চিকিৎসক সুমনকে হত্যা করা হয়েছে: পরিবারমাগুরা প্রতিনিধি সুমন শিকদারমাগুরার চিকিৎসক সুমন শিকদারকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ এনে সন্দেহের কারণ জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা।
সুমন গত ২ জানুয়ারি মাগুরা শহরের বাসা থেকে বের হওয়ার পর ঢাকার শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটে তার হাত-পা ভাঙা লাশ পাওয়া যায়।
সুমনের মা কল্পনা শিকদার বলেন, 'নিখোঁজ হওয়ার দিন সুমনকে বার বার রোগী দেখার জন্য কারা যেন ফোন করছিল। ওইদিন বিকেলে সুমন মাগুরা শহরের ভায়নার মোড়ে এসে আমাকে বাসে তুলে দেয় বাড়ি ফেরার জন্য। ওই সময় বাসের মধ্যে এসে এক ব্যক্তি তাকে ডাকাডাকি করছিল।' কল্পনার ধারণা, ওই সময় তারা সুমনকে তুলে ঢাকায় নিয়ে খুন করেছে।
এছাড়া মুক্তিপণ দাবির অভিযোগ এনেছেন সুমনের বোন সন্ধ্যা শিকদার, 'সুমন ভাই নিখোঁজ হওয়ার পর তাকে অপহরণ করে আটকে রাখা হয়েছে বলে আমার কাছে ফোন আসে। দুই লাখ টাকা দিলে ছেড়ে দেয়া হবে বলে অপহরণকারীরা জানায়। ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলিয়ে দিলে টাকা দেয়া হবে বলে তাদের প্রস্তাবও দেই। কিন্তু তার আগেই সব শেষ হয়ে গেল।'
সুমনের বাবা মাগুরা সদর উপজেলার বেঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা সুকুমার শিকদার জানান, তার ছেলেকে খুন করা হয়েছে। তিনি এর বিচার চান। তিনি বলেন, 'একমাত্র ছেলের মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে আমাদের জীবনের সবকিছুই আজ শেষ হয়ে গেছে। অনেক কষ্ট করে ছেলেটি মানুষ হয়েছিল। সে নিজেও সুখ পেল না, আমাদেরও ভাসিয়ে গেল।'
পরিবারের সদস্যরা জানান, অত্যন্ত দরিদ্র পরিবারের সন্তান সুমন ঝিনাইদহ সদর উপজেলার মুনুডিয়া গ্রামে মামাবাড়িতে থেকে মামার সহায়তায় লেখাপড়া শিখেছেন।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সুমনকে হারিয়ে এলাকাবাসী শোকে মুহ্যমান। সুমনের মামা স্কুলশিক্ষক অরবিন্দ বিশ্বাস ঘটনার পর থেকে বার বার মূর্ছা যাচ্ছেন।
শ্রীপুরের দারিয়াপুর হাসপাতালে কর্মরত সুমনের জ্যেষ্ঠ সহকর্মী অপূর্ব বিশ্বাস বলেন, 'সুমন যেমন চিকিৎক হিসেবে, তেমনি মানুষ হিসেবেও অত্যন্ত ভালো ছিল। তার মৃত্যু রহস্যজনক।' তিনি ঘটনার সঠিক তদন্ত দাবি করেন।
মাগুরা সদর থানার এসআই তরিকুল ইসলাম বলেন, 'পুলিশ বিষয়টি নিয়ে আন্তরিক। সুমনের বাবার জিডির সূত্র ধরে আমরা তার মৃত্যুর ঘটনা উদ্ঘাটনে তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছি।'
গত ২ জানুয়ারি মাগুরা শহরের বাসা থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হন মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার দারিয়াপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রের চিকিৎসক সুমন শিকদার (২৮)। গত ৩ জানুয়ারি ঢাকার শাহবাগের আজিজ সুপার মাকের্টের চতুর্থ তলা থেকে তার হাত-পা ভাঙা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ৯ জানুয়ারি সন্ধ্যায় মাগুরা পুলিশের সহায়তায় ঢাকা মেডিকেলের হিমঘরে সুমনের লাশ শনাক্ত করেন তার বাবা সুকুমার শিকদার।
সুমন ৩৩তম বিসিএসে উত্তীর্ণ হয়ে দুই বছর আগে দারিয়াপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যোগ দিয়েছিলেন।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
monobhubon
প্রথম পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin