রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনসিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ভাষা আন্দোলন আমাদের প্রথম গণতান্ত্রিক আন্দোলন। এবং তার এই চরিত্র গ্রহণের প্রধান কারণ সে ছিল সামন্তবাদবিরোধী। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল একটি আমলাতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে। লক্ষ্য ছিল ওই রাষ্ট্রকে স্থায়ী করার উদ্দেশ্যে দেশের অভ্যন্তরে একটি সামন্ততান্ত্রিক সংস্কৃতিকে টিকিয়ে রাখা; এ জন্য তার অধিপতিরা ধর্মকে খুব শক্ত করে অাঁকড়ে ধরেছিল। নিজেরা মোটেই ধার্মিক ছিল না, সাহেব-সুবোই ছিল একেকজন, কিন্তু জনগণকে সামন্তবাদের কারাগারে বন্দি রাখার অভিপ্রায়ে তারা বলেছিল, পাকিস্তান... বিস্তারিত
একুশের গানমোবারক হোসেন খান বাংলা আমাদের মাতৃভাষা। আমরা বাংলা ভাষায় কথা বলি। সাহিত্য রচনায় আমরা বাংলা ভাষা ব্যবহার করি। ভাষার সঙ্গে আমাদের জীবন একসূত্রে গাঁথা। মায়ের গর্ভ থেকে পৃথিবীর আলো-বাতাসে এসে আমরা যে ভাষায় 'মা' বলে ডাকি সে ভাষা বাংলা। স্বরবর্ণ আর ব্যঞ্জনবর্ণের অক্ষরে সে ভাষা সমৃদ্ধ। বাংলা ভাষা আমাদের মনের কথা প্রকাশের মাধ্যম, আমাদের লেখাপড়ার মূলধন।
হাজার বছরের পুরনো এ ভাষার কণ্ঠ রোধ করার চক্রান্তকে প্রতিরোধ করতেই... বিস্তারিত
একুশ মানে যৌবন-জোয়াররণেশ মৈত্র একুশ কি তবে বুড়ো হয়ে গেল? সেই ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারিতে একুশ এসেছিল সেদিনের তরুণ-তরুণীদের মনে। হিসাব করে দেখি সে আজ ৬৪ বছর আগের কথা। ৬৪ বছরে বার্ধক্যে ধরেছে এমন মানুষ তো বাংলাদেশে বিরল নয়। তবে কি ওই আশঙ্কাটা সত্যি?
হঠাৎ করেই, কেন জানি না_ জানুয়ারির শেষ দিনে এমন একটা আশঙ্কা মনের কোণে দেখা দিল। এমনটা হলো কেন? নিশ্চয় কোথাও কোনো গড়বড় ঘটেছে। টুকরা... বিস্তারিত
মায়ের মিনার থেকে বিশ্বের মিনারজুবাইদা গুলশান আরা মিনারটা আমার দিকে তাকায়। তার দৃষ্টিতে ঝরে পড়ে স্নেহ ও করুণা। জানি, এই দেশটাকে সে আমাদের মতোই ভালোবাসে। ওর বুকের ভেতরে গুমরে ওঠে কান্না, যখন এই সুন্দর দেশের মাটিতে ঘটে হানাহানি আর নিষ্ঠুরতা। সে যেন বলতে চায়, ওই যে আমি আগলে রেখেছি আমার সোনার সন্তানদের। দেখ তোমরা। শেখ। রক্ষা কর তোমাদের বিবেক। গর্জে ওঠ অন্যায়ের বিরুদ্ধে।
একসময়ে মিনারটা ছিল নবীন। সবুজ ঘাস জমিন হয়তো... বিস্তারিত
একুশের আলোকিত পথ সারা বিশ্বেমোহাম্মাদ নজাবত আলী 'আজ আমি শোকে বিহ্বল নই, আজ আমি ক্রোধে উন্মত্ত নই, আজ আমি রক্তে গৌরবে অভিষিক্ত।.. যারা আমার অসংখ্য ভাইবোন হত্যা করেছে, যারা আমার হাজার বছরের ঐতিহ্যময় ভাষায় অভ্যস্ত মাতৃ সম্বোধনকে কেড়ে নিতে গিয়ে আমার এসব ভাইবোনকে হত্যা করেছে, আমি তাদের ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি।... ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি'_ মাহবুব-উল-আলম চৌধুরী (একুশের ওপর রচিত প্রথম কবিতা)।
আজ একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। আমাদের জাতীয় জীবনে... বিস্তারিত
কেবল সত্য অথবা কেবলই মিথ্যাসালাম সালেহ উদদীন সত্যকথন :
বর্তমান ইরানের জিলান অঞ্চল থেকে বাগদাদমুখী এক কাফেলা পথিমধ্যে মরুদস্যুদের কবলে পড়ল। কাফেলার সদস্যদের সঙ্গে দস্যুদলের সংঘর্ষ হলো। কিন্তু অল্পক্ষণেই তারা দস্যুদের কাছে পরাজিত হলো। এরপর শুরু হলো লুটপাট। একে একে কাফেলার সবাই তাদের অর্থ, মূল্যবান জিনিসপত্র দস্যুদের হাতে তুলে দিতে বাধ্য হলো। দস্যুদের কয়েকজন এক পাশে শান্তভাবে উপবিষ্ট সাধারণ চেহারা এক বালকের কাছে এসে জিজ্ঞাসা করল_ 'তোমার কাছে কি কোনো কিছু... বিস্তারিত
সার্থকজনের আত্মমূল্যায়নরণজিৎ বিশ্বাস আমার এক বন্ধু বেতনের বাইরেও বেশ কিছু টাকা আয় করতেন। কোনো ব্যবসায়ে ব্যস্ত থেকে নয়, পার্টটাইম কোনো চাকরি করেও নয়, কোনো কনসালট্যান্সি কিংবা শিক্ষণ-প্রশিক্ষণের কাজে ব্যস্ত থেকেও নয়। নিজের কাজের জায়গা থেকেই তিনি এই বাড়তি আয়ের উপায় করে নিতেন। খুব দক্ষতার সঙ্গে।
একটু বিলম্বে তিনি অফিসে ঢুকতেন ও সময়ের একটু আগেই বেরিয়ে পড়তেন। একই দিনে একই স্থানে দুবার বিলম্ব করা তিনি পছন্দ করতেন না।... বিস্তারিত
সজলমুখীআল মাহমুদ নদীর কথা বলা মানেই, বুকে
আস্তে নড়ে জলের ঢেউ ঘোলা,
তোমার নাম ভাবলে ভাসে চোখে
বালিশে লাল গোলাপফুল তোলা;
হে প্রেম, তুমি শব্দ করে ওঠো
যেমন ওঠে আকাশের ধ্রুবতারা
কালের হাত শিথিল করো মুঠো
সজলমুখী এসেছে একহারা।

এসেছে সেই যুবতী যার হাতে
চিরকালের কবির দেওয়া বালা
নকশা কাটা তারায় ভরা রাতে
রুপোলি... বিস্তারিত
বর্ণ পরিচয় ও ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরদুলাল সরকার বর্ণ পরিচয়ের লেখক ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মহাশয় সেদিন মৃদু হেসে বললেন, এখন তো তোমরা বাংলাদেশের লেখকবৃন্দ খুব ব্যস্ত_ সামনে বইমেলা_ কত কবিতার বই, ছোটগল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধের বিস্ফোরণ, লিটল ম্যাগ চত্বরে তরুণ লেখকের ভিড়, জুটি বেঁধে এই অবকাশে তরুণ-তরুণীর যাপিত সময়; বললে, এরপর সেই রক্তঝরা স্মৃতিবাহী ২১-এর প্রথম প্রহর_ রাজ রাজা, আমলা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের জন্য বিশেষ ব্যবস্থায় শহীদবেদিতে আরোহণ_ তুমুল ভিড়ে, সারা বছরের ময়লা ধৌত শহীদ মিনারের... বিস্তারিত
চলেছি তোমারই দিকেমাসুদুজ্জামান যদি কিছু উড়ন্ত সারস
ডানা নিয়ে আসে
তোমাকে উড়িয়ে নিয়ে যাবো
সুদূর আকাশে।

মৃত্যু যদি তোমাকেই চায়
রৌদ্রে মুখ ঢেকো
সন্তানের মুখে চুমু খেয়ে
মেঘবৃষ্টি এঁকো।

ঘুমন্ত ঝর্ণার জলস্রোতে
চলেছো কোথায়
চিতাভস্ম এই সসাগরা
ধীরে লুপ্তপ্রায়

একাই চলেছি স্বপ্নবীজে
ডানাটুকু দিও

জিভে বিষ... বিস্তারিত
চিরায়তমহাদেব সাহা তোমার দুঃখ আমার দুঃখ মিলেছে যেইখানে
সেইখানে এই নদী,
তোমার সুখ আমার সুখ মিলেছে যেইখানে
সেইখানে এই জীবন নিরবধি;
তোমার চোখ আমার চোখ মিলেছে যেইখানে
সেইখানে এই আলো,
তোমার প্রাণ আমার প্রাণ মিলেছে যেইখানে
সেইখানে এই রাত্রি পোহাল।... বিস্তারিত
আকাশের মতো উচ্চতায়হাসান হাফিজ ফাল্গুনের বুকে আছে মাতৃওম অগি্নর উত্তাপ
ভাষা তুমি ভালোবাসা, তুমি নদী-হাওয়া
আরো আছে আকাশের অফুরন্ত নীল
বর্ণমালা তোমার রক্তের রঙে সি্নগ্ধ হলো
প্রতিবাদী তারুণ্য মিছিল
আগ্নেয় আবেগে পুড়লো স্বৈরাচার,
পরাধীনতার গ্লানি, দূষিত শৃঙ্খল
রক্তস্রোত বহে গেল নদীর নিয়মে অবিরল
প্রাণ পেল ভাষা
জেগে উঠলো আশা
বিশ্বমানবের হলো সে ঐতিহ্য
নিবৃত্তি সমাপ্তি পেল শতেক জিজ্ঞাসা... বিস্তারিত
কলহ, তোমাকে বলিফারুক মাহমুদ প্রতিটি বৃক্ষের সাথে একটি করে মানুষ থাকেন

পুরুষ-প্রকৃতি নয়, নারী-শিশু ভবঘুরে নয়
নয় সে রাজার দম্ভ, প্রজা বটে_খুব সাধারণ

সোনার শৃঙ্খল রাখো, ভালোবাসো রৌদ্র-বৃষ্টি-ঘাস
সহজ চিন্তার মতো কেউ যদি মহত্ত্ব অাঁকেন
সে হবে স্বপ্নের চুড়ো, যথাযথ সুখের সময়
প্রতিটি শিশির-বিন্দু হয়ে যাবে অপার আকাশ
গৌরবে জানানো যাবে প্রশান্তির শুভ জন্মক্ষণ

কলহ,... বিস্তারিত
যা যা বলেছিল মেহেদীর বোনসরকার মাসুদ ও খুব আনন্দে থাকতো দেখতাম
সঙ্গী-সাথী, হৈ চৈ, জাফলঙে পিকনিক
কুয়াকাটায় বেলাভূমির ওপর সূর্যোদয়ের কবিতা
ও খুব ভ্রমণপ্রিয়, জলি থাকতো দেখতাম
কাপাস মেঘের দিন আরো আরো বেশি!

শুরু শীতে মনোহর কুয়াশার খোঁজে ও চলে যেত
নওপাড়ার জলা-জঙ্গলের ঢালে
আর একটু রোদ উঠলেই ও এগুতো কড়া লিকার চায়ের দিকে
খিলগাঁয়ের জোড়াসাঁকো, কুয়াশাগ্রস্ত সাঁকো
তখন উজ্জ্বল... বিস্তারিত
করুণ কষ্টগোলাম কিবরিয়া পিনু মোটরগাড়ির ড্যাশবোর্ডের যে খুপরিতে ছোটখাটো
জিনিসপত্র রাখা যায়_
সেখানে আমাকে রেখে দিতে চাও
চলন্ত রাস্তায়!

মাপসই আঙুরজাত চিনি ও দ্রাক্ষা-শর্করা ভেবে
ব্যাগে ভরে কোনখানে নিতে চাও?

নিবু নিবু করে জ্বলা বাতির আলোতে ফেলে রেখে
হিস্টিরিয়াগ্রস্ত অবসাদ তৈরি করে
আরও একবার ব্যর্থ প্রমাণে ঝাঁপিয়ে পড়বে?
তা-শুধু সময় নষ্ট ও করুণ কষ্ট!... বিস্তারিত
পথের ওপরে পথআবু হেনা আবদুল আউয়াল পথের ওপরে পথ শুয়ে আছে :
দীর্ঘপথ হ্রস্বপথ
সোজাপথ বাঁকাপথ...
এপথ ওপথ করে দিন যায়
কোনো পথই আমাকে নেয় না,
যে পথে পা ফেলি সে পথেই
জ্বলে ওঠে লাল বাতি;
জানি না এসব কী জিল্লতি!
চোখে ছানিপড়া এক শরীরিণী চোখে আঙ্গুল
দিয়ে দেখিয়ে দ্যায় অদূরের
ওই ফ্লাইওভার; মনে পড়ে
ছেলেবেলাকার পাটিগণিতের সেই ঐকিক নিয়ম... বিস্তারিত
অতিথিবদরুল হায়দার গোল টেবিলের আড্ডায় ভূগোল ভুলে
পরিণীতি পাঠ শেষে দুপুর গড়ায় শীতের শরীরে।
সঙ্গীত মনষ্কতার বিপরীত ভাষায় তোমার
ইঙ্গিত মনের কুয়াশায় ভাষান্তর করে শাপেবরে।
পাতা ঝরা স্বভাবের ঝরে পড়া মনের আবেগে
বাড়তি সৌজন্য বোধে রং করা বেদনার
ফুল ঝরে অকাতরে।
ঘৃতকুমারীর অমস্ন রসে প্রাণের আবেশে
তোমার মনের স্বপ্নছোঁয়া অাঁধারের
তিক্তচাষে ঘুণেধরে প্রেমের পরশে।
সাফকথা বলে... বিস্তারিত
দেয়ালের ভাষাসোহরাব পাশা যে তুমি নিঃসঙ্গ ফিরে গেছ
ভেজা চোখে মেঘলা হাওয়ায়,
নির্ঘাত নিয়তি হৃদয়ের গন্ধ লুকাবে কোথায়
মানুষের নিজস্ব নিবাস নেই কোনো
সংসারের বিস্তর লতাপাতা, স্মৃতির কার্নিসে ঝুলে থাকে
ক্লান্তিকর ধূ-ধূ মেঘ
কোথাও বিশ্রী কোলাহল, হলুদ ঘাসের ওপর নির্ভার শুয়ে
থাকে রাত্রিভেজা সাপ; প্রতিদিন ছোট ছোট মৃত্যু মরণকামড় দেয়
সকালের রোদে ভেজা প্রজাপতি নীরব নিশ্চুপ আর্তনাদে ফিরে যায়
... বিস্তারিত
দাবদাহরবীন্দ্রনাথ অধিকারী রোদ-কষ্ট হাতছানি দেয় অবিরাম
দেহে আর বিদেহে ঝরে ঘাম
ঝরে আগুন-ফুল জ্যৈষ্ঠের দাবদাহে
মাঠঘাট চৌচির আগুনের স্রোত বহে,

খরতাপ খোলা খাপ রোদ্দুর
ভরা মাঠ শুকিয়ে কাঠ চোখ যায় যদ্দুর
চারিদিকে আগুনের প্রবাহ অবিরাম
ক্লান্তির লোনা রোদে ঝরে ঘাম

কষ্টের হাতছানি ঘুরপাক খরতাপ
পুড়ে ছাই দেহ সুধা পদে পদে সন্তাপ
ঝরে রোদ... বিস্তারিত
চাই শুভ ভৈরবীনাহার ফরিদ খান কিবোর্ডে হাত রেখে আঙ্গুল বাজাও
মাইক্রোফোনে ঠোঁট তুলে ধরে
নিবিড় ভালোবাসা।
হন্তারক যারা ছিঁড়ে খুঁড়ে খায়
সৌন্দর্যের মোহনবাগান,
সুন্দরকে টেনে নিচ্ছে ভাগাড়ে
শকুনেরা খুবলে খাচ্ছে বিবেকের বন্দর
বিশ্বস্ত লোকালয়ে এখন সৌন্দর্যের
বিষয়বস্তুগুলো অবিন্যস্ত।
নষ্ট বিবেকের রোষানলে পুড়ছে
সুচারু মানুষ, সুচারু অঙ্গন
বিনিদ্র রজনীর বিবমিষায় এ কোন সকাল!
দুঃসংবাদ দ্বারে ওত পেতে থাকে
... বিস্তারিত
ভাষার অাঁচলপ্রবীর চন্দ শব্দের ভালোবাসা, বর্ণমালার বর্ণিল ছটা
শহীদের রক্তের দাগ
এখনো ছায়া ফেলে সুগভীর ভাষার অাঁচল;

চিন্তাগুলো কোথা থেকে আসে
অনুভবের আয়ু কেন এত ক্ষীণ হয়
ভাষাহীন অস্ফুট বেদনায়;
কেন এত স্বপ্নের জখমে ঝরে পড়ে রক্ত
ফাল্গুনের ঝরাপাতা হলুদ সংসার
দুঃখজাগানিয়া...
কেন এত জীবনের ভ্রূণ জীবাণুর মতো
রক্তনালিতে ঘুরে বেড়ায় তাও তো বুঝি না।
... বিস্তারিত
ফাগুন দুপুরচঞ্চল শাহরিয়ার ফাগুন দুপুরে ফের উদাসীন হলো মন
নির্জন মুহূর্ত শুধু তোমার বন্দনা।

স্কুল গেট, দোতলার বারান্দায়
কানে ভেসে আসে কারো মুগ্ধ কণ্ঠস্বর।

মায়াবী কিশোরী তবু
ভালোবেসে ডাক দেয়_ এই যে শোনেন...

আমি ভাবী, কি শুনব?

সব সুখ বাঁধা পড়ে কিশোরীর চোখের খেয়ায়।... বিস্তারিত
তোমাকেরুহুল মাহবুব কী সুন্দর পৃথিবী সব আকারে কিভাবে বন্ধু বিদায় দাও বন্ধু বিদায় দাও
আমার বাগানের ফুলের আর সূর্যের মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই
আমার বিশ্বাস যখন কোনো অভিমানের কাছের চেয়ে
তোমাকে কোনো অপরূপ চেয়ে অধিক ভালোবাসার যোগ্য মনে করি
কতটুকু ভীষণ ব্যথা কতটুকু তোমাকে পাওয়ার জন্য
হাজার বছরের অপেক্ষা পরান পাখির মতো চেয়ে আছে
এত মায়ার গভীরে বনের পাখিরা... বিস্তারিত
 
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin