কবিতায় নজরুল'ভাঙার গান', 'বিষের বাঁশি', 'ফণি-মনসা', 'সর্বহারা', 'প্রলয় শিখা', 'সন্ধ্যা' প্রভৃতি কাব্যে নজরুলের আরেকটি বিশিষ্ট রূপ দেখা যায়। এখানে কাব্যলক্ষ্মী হলেন সম্পূর্ণ নিরাভরণা। আত্মপ্রকাশের ও মানবহৃদয়ের সঙ্গে আত্মস্থ হওয়ার প্রবল সাড়া তার মধ্যে জেগে উঠল। কাব্যের ভেতর তার সেই মূর্তি প্রকাশ পেয়েছে। দেশে অবিচার, দারিদ্র্যের ও নিপীড়িতের প্রতি ধনিক শ্রেণির অত্যাচার তাকে আর শান্তিতে থাকতে দিচ্ছিল না। তাই সব বাধা-বন্ধন ছিন্ন করে তিনি সাধারণের সঙ্গে মিশে যাওয়ার তাগিদ অনুভব করেছেন। 'ভাঙার' গানে তিনি বলেছেন_ 'কারার ঐ লৌহ কপাট/ভেঙে ফেল করলে লোপাট/রক্ত জমাট/শিকল-পূজার পাষাণ-বেদী।'মোবারক হোসেন খান রবি-কবির আলোয় বাংলার সাহিত্যাকাশ যখন উদ্ভাসিত, তার গগনস্পর্শী প্রতিভায় যখন আর আর কবির স্বকীয়তা বিলুপ্ত, তখন নজরুল ইসলামের আবির্ভাব এবং বিপুল প্রতিষ্ঠা সত্যই বিস্ময়ের ব্যাপার? নজরুল ধূমকেতুর মতো প্রজ্বলিত হয়ে তার আলোক কিরণে যেন বাংলা সাহিত্যকে উদ্ভাসিত করে দিলেন। ধূমকেতুর মতো স্বল্পপরিসর সাহিত্যিক জীবনে তিনি যা সৃষ্টি করলেন, তা-ই বাংলা সাহিত্যে তার স্থান সুপ্রতিষ্ঠিত করেছে। তার সাহিত্য সমসাময়িক যুগের প্রতিচ্ছবি। তিনি জীবনের এবং মানবেরই জয়গান... বিস্তারিত
নজরুলের দ্রোহের চমক এবং অসাম্প্রদায়িক চেতনাভারতবর্ষের দুুটি প্রধান ধর্মের অনুসারী হিন্দু ও মুসলমানের মধ্যে ঐক্য প্রতিষ্ঠার মহান চেতনা ধারণ করেছিলেন নজরুল। এ দুটি সম্প্রদায়ের মধ্যকার বিভেদ ঘোচাতে লেখালেখির মাধ্যমে প্রাণপণ চেষ্টা করেছেন তিনি। গেয়েছেন মিলনের মহামন্ত্র : 'মোরা একই বৃন্তে দু'টি কুসুম হিন্দু-মুসলমান'। উভয় সম্প্রদায়ের মধ্যকার অশুভ মানসিকতার ধারক, কূটবুদ্ধির নায়কদের হীনমানসিকতার তীব্র সমালোচনা করে সে ব্যাপারে সবাইকে হুশিয়ার করে দিয়েছেন : 'হিন্দু না ওরা মুসলিম ঐ জিজ্ঞাসে কোনজন/কা-ারী বল মরিছে মানুষ সন্তান মোর মার'।হোসেন মাহমুদ দ্রোহের চমক ও সঙ্গীতের সুরে বাঙালিকে বিস্ময়-বিমুগ্ধ করে বাংলা সাহিত্যে নিজের স্থান করে নেন কাজী নজরুল ইসলাম। ১৮৯৯ সালের ২৪ মে ( ১১ জ্যৈষ্ঠ, ১৩০৬) পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার এক শরীফ অথচ অতি দরিদ্র পরিবারে তার জন্ম। অতি সাধারণ গ্রামীণ পরিবেশে তার বেড়ে ওঠা। শৈশবে স্বপ্নময় কোনো পৃথিবী তাকে হাতছানি দিয়ে ডেকেছিল কি না তা জানা যায় না। প্রকৃতির কোলে স্বাভাবিক নিয়মেই বেড়ে উঠেছিলেন তিনি। সেখানে... বিস্তারিত
প্রমীলা নজরুলএকজন নারী, নারীত্বের অহঙ্কারমেসে আসার পর কবি এবং তার স্ত্রীর অসুস্থতা আমাকে ভীষণভাবে পীড়া দিতে লাগল। এত বড় কবি, তার এ অবস্থা! কিছুতেই আমি মেনে নিতে পারছিলাম না। প্রমীলা নজরুলকে দেখে আমি আরো অবাক হলাম। পাশাপাশি দুজন মানুষ। দুজন বড় মানুষ। আমার মনে হতো তাদের মাথা আকাশে ছুঁয়ে আছে। আর কষ্ট হতো এই ভেবে যে, তারা দুজনই অসুস্থ। নজরুল বাকশক্তিহীন প্রায় উন্মাদ, আর প্রমীলা চলৎশক্তিহীন। প্রমীলা নজরুলের নিশ্চল শরীরে যে গতি এবং কর্তব্যবোধ আমি দেখেছি তাতে তাকে নারীত্বের অহঙ্কার এবং মহীয়সী রমণী হিসেবে আখ্যায়িত করা যায়।আসাদুল হক কবি নজরুলকে প্রথম দেখার পর থেকে আমি কেমন যেন মোহাবিষ্ট হলাম, তার প্রতি আমার একটা অদৃশ্য টান অনুভব করতে থাকলাম। ঠিক বুঝতে পারছিলাম না এর কারণ। কিন্তু কোনো অবস্থাতেই আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে পারছিলাম না। হঠাৎ একদিন সংবাদ পেলাম নজরুল ফিরে এসেছেন। তার চিকিৎসা হয়নি। স্টেশনে একঝলক দেখার পর কবিকে আরো নিবিড়ভাবে দেখার জন্য আমার ভেতরটা উসখুস করছিল। তাই একদিন মেসের পাঁচ-ছয় জন বন্ধু মিলে কবির... বিস্তারিত
শোষণমুক্ত সুন্দর পৃথিবীর প্রত্যাশাই ছিল নজরুলেরমুস্তাক মুহাম্মদইতিহাস থেকে দেখা যায় সমাজে যখন অন্যায়, অত্যাচার, অবিচার, দুর্নীতি ছেয়ে যায়_ যা থেকে বাঁচার উপায় পেতে মানুষ দিশাহারা তখন কবি-সাহিত্যিকরা এগিয়ে এসেছেন। বাংলা সাহিত্যাঙ্গনে তেমনি ধূমকেতুর মতো আবির্ভাব হয়েছিল সব অন্যায়-পীড়ন-অত্যাচার-দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিদ্রোহকারী কাজী নজরুল ইসলামের। তিনি বিদ্রোহ করেছেন সত্য-সুন্দর-প্রেম-প্রীতিময় একটি স্বর্গীয় পৃথিবী উপহার দেয়ার জন্য।
কাজী নজরুল ইসলামের বয়স যখন ২৩ তখন তিনি যৌবনের এক শক্তিশালী বিস্ফোরণ ঘটালেন, 'বিদ্রোহী' কবিতা লিখে।... বিস্তারিত
 
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close