বলিউডস্বাধীনচেতা কঙ্গনাকঙ্গনা রানৌত একের পর এক ভিন্ন স্বাদের ছবি উপহার দিয়ে বলিউডের সবচেয়ে সফল অভিনেত্রীতে পরিণত হয়েছেন। অনেকেই তাকে বলিউডের রানি বলেও সম্বোধন করছেন। আগামীকাল মুক্তি পাবে তার অভিনীত 'সিমরান' ছবিটি।সুমিত দত্ত কঙ্গনা রানৌতবলিউডের ইতিহাসের অন্যতম বাণিজ্যিক সফল ছবি 'দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে' বা 'ডিডিএলজি' ছবিতে শাহরুখ খানের বিপরীতে 'সিমরান' চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন কাজল। ওই ছবিতে অভিনয় করে ব্যাপারটা এমন হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, 'সিমরান' নাম শুনলেই অনেকের মনে কাজলের মুখ ভেসে উঠছে। এবার এ চরিত্রটিতে অভিনয় করছেন বলিউডের কুইন'খ্যাত অভিনেত্রী কঙ্গনা রানৌত। হয়তো অনেকে ভাবছেন, তাহলে বোধহয় 'ডিডিএলজি' ছবিটি রিমেক করা হয়েছে? আর এতে সিমরান চরিত্রে কাজলের পরিবর্তে কঙ্গনা অভিনয় করেছেন? নাহ, ব্যাপারটা ওরকম কিছু নয়। ঘটনা হলো, পরিচালক হানসাল মেহতা 'সিমরান' নামে নতুন একটি ছবি নির্মাণ করেছেন। এর কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন কঙ্গনা। 'রেগুন' ছবির পর হানসাল মেহতার 'সিমরান' ছবিতে নতুন রূপে দেখা যাবে কঙ্গনাকে। ছবিটি আগামীকাল মুক্তি পাবে।
এ ছবিতে কঙ্গনা গুজরাটের এক ডিভোর্সি মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। সে স্বাধীনভাবে চলাফেরা করে। তার একটি নেশা রয়েছে, তা হচ্ছে জুয়া খেলা। সম্প্রতি ছবির ট্রেলার মুক্তি পেয়েছে। এতে কঙ্গনাকে একজন সাহাসী মেয়ের ভূমিকায় দেখা গেছে। আমেরিকার আটলান্টায় ছবিটির অধিকাংশ শুটিং হয়েছে।
বর্তমানে ছবির প্রচারণা নিয়ে দারুণ ব্যস্ত সময় পার করছেন কঙ্গনা। এ ছবিতে তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন সোহম শাহ। এ ছাড়া অন্যান্য চরিত্রে আরও অভিনয় করেছেন এশা তেওয়ারি, অন্বেষা জোশি প্রমুখ।
বলিউডে কঙ্গনাই একমাত্র অভিনেত্রী, যার ছবির সাফল্যের জন্য পুরুষ অভিনেতার খুব একটা গুরুত্ব থাকে না। অভিনয় দক্ষতার জন্য বলিউডের মেগাস্টার অমিতাভ বচ্চন ও সুপারস্টার আমির খানও কঙ্গনার ভক্ত হয়ে গেছেন। আগামীতে বলিউড কিং শাহরুখের বিপরীতের কঙ্গনার অভিনয়ের কথা রয়েছে। বলিউড পাড়ায় আলোচনা চলছে, সঞ্জয় লীলা বানসালির পরবর্তী চলচ্চিত্রে জুটি বাঁধছেন শাহরুখ-কঙ্গনা। এ বিষয়ে কঙ্গনা বলেন, 'সঞ্জয় স্যার শুধু ছবিটি নিয়ে কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন যে, শাহরুখ ও আমাকে নিয়ে তিনি ছবি করতে চান। কিন্তু এটা একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ের কথাবার্তা। সবকিছু ইতিবাচক হলে আমরা সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়টি জানাব।'
কঙ্গনা রানৌত একের পর এক ভিন্ন স্বাদের ছবি উপহার দিয়ে রীতিমতো বলিউডের সবচেয়ে সফল অভিনেত্রীতে পরিণত হয়েছেন। অনেকেই তাকে বলিউডের রানী বলেও সম্বোধন করছেন। তার অভিনীত প্রতিটি ছবিই দারুণ দর্শকপ্রিয়তা অর্জন করেছে। সর্বশেষ তার অভিনীত 'রেঙ্গুন' ছবিটি মুক্তি পেয়েছে। এতে একজন লাস্যময়ী নারীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন কঙ্গনা। তার চরিত্রের নাম মিস জুলিয়া। তিনি নৃত্যে খুবই পারদর্শী। নেচে-গেয়ে ব্রিটিশ সেনাদের মনোরঞ্জন করেন। চলি্লশ দশকের ভারতবর্ষের প্রেক্ষাপটে ছবিটি তৈরি করা হয়েছে। মুক্তির পর ছবিটি ব্যাপক দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে।
বরাবরের মতো সাহসী এবং সোজাসাপ্টা কথা বলার জন্য আলোচিত কঙ্গনা রানৌত। এবার জানালেন, জীবনে কোনো পুরুষকেই তিনি তার জীবন থেকে সরে যাওয়ার জন্য জোর করেননি। আবার কাউকে তার জীবনে আসার জন্যও জোর করেননি। যেসব পুরুষ চলে গেছেন, তারা তাদের নিজের ইচ্ছাতেই সরে গেছেন। তবে কঙ্গনা মনে করেন, যেসব পুরুষ তার জীবনে এসেছিলেন, তারা প্রত্যেকেই ব্যক্তিগত জীবনে তার কাছে নায়ক। আর যারা তাকে ছেড়ে চলে গেছেন, তাদের হয়তো আলাদা করে বলার অনেক গল্প থাকতে পারে। যদিও সেই গল্প নিয়ে মোটেই মাথা ঘামাতে চান না কঙ্গনা। তবে জীবনে তিনি বহুবার প্রতারণার শিকার হয়েছেন, এ কথা অকপটে মেনে নিয়েছেন।
ফেলে আসা অতীতকে নিয়ে আর আক্ষেপ করতে চান না কঙ্গনা রানৌত। জানালেন, জীবনের একপ্রান্ত খারাপ হলে, অন্যপ্রান্তে নিশ্চয়ই ভালো কিছু অপেক্ষা করে। এটাই বাস্তবতা। তাই জীবনে একজন পুরুষ চলে গেলে আক্ষেপ করার কিছু নেই। বরং একজন পুরুষ চলে গেলে তার থেকে ভালো কোনো পুরুষ যে আসার জন্য অপেক্ষা করছে, এ কথা মনেপ্রাণে বিশ্বাস করেন তিনি। তবে সব পুরুষের পক্ষে তাকে ভালোবাসা যে সম্ভব নয়, এ কথাও সাফ জানিয়ে দিলেন। বললেন, 'আমি যে রকম সৎ, তাতে আমার সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করতে অনেকেই স্বচ্ছন্দ অনুভব করবেন না।'
অনেক লড়াই করে বলিউডে নিজের পায়ের তলার জমি শক্ত করেছেন কঙ্গনা। পেয়েছেন জাতীয় পুরস্কারের সম্মানও। জীবন-সংগ্রামের এ লড়াইয়ের পথে অনেক প্রতিবন্ধকতা এসেছে, এ কথা মেনেও নিয়েছেন কঙ্গনা। তবে সব প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে নিজের মতো করে এগিয়ে চলতে চান তিনি। জানান, কাজ দিয়েই অন্যদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতে চান। তবে এ প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার লড়াইয়ে অনেকে বদনাম রটিয়ে ফায়দা লুটতে চায়। সে দলে কখনোই নাম লেখাতে চান না তিনি। মনেপ্রাণে বিশ্বাস করেন, শেষ পর্যন্ত সত্যের জয় হবেই।
শৈশব থেকেই স্বাধীনচেতা মেয়ে কঙ্গনা। তার ছেলেবেলা ভারতের হিমাচল প্রদেশের সুরাজপুর গ্রামে কেটেছে। তার প্রপিতামহ সারজু সিং রানৌত ১৫ বছর মন্ত্রিত্ব করেছেন। মাত্র ১৫ বছর বয়সে কাঙ্গনা জেদের বশে বাড়ী থেকে একাকী মুম্বাইয়ে চলে আসেন। ২০০৬ সালে 'গ্যাংস্টার' ছবির মাধ্যমে বলিউডে পা রাখেন। এ ছবিতে অনাবদ্য অভিনয় করে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছিলেন। এরপর অনেক কাঠ-খড় পুড়িয়ে বলিউডে আজকের অবস্থানে এসেছেন। তাই আপাতত বিয়ে করে, এ অর্জন এবং ব্যক্তি স্বাধীনতাকে খর্ব করতে রাজি নন তিনি। তবে ভবিষ্যতে একজন সৎ ব্যক্তিকেই জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নিতে চান।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close