logo
বৃহস্পতিবার ২৪ জানুয়ারি, ২০১৯, ১১ মাঘ ১৪২৫

  ডা. মোহাম্মাদ জহিরুল হক   ১৩ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০  

কেন খাবেন ডুমুর ফল

কেন খাবেন ডুমুর ফল
আশ্চযর্জনক ও বিস্ময়কর এক ফলের নাম ডুমুর বা ত্বীন ফল। স্বয়ং সৃষ্টিকতার্ পবিত্র কোরআনে যার বণর্না করেছেন। এর উপকারিতা সম্পকের্ মেডিকেল সায়েন্সে প্রমাণিত অনেক রিপোটর্ আছে। জেনে নিন এই ত্বীন বা ডুমুর ফল সম্পকের্ কোরআন ও মেডিকেল সায়েন্স কি বলে? ত্বীন ফলের উল্লেখ আছে পবিত্র কোরআনের সুরা ত্বীনে। এই বরকতময় ফলের নামেই নামকরণ করা হয়েছে এই সুরার। সুরা ত্বীনের ১-৪ নাম্বার আয়াতের অথর্Ñ “কসম ‘ত্বীন ও যায়তুন’ (ফল) এর, কসম ‘সিনাই’ পবের্তর, কসম এই নিরাপদ নগরীর, অবশ্যই আমি মানুষকে সৃষ্টি করেছি সবোর্ত্তম গঠন ও আকৃতিতে।”

আসুন এবার জেনে নেয়া যাক, কেন খাবেন ত্বীন বা ডুমুর ফল? ত্বীন ফল নারী-পুরুষের শক্তি বৃদ্ধি করে। ত্বীন ফলে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম রয়েছেÑ যা বøাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে রাখে। ডুমুর বা ত্বীন ফল রক্তে ক্ষতিকর সুগারের পরিবতের্ ন্যাচারাল সুগার তৈরি করে ব্যালান্স রক্ষা করে। এই ফল মারণব্যাধি ক্যান্সার থেকে রক্ষা করে। স¤প্রতি এক গবেষণায় জানা গেছে, ত্বীন ফল ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে। ফাইবারসমৃদ্ধ ত্বীন ফল খাদ্য তালিকায় রাখার ফলে ৩৪% নারীর মধ্যে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কম দেখা গিয়েছে। ত্বীন ফল চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়। শিশুদের দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে ত্বীন ফল একান্ত অপরিহাযর্। ত্বীন ফল শরীরের অপ্রয়োজনীয় মেদ বা চবির্ কমায়। হাটর্ অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায়। ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে। ইনসুলিনের ওপর নিভর্রশীল ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য ডুমুর বা ত্বীন ফল খুবই উপকারী। এ ছাড়া শরীরের ক্যালসিয়ামের শূন্যতা পূরণ করে এবং গভর্বতী মা ও শিশুর রক্তশূন্যতা রোধ করে। এটি ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়।

যারা শারীরিক দুবর্লতায় ভোগেন এমন ব্যক্তির জন্য ত্বীন ফল খুবই উপকারী। বিশেষ করে মুখ, জিভ বা ঠেঁাট ফাটার সমস্যা থাকলে তা নিরাময় করতে ডুমুর সাহায্য করে। প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকায় ডুমুর কোষ্ঠকাঠিন্য ও পাইলস প্রতিরোধে সহায়তা করে। ত্বীন ফল শারীরিক ও মানসিক ক্লান্তি দূর করতে সাহায্য করে। যাদের দুধ ও দুধের তৈরি খাবারে অ্যালাজির্ আছে তারা ক্যালসিয়ামের ঘাটতির পূরণের জন্য নিয়মিত ত্বীন ফল খান। কারণ এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। কঁাচা ডুমুর ফল চমের্রাগের ওষুধ হিসেবেও ব্যবহৃত হয়। থেঁতো করে ব্রণ ও মেছতায় নিয়মিত লাগালে তা সেরে যায়।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে