মাতৃদুগ্ধ বিকল্প ও শিশুখাদ্য আইন লঙ্ঘনে উদ্বেগযাযাদি রিপোর্ট মাতৃদুগ্ধ বিকল্প, শিশুখাদ্য, বাণিজ্যিকভাবে তৈরি করা শিশুর বাড়তি খাদ্য ও ব্যবহারের সরঞ্জামাদি (বিপণন নিয়ন্ত্রণ) আইন ও বিধিমালা লঙ্ঘনের প্রবণতায় উদ্বেগ জানিয়েছেন বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. এএম মুজিবুল হক।
সোমবার সকালে নগরের বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের সম্মেলন কক্ষে এ সম্পর্কিত অবহিতকরণ সভায় তিনি এ উদ্বেগ জানান।
এ ব্যাপারে সংশিস্নষ্ট মা, প্রসূতি, ডাক্তার, সেবিকা, স্বাস্থ্যকর্মী, মাঠকর্মীসহ সাধারণ মানুষের মধ্যে গণসচেতনতা সৃষ্টির ওপর গুরম্নত্বারোপ করেন।
সভায় অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের পরিচালক দীপক চক্রবর্তী, পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের পরিচালক মোহাম্মদ নুরম্নল আলম, আন্দরকিলস্না জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার নাথ, সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী, বাংলাদেশ ব্রেস্টফিডিং ফাউন্ডেশনের বিভাগীয় কর্মকর্তা মো. মাইদুল ইসলাম, সমাজসেবা অধিদপ্তরের বিভাগীয় পরিচালক নাজনিন কে চৌধুরী প্রমুখ। আইন, বিধি ও সাম্প্রতিক পরিস্থিতির ওপর পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন দেন বিবিএফের বিভাগীয় কর্মকর্তা গাজী মো. শাহীন।
গাজী মো. শাহীন বলেন, শুধু শিশুর জীবনরক্ষা ও স্বাস্থ্যঝুঁকি কমাতে অপরিহার্য বিবেচিত হলে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল আইন ২০১০-এর অধীন নিবন্ধিত মেডিকেল চিকিৎসক উপযুক্ত প্রমাণাদির ভিত্তিতে মাতৃদুগ্ধ বিকল্প খাদ্যের ব্যবস্থাপত্র দিতে পারবেন। এক্ষেত্রে শিশুর জন্মের পর মায়ের দুধ খাওয়ার সংযোগ ও অবস্থান ঠিক করে দেয়ার পরও ৭২ ঘণ্টা মায়ের দুধ খেতে না পাওয়া, শিশুর মা মারা গেলে বা অন্য মায়ের দুধ খাওয়ানো সম্ভব না হলে এ ব্যবস্থাপত্র দেয়া যাবে। জন্মের এক ঘণ্টা পর শিশুকে শাল দুধ এবং ছয় মাস পর্যন্ত্ম শুধু মায়ের দুধই খাওয়াতে হবে। ছয় মাসের পর মায়ের দুধের পাশাপাশি ঘরে তৈরি খাবার দিতে হবে। দুই বছর পর্যন্ত্ম শিশুকে মায়ের দুধ খাওয়াতে হবে।
তিনি বলেন, গুঁড়োদুধ, শিশুখাদ্য, বাণিজ্যিকভাবে তৈরি শিশুর বাড়তি খাদ্য বা ব্যবহারের সরঞ্জামের কারণে কোনো শিশু অসুস্থ বা মারা গেলে কোম্পানিকে ১০ বছর কারাদ- বা ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত্ম অর্থদ- অথবা উভয় দ-ে দ-িত হবে। কোনো স্বাস্থ্যপেশাজীবী বা কোনো ব্যক্তি আইন লঙ্ঘন করলে তিন বছর কারাদ- বা ৫ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দ-ে দ-িত হবে।
মোহাম্মদ নুরম্নল আলম বলেন, মাতৃদুগ্ধ বিকল্প ও শিশুখাদ্য আইন সম্পর্কে ধীরে ধীরে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়ছে। এক্ষেত্রে পেশাজীবীদের সহযোগিতা দরকার। সুস্থ মেধাবী জাতি গঠন করতে হলে এ আইনের কঠোর প্রয়োগ জরম্নরি।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close