ভাষাসংগ্রাম ও বাংলার জনগণমাতৃভাষাকে শ্রদ্ধা করুন তবেই সার্থক হবে শহীদদের রক্তদান। স্বার্থবাদিতা ভুলে অর্থলোভকে দূরে সরিয়ে সাংস্কৃতিক নিজস্বতা পুনঃপ্রবর্তন করতে পারলেই বোধহয় আমরা এ বৈরী পরিবেশ থেকে বাংলার ভাষা সাহিত্য ও সংস্কৃতিকে রক্ষা করতে পারব এবং এই বাংলার গর্বিত উত্তরাধিকারী হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারব।কামাল লোহানী শতাব্দী-প্রাচীন ইতিহাস বাঙালির। ভাষা আর সংস্কৃতি তারই সঙ্গে চর্চিত শ্রদ্ধাভরে। চর্যাপদ থেকে আধুনিক বাংলার সাহিত্য এক গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায়। কিছু নতুন অধ্যায় রচিত হয়েছিল ১৯৫২ সালে। ঊনবিংশ শতকের প্রথম পর্যায়েই কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার জিতে বাংলা ভাষার সাহিত্য-গৌরব বিশ্বময় ছড়িয়ে দিয়েছিলেন। ব্রিটিশ বেনিয়া শাসনকালে যেটুকু গৌরব নিয়ে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য-সাধনার ইতিহাস অব্যাহত ছিল, তার পরিসমাপ্তি টানতে চেয়েছিল ধর্মের ভিত্তিতে এবং ব্রিটিশ বণিকের মানদ-ে... বিস্তারিত
বাংলা বাঙালি স্বদেশমুস্তাফা নূরউল ইসলাম স্বদেশ সূত্রে, বংশধারা সূত্রে, মাতৃভাষার সূত্রে, সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের উত্তরাধিকার সূত্রে আমাদের পিতৃপুরুষ যে হাজার বছরের বাংলার সন্তান, এ পবিত্র বিশ্বাসটি মধ্যযুগ কালাবধিই মূল সম্পৃক্ত হতে দেয়া হয়নি। সমাজ-অবস্থানে উচ্চ শ্রেণির মানুষ এবং মোল্লা নামধারী গোঁড়ারা বারবার প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করেছেন উৎসে প্রত্যাবর্তনের উদ্যোগের পথে। এ সবকিছুই করা হতো ওই পবিত্র ধর্মের নামে। আর আমাদের জানা রয়েছে, কৃষিনির্ভর বাংলার সর্বস্বরিক্ত, সর্বপ্রকারেরই অসহায় মানুষের কাছে পারলৌকিক প্রাপ্তির আবেদন... বিস্তারিত
ভাষা আন্দোলনে ভাষার গানসঙ্গীত একুশের চেতনা। সে চেতনাই গানের উৎস। একুশ আর সঙ্গীত একে-অন্যের পরিপূরক। একুশ ভাষা আন্দোলনের রক্তিম স্বাক্ষর। একুশ মাতৃভাষার প্রতীক। একুশ বাঙালি জাতির জীবনের চেতনা। একুশ বাংলাদেশের স্বাধীনতা। ভাষার জন্য আত্মাহুতি বিশ্বের এক বিরল ইতিহাস। একুশ জীবনের অর্থ খুঁজে পাওয়ার দিন।মোবারক হোসেন খান একুশ আমাকে বারবার 'আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো'র কথা মনে করিয়ে দেয়। একুশ আমাকে 'রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই' দুর্বার আন্দোলনের কথা মনে করিয়ে দেয়। একুশ আমাকে 'বায়ান্ন'র কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। মায়ের মুখের ভাষা কেড়ে নেয়ার ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে প্রাণ হারাল সালাম, বরকত, রফিকের মতো বীর ভাষাসৈনিকরা। ঢাকার পিচঢালা পথ শহীদের রক্তে রঞ্জিত হলো। কিন্তু বাঙালি জাতি সব প্রতিবন্ধকতাকে দলে-মুচড়ে দাবি আদায়ের লক্ষ্যে সোচ্চার কণ্ঠে সমস্বরে... বিস্তারিত
একুশের মাসবাংলা ভাষা সম্পর্কে কত যে কথা!প্রকৃতপক্ষে সর্বজনগৃহীত ভাষারীতির প্রসঙ্গে বলতে চাই_ বাংলাদেশে এখন পাঠ্যপুস্তক এবং সাহিত্য রচনার জন্য প্রমিত রীতিই সর্বজনগ্রাহ্য ভাষা। সবরকম আনুষ্ঠানিক পরিস্থিতি যেমন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠদান; রেডিও-টেলিভিশনে সংবাদ পাঠ; গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা অনুষ্ঠান; উপস্থাপনা, ঘোষণা, ইত্যাদির ভাষাও হওয়া উচিত প্রমিত রীতির। ঘাটতিটা এসব ক্ষেত্রে দুঃখজনক রকম। উচ্চারণত্রুটি অতি মারাত্মক কোথাও কোথাও।বেগম জাহান আরা বাংলা ভাষা আন্দোলনের এবার ৬২ বছর পেরিয়ে গেল। প্রৌঢ়কাল। এখনো ভাষা আন্দোলনের গূঢ় দর্শন বুঝতে পারিনি আমরা। পত্রপত্রিকায় বেশ লেখালেখি হয় এ মাসে। যে কটা পত্রিকা রাখি, তাতে যতগুলো লেখা প্রকাশিত হয় তা পড়ি। বিশেষ করে পত্রিকার প্রথম পৃষ্ঠার বাম পাশে বাণীর মতো সংক্ষিপ্ত যে লেখাগুলো প্রকাশিত হয়, তা পড়ি নিবিড় মনোযোগ দিয়ে। মোটামুটি নেতিবাচক হাপিত্তেশ দিয়ে শুরু হয় যে এ পর্যন্ত বাংলা ভাষা নিয়ে... বিস্তারিত
ভাষাপ্রেম ভাষাবিকৃতি ও বইমেলাতারাপদ আচার্য্য আজ অমর ২১ ফেব্রুয়ারি। মহান ভাষা আন্দোলনের গৌরবময় ৬২ বছর। '৫২ সালের এই দিনে সালাম, বরকত, রফিক, শফিক, জব্বার যে ভাষাটির জন্য নিজের রক্ত দিয়ে রাজপথ লাল করেছেন তার নাম বাংলা। মাতৃভাষা, আমাদের প্রিয় ভাষা। আবহমানকাল থেকে নানা বর্ণ, জাতি ঢেউয়ের মতো এসে আছড়ে পড়েছে এ উপমহাদেশের অববাহিকায়। তারা আধিপত্য বিস্তারও করেছে। সে হিসেবে ভেবে দেখলে বাঙালি শংকর জাতি, একইভাবে এ ভাষাও শংকর ভাষা। বায়ান্নর... বিস্তারিত
গল্পফিরিবার পথ নাহিজুবাইদা গুলশান আরা বিকেলটা ভারী সুন্দর। বইমেলার মধ্যে হাজারখানেক পুষ্পপ্রেমিক মানুষের পায়ে চলার মধ্যে কেবল সুরভিত আনন্দের স্রোত। একদিকে বুক স্টলগুলো লেখক পাঠকদের ভিড়ে জমজমাট, অন্যদিকে ঘনায়মান বিকেলে একটা কুয়াশার আস্তরণ তৈরি হয়েছে। অবাক কা-! স্টলগুলোয় ক্রেতা, বিক্রেতার কথার ঝলমলে আয়োজনকে গ্রাহ্য না করে দুটো কোকিল সমানে ডেকে যাচ্ছে। ভারী উতলা হয়ে কী এক আনন্দে সাথীকে ডাক দিয়ে চলেছে পাখিরা। রাস্না আর মনজুর দুজনেই এখানে অনেকক্ষণ ধরে বেড়াচ্ছে।... বিস্তারিত
আমিও রেখে যাবনাহার ফরিদ খান আমিও জমা দেব আকাশের কাছে সকল দুঃখের চিঠি
যেমন আকাশ জমা রাখে দুঃখী শ্রাবণের জল
আমিও ভাসিয়ে দেব সমুদ্রের মাঝে অব্যক্ত যন্ত্রণাগুলো
যেমন ঢেউয়ের আর্তনাদ সমুদ্র ধারণ করে রাখে।
আমিও রাখব জমা পাহাড়ের প্রতিটি পরতে পুঞ্জীভূত বেদনার নোট
যেমন পাহাড় বন্ধক রাখে মাটির প্রণয়-ব্যথা।
আমিও ছড়িয়ে দেব বাতাসের কানে কানে মঙ্গল বারতা
যেমন বাতাস বয়ে যায় মানবের মঙ্গলতায়... বিস্তারিত
শতভিষামিজান রহমান শতভিষা খুলে ফেল অঙ্গাবরণ
জ্যোতির কথাহার
আর উন্মোচিত কর
প্রাত্যহিকতায় ধ্বস্ত বিমূঢ় শরীর ভাষ্য
দীর্ঘশ্বাসের দীর্ঘ অনুপ্রাস

আমি রেখে যাই
ক্যাকটাস কাঁটায় বিদ্ধ
প্রজাপতির করুণ কাতরতা
একমুঠি ধূলি সামান্য বীজ
প্রলম্বিত আকাশ
মৃত্তিকায় প্রগাঢ় পদছাপ... বিস্তারিত
শৈশবের সবুজ মগ্নতায়রওশন মতিন শৈশবে দু'চোখের মগ্নতায় সবুজ স্বপ্ন ছিল
যাযাবর মন ফেরার আমার গন্তব্যে ফেরা হলো না আর।

এই সব দিন রাত্রি, আলো-ছায়ার পালাবদলের মানচিত্রে
সেই মেঠোপথ কষ্টের নোনাজলে কলমির হাসি
শৈশবের উঠানে সজল মেঘের ভিজে চোখ ডেকে যায়,

পথ কি মনে রাখে কারো প্রেম-পরিচয় অথবা স্মৃতিচিহ্ন,
বহমান সুখ দুঃখের পাঁচালি অথবা জীবনমৃত্যুর উপাখ্যান।

ঘুমহীন... বিস্তারিত
জীবনতৃষ্ণামহাদেব সাহা বহুক্রোশ হাঁটা পথিকের মতো আর জাগে না
জলের তৃষ্ণা,
মাঝে মাঝে শুধু একটু গলা ভেজানোর ইচ্ছা হয়;
কিন্তু তখন কী সে তৃষ্ণা, ইচ্ছা করে শুষে নিই
গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র, কুশিয়ারা
অাঁজলা ভরে খেতে চাই পৃথিবীর
সব নদী সমুদ্রের জল
মনে হয় তাতেও মিটবে না তৃষ্ণা, নিষেধ
অমান্য করে নেমে যাই মৃত্যু সরোবরে,
এমন কোথায় সে আকুল তৃষ্ণা,... বিস্তারিত
জড় ও চৈতন্যের দ্বৈরথরফিক আজাদ উৎস-মুখের স্বচ্ছ জলের তলে
খড়কুটো নয়, পাথর পড়ে থাকে;
প্রতিবন্ধক দারুণ প্রবল বলে
নদীর উৎসে ক্ষিপ্র খরধারা।

জলের মধ্যে ধাউর পাথররাশি
জলের বাইরে অর্থহীন জড়;
উষ্ণ জলের গতিচঞ্চলতা
পাথর দাঁড়ায় রুদ্ধ করে দিতে;
কিন্তু খুবই মজার ব্যাপার হলো
পাথর শুধুই হচ্ছে পরাজিত।

উৎস-মুখের ঠা-া পাথররাশি
খুব কিছু নয়, ঠা-া পাথররাশি!!... বিস্তারিত
হিরেন বাবু বলেছেনমাকিদ হায়দার দৈব ক্রমে দেখা।

স্বপ্নে।

তাকে।

ঈশ্বর পেতেছেন সোনালী জাল
ধীবরের সাথে।

প্রহরান্তে স্বপ্নফল গুনে দেখি, শূন্য পড়েছে
আমার সেবায়।

জ্যোতিষী হিরেন বাবু বলেছেন,
কৃষ্ণপক্ষের দ্বিতীয়ার স্বপ্ন বিলম্ব হলেও
সত্য হতে পারে।
যদি ধীবরের হাতে থাকে
মহিলার ঠিকানা সমূহ।

নারীকুলের ডাকিনীরা নেমেছে... বিস্তারিত
শব্দ ঝ'রে অবিরত কাব্যবৃষ্টিইকবাল আজিজ শব্দ ঝ'রে অবিরত কাব্যবৃষ্টি এ বঙ্গের শব্দনদীজলে
জলস্রোত বয়ে চলে, জমিতে ফসল হয়, হাওয়া বয়ে যায়।
তারার আলোয় কালীগঞ্জের সবুজ তীরভূমি ঘেঁষে রূপকথার আশ্চর্য রাজ্য
প্রকৃতির নিয়মের জাল ছিঁড়ে শব্দরাশি নেমে আসে সি্নগ্ধ বৃষ্টিজল_
নেমে আসে গভীর অদৃশ্য নভোযান মস্তিষ্কের ইস্টিশনে।
বাড়ির কাছেই আরশনগর তবু যেন কত দূরে বাজে কার আলোর নূপুর_
লাল নীল রঙ সবুজ কালোর ঝংকার;
... বিস্তারিত
ঘুণপোকাশাহাবুদ্দীন নাগরী ঘুণপোকা আজ যৌবন কুরে খাচ্ছে
নতুন স্বপ্ন অচেনা হাওয়ায় ভাসছে
অমিত সাহস পকেটে আটকে ঘুরছি
জ্বালানো আগুনে নিজেই এখন পুড়ছি।

করতল থেকে মুছে যায় সৌভাগ্য
ভুঁইফোড় আমি নিজেকে ভেবেছি প্রাজ্ঞ
অন্ধকারের জানালায় ডাকে পক্ষী
অরণ্যে নেই পাহারার বনরক্ষী।

ফুল থেকে আর পাইনাতো কোনো গন্ধ
বিবেক ঘুমায়, নেই তার মনে দ্বন্দ্ব
ব্যাঘ্র-জীবন... বিস্তারিত
হেসে ওঠে রোদ্দুরসুজন হাজারী মেঘের আড়ালে সূর্যোদয় দিবালোক পাঠশালায়
আলোর বেণি খুলে দিগন্তে মেলে রাখে ঈশ্বরী
ধাবমান অশ্বারোহীর সম্মুখে কুয়াশা ভেজা
সুদূরের পথ।

শিশির ধোয়া এ গাঁদেশ ফেবিকল বিজ্ঞাপনে
স্টারদের গোল্লাছুট দৌড় পিছে পড়ে গিনিপিক
সার্কাসের সরুমুখ বালিকার হাত ফসকে
ছুটে যায় খাঁচার বাঘ।

আস্তাবলের হদিস জানে বখতিয়ার খলজি
ব্যর্থতার স্বপ্ন জাল বোনে সিল্কের শব্দমালায়
... বিস্তারিত
পবিত্র ভোরের থ্রিলরবীন্দ্রনাথ অধিকারী বিষণ্নতার মাঠ পেরিয়ে খুঁজে ফিরি রহস্যময়তার পরশপাথর
মানুষের পাঠপড়ি, পাঠের মানুষ খুঁজি রৌদ্র ছায়া অকাতর
পুষ্পশোভিত কাল-চক্র যান বিবেক বৈরাগ্যের রথে
আলোর স্বপ্ন বুনি স্বপ্নের খোঁজে যাই দূর-সুদূরের পথে,

জ্যোৎস্নার জলে-জালে গাছে গাছে নামে যেন স্বপ্নময়তা
পৌষ-পার্বণে বসন্ত উৎসবে নস্টালজিয়া নামে যেন সুন্দরের সখ্যতা
ছন্দের বারান্দায় নামে মায়াময় দুপুরে নামে মিহিগলার মেলোডিয়াস সুর
গোধূলি রঙে ভেলভেটরোদে... বিস্তারিত
মায়াবতীচঞ্চল শাহরিয়ার তুমি ভালো বাসছো না বলে
তুমি কাছে ডাকছো না বলে
খুব অভিমান নিয়ে ফিরে যাচ্ছি।
রেখে যাচ্ছি নগরীর প্রিয়তম রাত
সিমেট্রি রোডের আড্ডা
সুন্দরবন কলেজ, বিভাগীয় জাদুঘর।
রেখে যাচ্ছি ফরেস্ট ঘাটের খুনসুটি
ছেড়ে যাওয়া লঞ্চের জন্য প্রার্থনা
বালিকার কুসুম কুসুম প্রেম।
আমার চলে যাওয়া মানে
পুনর্বার নিশ্চিত পরাজয়
তবু চলে যাচ্ছি, চলে যেতে বাধ্য... বিস্তারিত
পাতার বুকে শোকশিউল মনজুর নিঝুম দুপুরে কাঁদে রোদ
মেঘ মাথায় খুন, পাথর খেয়েছে চিবুক
দমবন্ধ, মুখে তালা, সময় অদ্ভুত
হাসে না হাসনাহেনা কালো তিল মুখ।

প্রবাস গেছে বৃষ্টি সন্তান
খাখা মাঠ, ভাসে না হৃদয় সাম্পান
স্তব্ধ স্রোতস্বিনী, ভাটিয়ালি গান
বোবা দৃষ্টি, শ্যামা-দোয়েলের অপমান।

ডাকাত পকেটে সবুজ বৃক্ষের দুল
পাখিরা উদ্বাস্তু, পাতার বুকে শোক
কোথায় পাবে... বিস্তারিত
মানুষসরকার মাসুদ মানুষ ভ্রমণপ্রিয় পরিহাসপ্রিয়, চায় প্রত্যুষের হাওয়া
ক্ষয় মানে সে বুঝেছে অশেষ বৃষ্টিতে ধুয়ে যাওয়া
মাটির দেয়াল; ভয় মানে প্রত্যন্ত জঙ্গলে পড়োবাড়ি!
মানুষ অভিমানপ্রিয়, খাঁটি প্রেমের বেলায় সত্যি আনাড়ি।

বর্ষার যৌবনে সে ভালোবাসে নৌকাভ্রমণ
ভালোবেসেছে ফলবাগান, দূরের মিনার এবং মুখোশ!
দেখেনি ঝড়ে-ভাঙ্গা মাস্তুল, বোঝেনি পাখির মন
কিন্তু জয় করেছে বনের হৃদয় চিতাকেও মানিয়েছে পোষ।

... বিস্তারিত
বিহঙ্গ বর্ণমালারাহমান ওয়াহিদ পাতাহীন বৃক্ষের কাছে নতজানু হয়ে বলেছিলাম
হে বৃক্ষ ছায়া দাও, আমি ক্লান্ত ভীষণ
বৃক্ষ তার শরীর দিয়ে আড়াল করেছিল সমস্ত রোদ্দুর।

বন্ধ্যা মৃত্তিকায় মাথা রেখে সকাতর বলেছিলাম_
হে জননী মৃত্তিকা- আমাকে ক্ষুধার অন্ন দাও
মৃত্তিকা তার বুক ভরে তুলেছিল ফুল ও ফসলে।

মৃত নদীর কাছে গিয়ে করজোড়ে বলেছিলাম_
আজন্ম তৃষ্ণার্ত আমি, আমাকে জল দাও... বিস্তারিত
ছাগলপালকগোলাম কিবরিয়া পিনু উপেক্ষা ও তাচ্ছিল্যের মধ্যে থেকে
ঠিকমত খাদ্য গিলতে পারি না এখনো,
যদিও এর মধ্যে স্নাতক হয়েছি_
এমনকি বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে এসে
দূরগামী হয়ে অবতীর্ণ হয়েছি আর এক মাঠে
সেখান থেকেও অতিক্রান্ত হই,
ধুলোবালি থেকে রক্ষা করি দুই চোখ।
আঠালো পদার্থ যারা লাগিয়ে দিয়েছে
আমার পোশাকে
তাদের মুখগহ্বর দুরাচার হয়ে ভাসে,
আজও কিছু ছাগলপালক
আমাকে বিরক্ত... বিস্তারিত
বাংলা ভাষাদুলাল সরকার প্রথম যেদিন ফাগুন এলো
মনে হলো তোমাকে ছাড়া
অন্য কারো, কাউকে আরো
ভালোবাসা, কাউকে আরো
গতর খুলেও দেখানো যায়... কাতরতা;

ধ্বনি আরো সূর্য ভোরে ঠাহর করে
আরো কোন শব্দগুচ্ছ...
রক্তিম অধর... আরো কোনো
নদীর বাকল খুলে খুলে বাংলা শব্দ
ফোটানো যায়... ফোটানো যায়;

আরো কোন জয়ের জন্য
প্রতীক দিবস শহীদ... বিস্তারিত
নরকচিত্ররেজাউদ্দিন স্টালিন নিরুপায়
স্থবিরতা খেয়ে ফেলছে পদক্ষেপ
ডানা মেলবার আগেই
ভ্যাম্পায়ারের দীর্ঘ দাঁত ঢুকে যাচ্ছে
মরাল ডানায়
পালাবার সব পথে ড্রাকুলার ছায়া
এই রক্তভুকদের দলভুক্তি ব্যতীত গত্যন্তর নেই
ক্রুশ আইকন ধর্মগ্রন্থের কোনো গভীর মন্ত্র
কাজে আসছে না

দেয়ালে দেয়ালে আদিম ভৌতিক ভাস্কর্য
লোলজিহ্বা বাড়িয়ে রেখেছে
পৌর পানিকল থেকে দরদর রক্ত ঝরছে
বাতাসের স্পর্শে... বিস্তারিত
শিখা অনির্বাণহাসান হাফিজ একুশ মানে রক্তজমিন
বিদ্রোহ বীজ ঝঞ্ঝাদামাল
দারুণ ক্রোধে উপড়ে ফেলা
দুঃশাসনের ভিত।

একুশ মানে সূর্য উদয়
বারুদপ্রেমে স্পর্ধাজাগর
লুটিয়ে পড়া, ফের দাঁড়ানো
স্বরূপ চেনার গোলাপকুঁড়ি

একুশ মানে রক্তসোপান
স্বাধীনতার কণ্টকী পথ
উজিয়ে পথের পাড়ি শেষে
রক্তভেজা তিতিক্ষাতাপ
অনিন্দ্য এক শান্তি শিখা...... বিস্তারিত
 
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin