ভোটের হাওয়া কিশোরগঞ্জ ৬আ'লীগের প্রার্থী পাপন বিএনপিতে শরীফুলসত্যজিৎ দাস ধ্রম্নব ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) সংবাদদাতা আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে কিশোরগঞ্জে-৬ আসন ততই আলোচিত হচ্ছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে। বিশেষ করে বড় দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি থেকে কারা প্রার্থী হবেন তা নিয়েই চলছে আলোচনা।
কিশোরগঞ্জের ছয়টি নির্বাচনী আসনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ-৬ (ভৈরব-কুলিয়ারচর) নির্বাচনী এলাকাটি অন্য আসনের তুলনায় বেশি গুরম্নত্ব বহন করে। কারণ রাজধানী ঢাকার সাথে রয়েছে এখানকার সহজ যোগাযোগ। ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে এ আসনটি জেলার অন্য আসনের তুলনায় এগিয়ে রয়েছে। আগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে এ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীরা এখন থেকেই বিভিন্নভাবে তৎপরতা চালাচ্ছেন। সভা, সমাবেশ, পোস্টারিং, নিজেদের ছবিসহ নানা রঙের ব্যানার ও ফেস্টুন টানানোসহ নানাভাবে নিজেদের প্রার্থিতা জানান দিচ্ছেন তারা।
এ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি ও আওয়ামী লীগ নেতা নাজমুল হাসান পাপন। তিনি এবার নিয়ে দুবার এ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। এলাকায় তার বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। তার পিতা সাবেক রাষ্ট্রপতি মো. জিলস্নুর রহমান এ আসন থেকে ছয়বার সংসদ সদস্য হয়েছেন। তিনি রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর এ আসনটি শূন্য হলে উপনির্বাচনে তারই ছেলে নাজমুল হাসান পাপন প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তী নির্বাচনেও তিনি জয়লাভ করেন। তিনি এলাকায় খুব একটা না এলেও দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করে চলেন। তাছাড়া এলাকায় বিভিন্ন দলীয় ও সামাজিক কর্মকা-েও মাঝে মাঝে অংশ নেন তিনি। এলাকার উন্নয়নেও তার যথেষ্ট ভূমিকা রয়েছে। বিশেষ করে ভৈরব শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ, শিতল পাটি ও কালী নদীর ওপর সেতু নির্মাণ এবং বিভিন্ন সড়ক সংস্কার ও মেরামত, ভৈরব ও কুলিয়ারচর উপজেলায় উপজেলা কমপেস্নক্স ও মুক্তিযোদ্ধা কমপেস্নক্স নির্মাণসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন। তাছাড়া অনেক উন্নয়নমূলক কাজ চলমান রয়েছে। শিক্ষাক্ষেত্রেও ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করেছেন তিনি। আগামীতেও আওয়ামী লীগ থেকে তিনিই প্রার্থী হবেন এটা প্রায় নিশ্চিত বলে শোনা যাচ্ছে। দল তাকে মনোনয়ন দিলে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী তিনি ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তিনি ছাড়াও আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে কুলিয়ারচরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. মুছা মিয়া সিআইপির নাম শোনা যাচ্ছে।
বিএনপি থেকে জেলা বিএনপির সভাপতি শরীফুল আলমই প্রার্থী হবেন, এটাও প্রায় নিশ্চিত বলে তিনিসহ দলীয় নেতাকর্মীরা মনে করেন। তিনি এর আগে বিএনপি থেকে দুবার এ আসন থেকে সংসদ সদস্য পদে নির্বাচন করে পরাজিত হন। তিনি আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে এলাকায় দলীয় ও সামাজিক বিভিন্ন কর্মসূচিসহ নানা কর্মকা-ে অংশ নিচ্ছেন। দলীয় কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে তিনি একাধিক মামলার আসামি হয়েছেন। এ কারণে বেশ কিছুদিন তাকে হাজতবাসও করতে হয়েছে। শরীফুল আলম দীর্ঘদিন ধরেই দলীয় কার্যক্রমে সক্রিয় থাকার পাশাপাশি এলাকার গরিব ও অসহায় মানুষকে বিভিন্নভাবে সহায়তা দিয়ে থাকেন। এলাকায় তিনিও বেশ জনপ্রিয়। দলীয় মনোনয়ন পেলে জয়ের ব্যাপারে অনেকটা আশাবাদী তিনি ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা।
তিনি ছাড়া বিএনপি থেকে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে ভৈরব উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. গিয়াস উদ্দিনের নাম শোনা যাচ্ছে। তিনি এর আগে এ আসনে দুবার বিএনপি থেকে নির্বাচন করে পরাজিত হন। পরে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে বিএনপি থেকে তাকে বহিষ্কার করা হলেও তিনি দলীয় কার্যক্রম থেকে নিবৃত্ত হননি। সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে তিনি নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন স্থানে নানা কর্মসূচি পালন করে যাচ্ছেন।
জাতীয় পার্টি থেকে এ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থী ভৈরব উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আব্দুস সালাম এবং বাম দলের মধ্যে বাসদ থেকে এ আসনে জুনায়েদুল ইসলামের নাম শোনা যাচ্ছে।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
শেষের পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close