অভিযোগ রাহুল গান্ধীরঅর্থনীতির মেরুদ- ভেঙে দিয়েছেন মোদিজ্জ নোট বাতিল সমর্থনযোগ্য নয় : অমর্ত্য সেনযাযাদি ডেস্ক অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনভারতে নোট বাতিল ইস্যুতে আবারো দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সমালোচনা করেছেন কংগ্রেসের সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী। তিনি বলেছেন, কারো সঙ্গে আলোচনা না করেই প্রধানমন্ত্রী নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, যা দেশের অর্থনীতির মেরুদ-ই ভেঙে দিয়েছে। নোট বাতিলের কুফল সম্পর্কে উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেছেন, ভারতের অটোমোবাইল শিল্প ১৬ বছর আগের পরিস্থিতিতে ফিরে গেছে। এদিকে, অর্থনীতিতে নোবেলজয়ী অমর্ত্য সেনও বলেছেন, নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নেয়া নয়, বরং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেয়া। ভারতের ৫০০ ও ১০০০ রুপির নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়ে মঙ্গলবার এক টিভি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এমন মন্তব্য করেছেন তিনি। সংবাদসূত্র : টাইমস অব ইনডিয়া, হিন্দুস্তান টাইমস, ইনডিয়া টাইমস, ওয়ান ইনডিয়া
দেশটির সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, বুধবার দিলি্লর তালকোটরা স্টেডিয়ামে কংগ্রেসের 'জনবেদনা সম্মেলন'-এ বক্তব্য রাখতে গিয়ে রাহুল বলেন, বিচারব্যবস্থা থেকে শুরু করে রিজার্ভ ব্যাংক, দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে দুর্বল করে দিয়েছেন মোদি। তার অভিযোগ, সরকারের সার্বিক ব্যর্থতা ঢাকতেই নোট বাতিলকে ঢাল বানিয়েছেন মোদি। রাহুলের মতে, সরকারের এই সিদ্ধান্তের ফলে ভারতে বেকারত্ব বেড়ে গেছে। মানুষ শহর থেকে পালাচ্ছে। কোনো চিন্তা-ভাবনা না করেই নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মোদি। রাহুলের মন্তব্য, প্রধানমন্ত্রী ভারতে পরিবর্তন আনার কথা বলছেন। এখন তার নিজেকেই প্রশ্ন করা উচিত, গাড়ি বিক্রির সংখ্যা হঠাৎ কেন কমে গেল?
রাহুলের দাবি, বিজেপি দেশে যে 'আচ্ছে দিন' (সুদিন) আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, তা কোনোদিনই পূরণ হবে না। ২০১৯ সালের ভোটে কংগ্রেস ক্ষমতায় ফেরার পর দেশে সুদিন আসবে বলেও এ সময় মন্তব্য করেন তিনি।
কংগ্রেসের সহ-সভাপতি প্রধানমন্ত্রী মোদির পাশাপাশি আক্রমণ করেছেন আরএসএসপ্রধান মোহন ভাগবতকেও। তার দাবি, কংগ্রেসের আমলে কখনোই দেশের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানগুলোর অবমাননা করা হয়নি। কিন্তু এখন ওই প্রতিষ্ঠানগুলোকে দুর্বল করা হচ্ছে। তার অভিযোগ, এখন প্রধানমন্ত্রী ভাবছেন, শুধু তিনি নিজে এবং আরএসএসপ্রধান দেশ চালাবেন।
তার বক্তব্যে মোদির বেশ কিছু প্রকল্প নিয়েও কটাক্ষ করা হয়েছে। রাহুল 'স্বচ্ছ ভারত' অভিযান সম্পর্কে বলেন, আড়াই বছর আগে প্রধানমন্ত্রী মোদি বললেন, ভারতকে স্বচ্ছ করবেন। সবার হাতে ঝাড়ু ধরিয়ে নিজেও ঝাড়ু তুলে নিলেন। কিন্তু পুরোটাই একটা ফ্যাশন ছিল। তিন-চার দিন চলল, তারপর সব ভুলে যাওয়া হলো।
নোট বাতিল সমর্থনযোগ্য নয় : অমর্ত্য সেন
এদিকে অমর্ত্য সেন দাবি করেছেন, নোট বাতিলের এই সিদ্ধান্ত কালো টাকা খুঁজে বের করতে ব্যর্থ হয়েছে। তিনি মনে করেন, এ রকম সিদ্ধান্ত প্রধানমন্ত্রী একাই নিয়েছেন। এ বিষয়ে রিজার্ভ ব্যাংকের সায় নিয়েও অসন্তোষ প্রকাশ করেন এই অর্থনীতিবিদ। তিনি বলেন, মনমোহন সিং বা অন্য কেউ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নরের দায়িত্বে থাকলে এমন সিদ্ধান্ত নিতে দ্বিধা করতেন।
ভারতের মানুষ কেন নোট বাতিলের সিদ্ধান্তকে সমর্থন করছে_ এমন প্রশ্নের জবাবে অমর্ত্য সেন বলেন, সাধারণ মানুষের রুটি-রুজিতে থাবা বসেছে। সেই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রীয় সরকার কাঠামোর পায়েও কুড়াল মেরেছে নোট বাতিলের এই একতরফা সিদ্ধান্ত। অথচ নিজেদের মধ্যে ঐক্য না থাকায় বিরোধীরা একজোট হয়ে এই সিদ্ধান্তের জোরালো প্রতিবাদ করতে পারেনি। ফলে আগাগোড়াই ভুল পদ্ধতিতে নেয়া এই সিদ্ধান্ত যে কতখানি গলদে ঠাসা, এখনো তা অাঁচ করতে পারেনি সাধারণ মানুষ। আর মানুষের সংশয়ের সুবিধা (বেনিফিট অব ডাউট) পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।
উল্লেখ্য, নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা নিয়ে আগেই প্রশ্ন তুলেছিলেন অমর্ত্য সেন। এর ফলে ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি থমকে যাবে বলে আশঙ্কাও প্রকাশ করেছিলেন তিনি। এবার সরাসরি প্রধানমন্ত্রীকেই এই সিদ্ধান্তের জন্য দায়ী করলেন তিনি। অমর্ত্যের দাবি, মাত্র ৬ শতাংশ কালো টাকার জন্য ৮৬ শতাংশ নোট বাতিলকে কোনোভাবেই সমর্থন করা যায় না।
কালো টাকা কখনোই ভারতের অর্থনীতির জন্য বড় সমস্যা ছিল না জানিয়ে অমর্ত্য সেন বলেন, নোট বাতিলের এই সিদ্ধান্ত রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে নেয়া উচিত ছিল।
তার মতে, শুধু জিডিপির বিচারে এই ক্ষতি মাপা যাবে না। এই নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের কারণে মানুষের প্রাণহানি হয়েছে, চাষাবাদ নষ্ট হচ্ছে, নারীরা কাজ পাচ্ছে না, যা দেশের অর্থনীতিকে আরও পেছনে ফেলে দেবে।
প্রসঙ্গত, গত ৮ নভেম্বর ভারতে অপ্রত্যাশিতভাবে ৫০০ এবং ১০০০ রুপির নোট বাতিলের ঘোষণা দেয় মোদি সরকার। এই মানের নোট পাল্টে ব্যাংক থেকে ছোট মানের নোট সংগ্রহ করার নির্দেশ দেয়া হয় জনগণকে। এরপর মোদি সরকারের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সোচ্চার হয় দেশটির বিরোধী দলগুলো। এমনকি এই ইস্যুতে পার্লামেন্টের শীতকালীন অধিবেশনের কাজ এক দিনও ঠিকমতো হয়নি।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
monobhubon
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin