বৈশাখরবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হে ভৈরব, হে রুদ্র বৈশাখ,
ধুলায় ধূসর রুক্ষ উড্ডীন পিঙ্গল জটাজাল,
তপঃক্লিষ্ট তপ্ত তনু, মুখে তুলি বিষাণ ভয়াল
কারে দাও ডাক_
হে ভৈরব, হে রুদ্র বৈশাখ।

ছায়ামূর্তি যত অনুচর
দগ্ধতাম্র দিগন্তের কোন্ ছিদ্র হতে ছুটে আসে!
কী ভীষ্ম অদৃশ্য নৃত্যে মাতি উঠে মধ্যাহ্ন-আকাশে
নিঃশব্দ প্রখর_
ছায়ামূর্তি তব অনুচর

মত্তশ্রমে শ্বসিছে... বিস্তারিত
বাংলা নববর্ষ : কালে কালেএই যে বৈশাখ, আমাদের জাতীয় জীবনের এক মহাগৌরবের দিন, এর তো একটা ইতিহাস আছে। গায়ের রঙ কারো কালো, কারো ফর্সা। কারো কালো-ফর্সা মিলিয়ে শ্যামলা রঙ। বেশ বোঝা যায় আমরা সংকর জাতি। 'নিগ্রোবটে'র সঙ্গে অস্ট্রিক বা মোঙ্গলীয় মিলে যে রক্ত তাকে অনার্য বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে ইতিহাসে। বাঙ্গাল (বঙ্গ+আল=বঙ্গাল, বাঙ্গাল) এই অনার্যের রক্ত নিয়ে গড়ে উঠেছিল প্রাচীন সভ্যতা_ মহেঞ্জোদারো এবং হরপ্পার অনুকরণে। ফারাক্কা ব্যারাজ দিতে গিয়ে তার প্রমাণ মিলেছে।ড. আনোয়ারুল করীম সময়টা ইংরেজি ১৯৪৩ থেকে ১৯৪৭ সাল। আব্বার চাকরির সুবাদে আমরা তখন যশোর জেলার অধীন ঝিনাইদহ মহকুমা শহরে (ঝিনাইদহ বর্তমানে জেলা)। চৈত্র মাসের শেষ দিনে সেখানে নিম্নবর্ণের হিন্দুরা চড়কপূজার আয়োজন করত। শিব ছিলেন এই পূজার প্রধান দেবতা। চৈত্রের শেষ দিনকে চৈত্রসংক্রান্তি বলা হয়। এদিন শহরতলিতে আড়ং হতো। আড়ঙে নানা খাবার-দাবার, পিঠা এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য পাওয়া যেত।
দুপুরের পর থেকে সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত আড়ং হতো। রাস্তা... বিস্তারিত
নববর্ষ-উৎসব : রূপ-রূপান্তরনববর্ষ-উৎসবকে রাজনৈতিক চারিত্র্যদানের ক্ষেত্রে সাংস্কৃতিক সংগঠন ছায়ানট পালন করে ঐতিহাসিক ভূমিকা। নববর্ষ উপলক্ষে রমনার বটমূলে ছায়ানটের অনুষ্ঠান আমাদের নববর্ষ-উৎসবকে নতুন মাত্রায় অভিষিক্ত করে। ক্রমে ওই আয়োজনের উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ে সারা বাংলাদেশের গ্রামে-গঞ্জে। এদিন দেখা দেয় মিলিত বাঙালির সঙ্গচেতনার শক্তি।বিশ্বজিৎ ঘোষ বার মাসে তের পার্বণের দেশ আমাদের এই জন্মভূমি। কথায় বলে, বাঙালি আমুদে জাতি, উৎসবপ্রিয় জাতি। উৎসব পেলে অন্য সবকিছু ভুলে থাকতে পারে বাঙালি। তবে লক্ষ্য করলেই দেখা যাবে, এত উৎসবের ভিড়েও ধর্মনিরপেক্ষ মিলিত বাঙালির উৎসবের সংখ্যা খুব বেশি নয়। কয়টা উৎসব আছে আমাদের, যেখানে সবাই একনিষ্ঠভাবে অংশগ্রহণ করতে পারে, ধর্মীয় ও সামাজিক দেয়ালের ঊধর্ে্ব উঠে নিষ্ঠভাবে পালন করতে পারে প্রকৃত অংশগ্রহণকারীর ভূমিকা। সবার অংশগ্রহণে মিলিত... বিস্তারিত
সারাদিননূরুল করিম নাসিম শাহবাগ চত্বরে ভিড় নেই। রিকশাটা কাঁটাবন মসজিদের গা ঘেঁষে এগিয়ে গেল পশু-পাখির দোকানের কাছে। নন্দিতা চিৎকার করে বলে উঠল, আমার গ্লাডিয়েটর। পাশে বসে থাকা সাবের ঠিক বুঝে উঠতে পারল না। রিকশাটি ততক্ষণে থামিয়ে দিয়েছে নন্দিতা। বলল, রক্তলাল গ্লাডিয়েটর একটা নিয়ে এসো। সাবের, এই যে, ওই দোকানটি থেকে। সাবের রিকশা থেকে নামল। রাত দশটা পেরিয়ে গেছে। নন্দিতা কাঁটাবন কর্মজীবী হোস্টেলে যাবে। লাল গ্লাডিয়েটর পেয়ে শিশুর মতো... বিস্তারিত
নববর্ষ উদযাপনে গ্রোটোস্কিরনির্ধন ও গবেষণাগার নাট্যের রূপরেখামধ্যযুগের ইডিয়ট যে অজানাতে আলো ও অাঁধারের নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা রাখে। এখানে অভিনেতা অনিচ্ছুক শিকার। তাকে সবাই সেভিয়ার বলে নির্বাচিত করে থাকে। তাদের স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য সে ধীরে ধীরে তার ভূমিকায় নিবিষ্ট হবে এবং অসহায়ভাবে ধ্বংসের দিকে এগিয়ে যেতে বাধ্য হয়। তার যন্ত্রণার মধ্যে আনন্দ ও ক্রোধ তাকে স্বীকার করার প্রবৃত্তির সৃষ্টি করে।ড. মো. মুস্তাফিজুর রহমান মধ্যযুগে মোগল সম্রাট আকবর ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১০ অথবা ১১ মার্চ 'বাংলা সন' প্রবর্তন করেন। এর পর থেকে বাংলা নববর্ষ ও পহেলা বৈশাখ বাংলাদেশের লোকসংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ বলে প্রতিভাত হয়েছে। বিশেষত বৈশাখী মেলায় পান্তাভাতে ইলিশ মাছ, কাঁচা মরিচ ও পেঁয়াজ দিয়ে খাবার খাওয়া এবং নতুন পোশাক পরিধান করে ঘুরে বেড়ানো, এটি একটি উৎসবে পরিণত হয়েছে। এ উৎসবে লোকগান, গাজির গান, গম্ভীরা, কবিগান, লোকনৃত্য, লোকনাট্য ইত্যাদি পরিবেশিত... বিস্তারিত
হালখাতা ও ময়মনসিংহের কিচ্ছা গানআমিনুর রহমান সুলতান বাংলা নববর্ষের সঙ্গে হালখাতার আনুষ্ঠানিকতা সম্পৃক্ত। অসম্প্রদায়িক উৎসবের মধ্যে প্রাণের এবং বাঙালির মহামিলনের উৎসব বাংলা নববর্ষ। বাংলাদেশ কৃষিভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থায় গড়ে ওঠা দেশ ছিল। ফলে গোটা বাংলাদেশটাই গ্রামজীবন ও সংস্কৃতিভিত্তিক পরিচালিত হতো। গ্রামীণ সমাজ ও সংস্কৃতি লোকসংস্কৃতি ধারা বিকশিত ছিল। বাংলা নববর্ষের বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠানের লোকসংস্কৃতির প্রভাব এ কারণেই দারুণভাবে প্রতিফলিত। বাঙালি হিন্দু-মুসলমান-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান সবারই মিলনক্ষেত্র ছিল নববর্ষকে কেন্দ্র করে লোক-অনুষ্ঠানমালায়। এখনো তার ব্যতিক্রম নয়। হালখাতা লোক-আচার-অনুষ্ঠানের... বিস্তারিত
জলভরা মেঘ চাই যখন খরায়রফিক আজাদ সবকিছু ডুবে যাক আজ : চেতনা, চিত্রিত নদী,
গৃহস্থের ঘরদোর, ফসলের ক্ষেত, গাছপালা,
ধানী মরিচের টাল, মননের নিধুয়া পাথার...
নদীনালা ব্যেপে চাই আজ অথৈ জলের বিস্তার,
জল চাই জীবনে-যৌবনে_জীবনকে ঘিরে চাই
পরিব্যাপ্ত স্থির জলরাশি_
জল-থৈ-থৈ সি্নগ্ধ শাপলা-শালুকে ভরা
দীঘিটিও চাই;
প্লাবনেও ক্ষতি নেই;
ফসলবিনাশী জল
জানি একদিন খুব ক'রে
আমাদের ক্ষেতে-ক্ষেতে ফসল ফলাবে;
... বিস্তারিত
আর কেহ নয় [কবি বুলবুল খান মাহবুব শ্রদ্ধাভাজনেষু ]মাকিদ হায়দার ইচ্ছা থাকিলেই উপায় হয়, কথাটি সর্বৈব মিথ্যা।
আমার ইচ্ছা থাকিতে থাকিতেই, একদিন ইচ্ছা হইলো,
রাজপুত্র হইবো, রাজপুত্র হইলে
রাজকন্যা পাইবো, পাইবো রাজত্ব।
সেদিন রাজবাড়ীর নিকটস্থ হইতেই পাইক, বরকন্দাজ
আসিয়া আমাকে
হাতির মাহুত বানাইয়া দিয়া,
কানে কানে বলিলেন,
হস্তিপৃষ্ঠে রাজকন্যা থাকাবস্থায় কক্ষনোই
তাহাকে দেখিবার চেষ্টা করিও না,
রাজকন্যা যদি ঘুণাক্ষরে বুঝিতে পারেন
তাহা হইলে তোমার... বিস্তারিত
পাথরের ফুলফওজিয়া হুদা পাথরের ফুল হাত থেকে পড়ে গেছে সেই কবে-
জীর্ণ স্মৃতি ধুলোয় ঘূর্ণি তুলে সেই কথা বলে
খুব চেনা ওই চোখ
হৃদয়ের দূরত্ব মেপে হয়ে গেছে পর
ঝাপসা হয়ে উঁকি দেয় আজ মনে
ভুল কুড়োনোর পথ ছেয়ে গেছে আগাছায়
পায়ের ছাপটি আজও একা হাঁটে-
দূরে কে যেন ডাকে
গোপনে বলে যাওয়া তোমার
সেই কথাটি মত।... বিস্তারিত
পহেলা বৈশাখ [জয়নুলের ক্যানভাস]রেজাউদ্দিন স্টালিন তলিয়ে গেছে জীবনযাপন ক্রুর কষ্টের পাঁকে,
মিনতরের গোলক ধাঁধা লোভ দেখিয়ে ডাকে।

সাধু-সন্ত সংসারী হয় অন্যরা যায় বনে,
নিজের বুকের আগুন খেয়ে কবিরা গন্গনে।

ক্ষোভ রয়েছে দ্রোহ আছে আর্তি অনিঃশেষ,
প্রাপ্তিবিহীন প্রেমের সাথে শর্তের সংশ্লেষ।

মুঠো ফোনের মন্ত্রবলে মানুষ এখন ভেড়া,
গণতন্ত্র মূর্ছা গেছে উত্থিত সংঘেরা;

সংঘ এখন খুদকুঁড়ো... বিস্তারিত
বাউল বাতাসমিলন সব্যসাচী ঘোলাজলের উষ্ণতরঙ্গে ভাসাতে চেয়ে প্রমোদতরী
স্রোতের শ্যাওলা হয়ে ভাসে আর ডোবে অশ্রুগঙ্গা
অর্ধজীবনে উজান-ভাটির খেলা বড় বেশি বেদনাবিধুর!

ফাগুনের আগুনে বিদগ্ধ প্রেম-ভালোবাসার দুঃখস্মৃতি
বুকের বাগানে ক্রমাগত মেতে উঠেছে ধ্বংসযজ্ঞের খেলায়
বিষণ্ন বসন্তের হাত ধরে অবেলা কে যায় মথুরা-বৃন্দাবন?

বনজ্যোৎস্নায় সিক্ত মাধুবীরাতের আকাশে আধখানা চাঁদ
বিনিদ্র রাতে কাত হয়ে শুয়ে থাকে সঙ্গীহীন শয্যা
বিরহী... বিস্তারিত
একটি অপেক্ষার সমাপ্তির জন্যকাজী মোহিনী ইসলাম উপলব্ধির স্মারক হাতে দাঁড়িয়েছি আজ বোধের আঙিনায়
আত্ম বিবর্তনে ফুটেছে বুকে অবারিত সম্ভাবনার ফুল
শতাব্দীর স্রোতের ভেতর জেগে ওঠে আসন্ন নদী
বিকেলের সাদা রৌদ্রের উৎসারে উড়ে যায় যত
স্তব্ধতার অন্ধকার!
দমকা হাওয়ার মত হঠাৎ আগমনী গানে
ছন্দ বিদ্যুৎ খেলে যায় ত্রিপাঠী মগজ-মনময়
যত দূরে যাবে ওরা-যাবো কষ্টের অধীনতা ভেঙে
লক্ষ্যস্পর্শী অন্তঃপ্রবাহে শাশ্বত সুন্দর ও ধ্রুবের সাধনায়।... বিস্তারিত
 
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close