ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগটাঙ্গাইল প্রতিনিধি টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে ছাত্রলীগের এক নেতাসহ দুজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধর্ষণের শিকার এক নারী এ ব্যাপারে তাদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছেন।
বুধবার দুপুরে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে ওই নারী এ অভিযোগ করেন, উপজেলার আটিয়া মাজারে মেলায় গিয়ে আটিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সেলিমের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। পরিচয়ের পর থেকে সেলিম ওই নারীকে বিভিন্ন সময়ে কুপ্রস্তাব দেন। স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হওয়ার পর থেকে ওই নারী জেলা শহরের একটি বাসায় একাই থাকতেন। গত ৮ সেপ্টেম্বর সেলিম ও তার বন্ধু শেখ শিপন ওই নারীর বাড়িতে গিয়ে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় ওই নারী চিৎকারের চেষ্টা করলে সেলিম ও শিপন তার হাত-মুখ বেঁধে ফেলেন। পরে সেলিম ওই নারীকে ধর্ষণ করেন এবং তার কথামতো শিপন মুঠোফোনে ধর্ষণের দৃশ্য ভিডিও করেন। চলে যাওয়ার সময় তারা হুমকি দেন, ঘটনাটি কাউকে বললে ধর্ষণের ভিডিওচিত্র ছড়িয়ে দেয়া হবে। ধর্ষণের পর সেলিম একটি চাকু নিয়ে ওই নারীকে ভয় দেখাতে থাকেন। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। তখন নারী হাতে আঘাত পান। পরে তিনি টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।
১০ সেপ্টেম্বর ওই নারী মামলা করতে টাঙ্গাইল সদর থানায় যান। কিন্তু থানা কর্তৃপক্ষ মামলা না নেয়ায় টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অভিযোগ দায়ের করেন। আদালত মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।
এ বিষয়ে আটিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সেলিম মিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ধর্ষণের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ আনা হয়েছে।
ওই নারীর মামলা না নেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সালাউদ্দিন বলেন, এ রকম কোনো অভিযোগ নিয়ে কেউ থানায় আসেনি।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
শেষের পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin