জাতীয় ভোটেও মানুষ তাদের প্রত্যাখ্যান করবে: আ'লীগযাযাদি রিপোর্ট খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফলাফল যারা প্রত্যাখ্যান করেছে, আগামী জাতীয় নির্বাচনে বাংলাদেশের মানুষ তাদের আবারও প্রত্যাখ্যান করবে বলে মন্ত্মব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
বুধবার রাজধানীর মিরপুরে মনিপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্ত্মব্য করেন।
কাদের বলেন, বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত ভোটে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন তালুকদার আবদুল খালেক। সবাই বলছে একটা ভালো নির্বাচন হয়েছে। দুই-একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে। শুধু একটা দল এর বিরোধিতা করছে, সেই দলটি বিএনপি। এই দলের নামই হচ্ছে মানি না, মানব না।
বিএনপির সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, 'এখন খুলনার জনগণ ভোট দিয়েছে খালেককে, তারা প্রত্যাখ্যান করেছে। প্রেস ব্রিফিং করে মিথ্যাচারের ভাঙ্গা রেকর্ড বাজানো আর বিদেশিদের কাছে নালিশ দেয়া ছাড়া তাদের করার কিছু নেই।'
তিনি বলেন, 'খুলনা সিটি নির্বাচন যারা প্রত্যাখ্যান করেছে, আগামী জাতীয় নির্বাচনে বাংলাদেশের জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করবে। জনগণের ভোট যারা প্রত্যাখ্যান করেছে, জাতীয় নির্বাচনে জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করবে।'
দুর্নীতি মামলায় দ-িত বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া আপিল বিভাগ থেকে জামিন পাওয়ায় এ অনুষ্ঠানে সেতুমন্ত্রী কাদেরের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন সাংবাদিকরা।
জবাবে কাদের বলেন, 'আদালত সাজা দিয়েছে, আদালত জেলে পাঠিয়েছে, আদালতই তাকে জামিন দিয়েছে। সেখানে আমাদের বলার কিছু নাই। তবে দুর্নীতির বিরম্নদ্ধে আমাদের অবস্থানের পরিবর্তন হবে না।'
বাংলাদেশের বিচারব্যবস্থা যে 'স্বাধীন', আপিল বিভাগের জামিনের রায়ে তা 'আবারও প্রমাণিত হলো' বলে দাবি করেন ক্ষমতাসীন দলের এই নেতা।
মনিপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি অধ্যাপক রাশেদা আক্তারের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে স্থানীয় সাংসদ কামাল আহম্মেদ মজুমদার অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।

ভোট ডাকাতির অভিযোগ
হমঞ্জুর মিথ্যাচার: খালেক

এদিকে খুলনা সিটি নির্বাচনে 'ভোট ডাকাতি' হয়েছে বলে বিএনপির পরাজিত মেয়রপ্রার্থী নজরম্নল ইসলাম মঞ্জু যে অভিযোগ করেছেন তাকে মিথ্যাচার বলেছেন বিজয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেক।
ভোটে হেরে বিএনপি এখন 'আবোল-তাবোল' বকছে বলেও মন্ত্মব্য করেছেন তিনি।
মঙ্গলবারের ভোটে জিতে পাঁচ বছর পর খুলনার মেয়র পদে ফেরা তালুকদার খালেক বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।
এর আগে সংবাদ সম্মেলন করে মঞ্জু খুলনায় ভোট ডাকাতির অভিযোগ তোলেন ক্ষমতাসীন দলের বিরম্নদ্ধে।
২৮৬ কেন্দ্রের ঘোষিত ফল অনুযায়ী, নৌকা প্রতীকে আবদুল খালেক পেয়েছেন ১ লাখ ৭৪ হাজার ৮৯১ ভোট। তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির নজরম্নল ইসলাম মঞ্জু ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ১ লাখ ৯ হাজার ২৫১ ভোট।
প্রায় ৫ লাখ ভোটারের এই সিটি করপোরেশনে মোট কেন্দ্র ছিল ২৮৯টি; অনিয়মের কারণে তিনটি কেন্দ্রের ভোট স্থগিত হয়। এই তিনটি কেন্দ্রে সর্বমোট ভোট ৫ হাজারের কিছু বেশি।
ভোটের পর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মঞ্জু অন্ত্মত একশ কেন্দ্রে ভোট জালিয়াতির অভিযোগ তুলে সেসব কেন্দ্রের ফল বাতিল করে পুনরায় নির্বাচন দেয়ার দাবি তোলেন।
এ প্রসঙ্গে তালুকদার খালেক বলেন, 'আমি শুনেছি তিনটি কেন্দ্রে কিছু সমস্যা হয়েছে, সেই তিনটি কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করা হয়েছে।
'তাই বলে একশত কেন্দ্রে আবার ভোট গ্রহণ করতে হবে এমন দাবি কেউ মেনে নেবে না। আগামী জাতীয় নির্বাচন ও নির্বাচন কমিশনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই তিনি এমন দাবি করেছেন।'
তিনি আরও বলেন, 'নির্বাচনে যদি তারা জয় লাভ করত তাহলে নির্বাচন ঠিক হতো আর এখন পরাজয় মেনে নিতে না পেরে তারা আবোল-তাবোল বকতে শুরম্ন করেছে। কিন্তু ২০১৩ সালের নির্বাচনে আমি তো পরাজিত হয়েছিলাম। কিন্তু কোনো কথা বলিনি।'
আওয়ামী লীগ বহিরাগতদের এনে কেন্দ্র দখল করেছে মঞ্জুর এ অভিযোগের জবাবে খালেক বলেন, '২০০১ সালে নজরম্নল ইসলাম মঞ্জুর সাথে চরমপন্থীদের সখ্যতা ছিল। তারাই নির্বাচনে তাদের ব্যবহার করেছে। কিন্তু তারা যখন চরমপন্থীদের সামলাতে পারেনি তখন আইন করে তাদের ধরে ক্রসফায়ারে দিয়েছে। আমরা সন্ত্রাসী ও চরমপন্থিদের বিরম্নদ্ধে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করব।'
খুলনা প্রেসক্লাবের লিয়াকত আলী মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে খালেক তার ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনাও জানান।
তিনি বলেন, 'খুলনা মহানগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনের কাজ যেখানে রেখে আমি মেয়র পদ ছেড়েছিলাম সেখান থেকেই আবার কাজ শুরম্ন করব। একই সাথে সততা, নিষ্ঠার সাথে কাজ করে দুর্নীতিমুক্ত খুলনা সিটি করপোরেশন উপহার দেব।'
খুলনা মহানগরীকে মাদকমুক্ত করতে সব প্রচেষ্টা চালানোর অঙ্গীকারও কয়েকবারের সংসদ সদস্য ও একবারের প্রতিমন্ত্রী খালেক।
খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হারম্ননুর রশিদ, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা এস এম কামাল হোসেন, নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাংসদ মিজানুর রহমান মিজান, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক শেখ সোহেল প্রমুখ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনের পরে তালুকদার আবদুল খালেক নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।
 
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মতামত দিতে এখানে ক্লিক করুন
প্রথম পাতা -এর আরো সংবাদ
অনলাইন জরিপ
অনলাইন জরিপআজকের প্রশ্নজঙ্গিবাদ নিয়ে মন্ত্রীদের প্রচারে আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে_ বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপনের এই বক্তব্য সমর্থন করেন কি?হ্যাঁনাজরিপের ফলাফল
আজকের ভিউ
পুরোনো সংখ্যা
2015 The Jaijaidin
close