ব্রাজিলকেই ফেভারিট মানছেন দেল বস্ক'সব সময় অতীত দিয়ে বর্তমান বিচার করা যায় না। ২০১০-বিশ্বকাপে যেমন খেলেছি, এবারো তেমনই খেলতে হবে- এমন কোনো কথা নেই। নতুনত্ব আনতেই কয়েকজন ফুটবলার বেছেনিয়েছি, যারা প্রথম বিশ্বকাপের স্বাদ পাবে।'ক্রীড়া ডেস্ক বিশ্ব ফুটবলে চলছে স্পেনের রাজত্ব। বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়নও তারা। এবার সেই খেতাব অক্ষুণ্ন রাখতেই ব্রাজিলে যাচ্ছে দলটি। কিন্তু সেই মিশনে নিজেদের ফেভারিট ভাবছেন না স্প্যানিশ কোচ ভিসেন্তে দেল বস্ক। তার চোখে আসন্ন বিশ্বকাপে স্বাগতিক ব্রাজিলই ফেভারিট।
কিন্তু কেন? উত্তর হতে পারে, মাঠের মতো মাঠের বাইরেও ক্ষুরধার মস্তিষ্কের দেল বস্কের এটা নতুন কোনো কৌশল! নিজের দলের ওপর থেকে চাপ সরিয়ে ফেলতেই হয়তো এমন মন্তব্য তার। তবে ব্রাজিলকে ফেভারিট মানার পেছনে তার যুক্তিও আছে। ঘরের মাঠে খেলার সুবিধা ছাড়াও নেইমার-অস্কার-উইলিয়ানদের প্রতিভা আরেকটি বিশ্বজয়ী অধ্যায় সৃষ্টি করতে পারে বলে তার ধারণা। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, 'ব্রাজিলই হট ফেভারিট। ওরা সবাই একসঙ্গে খেলে অভ্যস্ত।' শুধু ব্রাজিলকেই নয়; শিরোপার দৌড়ে ইউরোপ ফুটবলের দুই পরাশক্তি জার্মানি এবং নেদারল্যান্ডসেরও সুযোগ দেখছেন দেল বস্ক, 'জার্মানি এবং নেদারল্যান্ডসের সুযোগ আছে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হওয়ার।'
স্পেন দলে জাভি-ইনিয়েস্তা-ভিয়াদের মতো পরীক্ষিত সৈনিকদের সঙ্গে বেশ কয়েকজন প্রতিভাবান তরুণকে ব্রাজিল মিশনে শামিল করেছেন দেল বস্ক, 'সব সময় অতীত দিয়ে বর্তমান বিচার করা যায় না। ২০১০ বিশ্বকাপে যেমন খেলেছি এবারো তেমনই খেলতে হবে; এমন কোনো কথা নেই। নতুনত্ব আনতেই কয়েকজন ফুটবলার বেছেছি, যারা প্রথম বিশ্বকাপের স্বাদ পাবে।' হুয়ান মাতা থেকে জেসুস নাভাস; দলে তারুণ্যের সঙ্গে অভিজ্ঞতার অপূর্ব মিশেল। স্প্যানিশদের লক্ষ্য পরিষ্কার; ব্রাজিলে আরো ভালো কিছু করা, 'আমরা সব সময় কথা বলি জাভি, ইনিয়েস্তা, তোরেসদের নিয়ে। আস্তে আস্তে কিন্তু দলে দুটো প্রজন্ম একসঙ্গে খেলছে। কোকে থেকে নাভাস, নতুন প্রজন্মও তৈরি হচ্ছে।'
অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের হয়ে দারুণ একটা মৌসুম কাটিয়েছেন কোকে। ব্রাজিল মিশনে এই তরুণই দেল বস্কের প্রধান অস্ত্র। স্প্যানিশ কোচের কণ্ঠেও তা প্রতিধ্বনিত, 'কোকে আমার দলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ফুটবলার। চোখ বন্ধ করে ওর ওপর বিশ্বাস করতে পারি। ও যে কোনো পজিশনে খেলতে পারে। আক্রমণ থেকে রক্ষণ, সব কিছুই সামলাতে পারে কোকে।'
অতীতে রিয়াল মাদ্রিদ-বার্সেলোনা রেশারেশির কারণে বহুবার বিতর্কে জড়িয়েছে স্পেন। জল্পনা ছিল, দুই ক্লাবের মধ্যে খারাপ সম্পর্কের প্রভাব জাতীয় দলেও পড়বে। কথিত আছে, জাতীয় দলের জার্সিতে একসঙ্গে মাঠে নামলেও রিয়াল-বার্সা ফুটবলাররা কথা বলেন না একে অন্যের সঙ্গে। কিন্তু এসব বিতর্ককে নিছক গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছেন দেল বস্ক, 'কোনো সমস্যা নেই। ফুটবলাররা এখন অনেক ওয়াকিবহাল। পরিস্থিতি আগে অনেক ফুটবলারের নেতৃত্বে ঝামেলা হয়েছিল ঠিকই, কিন্তু ওদের বুঝতে হবে যে জাতীয় দল যে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঊধর্ে্ব।'
গত বছর কনফেডারেশন কাপের ফাইনালে ব্রাজিলের কাছে ০-৩ ব্যবধানে পরাজিত হয়েছিল স্পেন। তার পরই সমালোচনা শুরু হয়েছিল; তিকিতাকার আধিপত্য শেষ হতে চলেছে। এ প্রসঙ্গে দেল বস্কের ভাষ্য, 'আমাদের খেলার নির্দিষ্ট কোনো ধরন নেই। খেলোয়াড়দের শক্তি দেখেই দল সাজাই। কোনো ফুটবলারের স্টাইলের বিরুদ্ধে দল গড়ি না।'
বিশ্বকাপে স্পেনের গ্রুপে রয়েছে নেদারল্যান্ডস, চিলি এবং অস্ট্রেলিয়া। যা নিয়ে ছক কষা শুরু করে দিয়েছেন দেল বস্ক, 'আপাতত ভাবছি নেদারল্যান্ডস আর চিলিকে নিয়ে। অস্ট্রেলিয়ার খেলা অত দেখিনি। ব্রাজিলে দেখব ওরা কি রকম খেলে। তার পর সিদ্ধান্ত নেব।' জানা গেছে দুই একদিনের মধ্যেই চূড়ান্ত দল ঘোষণা করবেন দেল বস্ক।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close