জাবিতে ছাত্রলীগের দু'গ্রুপে মারামারি আহত একজাবি প্রতিনিধি কনসার্টে বসাকে কেন্দ্র করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) শাখা ছাত্রলীগের দু'গ্রুপে মারামারি ঘটনায় একজন আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে মওলানা ভাসানী হলের ছাত্রলীগ কর্মী মো. জহিরুল ইসলামকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে পা ভেঙে দেয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ছাত্রলীগ কর্মীরা। পরে জহিরুলকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার গতকাল সুষ্ঠু বিচার দাবি করে ভিসি অধ্যাপক অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে মওলানা ভাসানী হল ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত ১০টার দিকে জাবির সেলিম আল দীন মুক্তমঞ্চে কনসার্ট চলাকলীন সময়ে বসাকে কেন্দ্র করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ছাত্রলীগ কর্মীদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় মওলানা ভাসানী হল ছাত্রলীগ কর্মীদের। এ ঘটনার জেরে মুক্তমঞ্চের পার্শ্ববর্তী স্থানে উভয় পক্ষের মাঝে দুই দফায় মারধর ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে বিষয়টি নিয়ে সমঝোতার জন্য মওলানা ভাসানী হলের ছাত্রলীগ কর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় জড়ো হন।
এ সময় রাত ১১টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ছাত্রলীগ কর্মী শামীম মোল্লা ওরফে অস্ত্র শামীমের অনুসারী ৪২তম ব্যাচের মিজানুর রহমান (প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ), তোফায়েল আহমেদ (নৃবিজ্ঞান বিভাগ), ইশতিয়াক আহমেদ (উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগ), ইয়াসিন (ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ), শিহাব (দর্শন বিভাগ), নাজমুল (গণিত বিভাগ), ৪৩তম ব্যাচের লিটন (দর্শন বিভাগ) ও শাওনসহ প্রায় ২০ থেকে ২৫ জন ছাত্রলীগ কর্মী লোহার পাইপ, রডসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ভাসানী হলের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়। এ সময় ৪১ ব্যাচের জহিরুল ইসলামকে (পাবলিক হেলথ্ অ্যান্ড ইনফরমেটিকস্ বিভাগ) লোহার রড দিয়ে বেধড়ক মারধর করেন তারা। এ সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাংবাদিকরা আহত ছাত্রলীগ কর্মীকে উদ্ধার করতে গেলে বঙ্গবন্ধু হলের এই সন্ত্রাসীরা সাংবাদিকদের ওপরও চড়াও হয়।
এ বিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জুয়েল রানা বলেন, তিনি ঘটনা জেনেছেন। তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এদিকে এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট জাবি শাখা। গতকাল সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাশুক হেলাল অনিক ও সাধারণ সম্পাদক সুস্মিতা মরিয়ম এক বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানান। তারা বলেন, ছাত্রলীগের এই সংঘর্ষের ঘটনা কোনো বিচ্ছিন্ন কিংবা শুধুমাত্র তাদের অভ্যন্তরীণ কোনো ঘটনা নয় এটা পুরো ক্যাম্পাসেই ভয়ভীতি ও বিশৃঙ্খলার পরিবেশ তৈরি করে। অবিলম্বে তারা এই ঘটনার জন্য দায়ীদের চিহ্নিত করে শাস্তি দেয়ার দাবি জানান।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
প্রথম পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin