চিত্রনায়ক ফেরদৌসকে ১০ প্রশ্নজীবনটা স্বচ্ছ দর্পণের মতোচিত্রনায়ক ফেরদৌস দুই বাংলার ছবিতে সমানতালে অভিনয় করে যাচ্ছেন। তবে শৈশব-কৈশোরে তার এ অঙ্গনে কাজ করার ইচ্ছে ছিল না। তারপরও ভাগ্য তাকে এ অঙ্গনে টেনে নিয়ে এসেছে। তার জীবনের নানা দিক নিয়ে 'তারার মেলা'র '১০ প্রশ্ন' বিভাগে কথা বলেছেন তিনি।আদিত্য রহমান চিত্রনায়ক ফেরদৌস১. জীবনের অভিজ্ঞতা
আমার কাছে জীবনটাকে স্বচ্ছ দর্পণের মতো মনে হয়। নিজেকে যেভাবে দেখতে চেয়েছি, আমি সেভাবেই নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছি। আমার ইমেজটাকে সব সময় মানুষের কাছে ইতিবাচক রাখার চেষ্টা করেছি। সাধারণত চলচ্চিত্রের মানুষদের নিয়ে অনেক ধরনের কথাবার্তা হয়। কিন্তু আমাকে নিয়ে কোনো সমালোচনা নেই। আমি নিজেও কোনোদিন বিতর্ক দিয়ে তারকা হতে চাইনি। আমি আমার যোগ্যতা, শিক্ষা_ সর্বোপরি কাজ দিয়ে লক্ষ্যে পেঁৗছাতে চেয়েছি।
২. ক্যামেরার সামনে
আমি ১৯৯৬ সালে 'পৃথিবী আমারে চায় না' ছবির মধ্য দিয়ে নায়ক হিসেবে প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়াই। এর পরের ছবিটি ছিল 'বুকের ভেতর আগুন'। এটি ছিল সালমান শাহের অসমাপ্ত ছবি।
৩. প্রথম পারিশ্রমিক
'পৃথিবী আমারে চায় না' ছবিতে কাজ করে আমি প্রথম পারিশ্রমিক পেয়েছিলাম। এতে আমাকে ২৫,০০০ টাকা পারিশ্রমিক দেওয়া হয়েছিল। প্রথম পারিশ্রমিক হাতে পাওয়ার আনন্দ এখনও মাঝে মধ্যে অনুভব করি। ছবিটির সাইনিং মানি পাওয়ার পর আমার আব্বার সঙ্গে দেখা করি। তিনি জানতে চাইলেন, এ টাকা দিয়ে কি করতে চাও? আমি বললাম, আমার রুমে একটা আলাদা টেলিভিশন লাগবে। তাই পারিশ্রমিকের কিছু টাকা দিয়ে রঙিন টিভি কিনি। বাকি টাকা দিয়ে আম্মার জন্য শাড়ি আর আব্বার জন্য অন্য একটা উপহারও কিনেছিলাম।
৪. প্রিয় শিক্ষক
হায়দার স্যার। আমি স্টুডেন্ট হিসেবে ভালো ছিলাম। কখনো আমার রেজাল্ট খারাপ হয়নি। ক্লাস ওয়ান থেকে ফোর পর্যন্ত আমার রোল এক থেকে তিনের মধ্যে ছিল। হাইস্কুলেও এক থেকে ১০ রোলের মধ্যেই ছিলাম।
৫. প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র
অন্য ছবির শুটিং আগে করলেও আমার অভিনীত 'হঠাৎ বৃষ্টি' ছবিটি প্রথম মুক্তি পেয়েছে। এতে আমার পারিশ্রমিক ছিল এক লাখ টাকা। ছবিটির জন্য প্রথমে আমাকে ৭৫ হাজার টাকা দেয়া হয়েছিল। পরে শুটিং শেষে আমাকে আরও ২৫ হাজার টাকা দেয়া হয়।
৬. হলে প্রথম দেখা চলচ্চিত্র
'জিঞ্জির' ছবিটি হলে গিয়ে প্রথম দেখেছি। ছবিটিতে রাজ্জাক সাহেব, আলমগীর সাহেব ও ববিতা অভিনয় করেছিলেন। অনেক তারকা বহুল ছিল ছবিটি। সোহেলা রানাও ছবিটিতে অভিনয় করেছিলেন। নারায়ণগঞ্জের একটি সিনেমা হলে আমার বড় ভাই জাকির দাদা ছবিটি দেখার জন্য আমাদের ভাইবোনদের নিয়ে গিয়েছিলেন। দাদা টিকিট ভুল কেটেছিলেন। তাই আমাদের হলে বসে নয়, দাঁড়িয়ে ছবিটি দেখতে হয়েছিল।
৭. শখ
ভিউকার্ড সংগ্রহ। এক সময় নিয়মিত শাবানা ও ববিতার আপুর ভিউকার্ড সংগ্রহ করতাম। তাদের খুব পছন্দ করতাম। এ ছাড়া অনেক নায়িকার ছবি পত্রিকা থেকে আমি কেটে নিজের কাছে রেখেছি।
৮. মুক্তির প্রতিক্ষায়
তপন সাহার 'ছেড়ে যাস না' ও 'কালের পুতুল' শিরোনামের ছবিগুলো মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এ ছাড়া আমার হাতে মিনহাজ অভির 'মেঘকন্যা', মৌসুমীর 'শূন্য হৃদয়', আনোয়ার সিরাজীর 'ভাবির আদর' ছবিগুলো রয়েছে।
৯. প্রযোজনায় অভিষেক
আমি তো মনেপ্রাণে একজন চলচ্চিত্রের মানুষ। আমার ভবিষ্যৎ সব পরিকল্পনাও চলচ্চিত্র নিয়ে। চলচ্চিত্র ছাড়া ভবিষ্যতে আমার পক্ষে অন্য কোনো কিছুই করা সম্ভব নয়। প্রযোজনাটা আসলে খুব দুরূহ কাজ। এ কথা জেনেও আমি প্রযোজনায় নেমেছি। আমার প্রযোজিত প্রথম ছবি 'এক কাপ চা'।
১০. মুক্তিযুদ্ধের ছবি
আমার প্রযোজিত দ্বিতীয় ছবি 'পোস্ট মাস্টার ৭১'-এর কাজ চলছে। মুক্তিযুদ্ধের গল্পে নিয়ে ছবিটি নির্মিত হচ্ছে। গত ডিসেম্বরে এটি মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু কাজ শেষ করতে না পারায় মুক্তি দিতে বিলম্ব হচ্ছে। অচিরেই ছবিটি মুক্তি দেব।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close