমরা গরু পালনকে শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে যেতে চাই।'
দ্য হাম্বা ফ্যাক্টরিতে মোট ১২০টি গরু আছে। এগুলোর মধ্যে ষাঁড় ৬০টা, বাকিগুলো গাভী ও বাছুর। বাংলা নিউজ
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
শেষের পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close