পূর্ববর্তী সংবাদ
সরকারি মেডিকেলে ভর্তি: প্রতি আসনে লড়বেন ২৫ জনযাযাদি রিপোর্ট দেশের সরকারি-বেসরকারি ১০০ মেডিকেল কলেজে (২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ) এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়ার জন্য আবেদনের সময়সীমা শেষ হবে ১৬ সেপ্টেম্বর। ইতোমধ্যে আবেদনকারীদের সংখ্যা ৮০ হাজার ছাড়িয়েছে।
শুরুর দুই-তিন দিনে প্রায় অর্ধলাখ আবেদন জমা পড়লেও বর্তমানে প্রতিদিন গড়ে ৪০০-৫০০ আবেদন জমা পড়ছে। এই হিসাবে শেষ পর্যন্ত সরকারি ৩১টি মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য প্রতি আসনের বিপরীতে ২৫ জনের মতো শিক্ষার্থীকে লড়াই করতে হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সার্বিক তত্ত্বাবধানে রাজধানীসহ সারাদেশে আগামী ৬ অক্টোবর (শুক্রবার) এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত এই পরীক্ষা চলবে। এই সময়ের মধ্যে ১০০ নাম্বারের এমসিকিউ প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।
এক ঘণ্টার এই পরীক্ষায় জীববিদ্যা- ৩০, রসায়ন- ২৫, পদার্থবিদ্যা- ২০, ইংরেজি- ১৫, সাধারণ জ্ঞান, বাংলাদেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতি- ছয় এবং আন্তর্জাতিক বিষয়ে চার নাম্বার থাকবে। পরীক্ষায় পাস নাম্বার ৪০।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা ও স্বাস্থ্য জনশক্তি উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. আবদুর রশীদ জানান, মঙ্গলবার পর্যন্ত ৮০ হাজারের বেশি আবেদন জমা পড়েছে। আগামী তিনদিনে গড়ে ৩০০-৪০০ কিংবা এর চেয়ে কম আবেদন জমা পড়তে পারে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) দুপুর ১২টা থেকে অনলাইনে ভর্তির আবেদন গ্রহণ শুরু হয়। প্রথম দিনেই রাজধানীর পাঁচটি সরকারি মেডিকেল কলেজ- ঢাকা মেডিকেল কলেজ, মিটফোর্ড মেডিকেল কলেজ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ, মুগদা মেডিকেল কলেজ এবং ঢাকা ডেন্টাল কলেজের পরীক্ষা কেন্দ্রে ধারণক্ষমতার নির্ধারিত সংখ্যক পরীক্ষার্থীর আসন পূর্ণ হয়।
ঢাকা মেডিকেলে ৯ হাজার ৯৯৯টি, মিটফোর্ড মেডিকেলে সাত হাজার, শহীদ সোহরাওয়ার্দীতে সাত হাজার, মুগদায় পাঁচ হাজার এবং ডেন্টালে ছয় হাজার আবেদন জমা পড়ে। ৩১টি সরকারি মেডিকেলের মধ্যে সবচেয়ে কম আবেদন জমা পড়েছে গোপালগঞ্জ মেডিকেল কলেজে। এখানে এখন পর্যন্ত আবেদনকারীর সংখ্যা ৫০০-ও হয়নি।
বর্তমানে দেশে সরকারি ৩১টি এবং বেসরকারি ৬৯টিসহ মোট ১০০টি মেডিকেল কলেজ রয়েছে। এগুলোতে মোট আসন সংখ্যা ৯ হাজার ৫৬৮টি। এর মধ্যে সরকারিতে তিন হাজার ৩১৮ এবং বেসরকারিতে ছয় হাজার ২৫০টি আসন রয়েছে।
ভর্তি পরীক্ষার সার্বিক প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে ডা. মো. আবদুর রশীদ বলেন, এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত রাজধানীসহ সারাদেশের কোচিং সেন্টার বন্ধ ঘোষণা করেছে।
তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে কোচিং সেন্টারগুলো খোলা রাখা হচ্ছে কিনা, সেদিকে নজর রাখতে র‌্যাব, ডিবি, সিআইডি ও পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তাদের অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দেয়া হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার সার্বিক কার্যক্রম তদারকি করতে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে ওভারসাইট কমিটি গঠিত হয়েছে। এই কমিটিতে সিনিয়র সাংবাদিক গোলাম সারোয়ার, নাইমুল ইসলাম খান, শিক্ষা বিশেষজ্ঞ ড. জাফর ইকবাল, কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, বিএসএমএমইউ ভিসি অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, বিএমএ'র বর্তমান ও সাবেক সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন ও অধ্যাপক ডা. মাহমুদ হাসান প্রমুখ রয়েছেন।
 
পূর্ববর্তী সংবাদ
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
শেষের পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin