logo
শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০ ফাল্গুন ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ২৪ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০  

পুথিগত বিদ্যার বাইরে জ্ঞানার্জনের সুযোগ

পুথিগত বিদ্যার বাইরে জ্ঞানার্জনের সুযোগ
বিইউবিটিতে আন্তঃবিভাগ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় পুরস্কারপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা
মোহাম্মদ অংকন

সম্প্রতি বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজির (বিইউবিটি) ডিবেট ক্লাব আয়োজন করেছিল আন্তঃবিভাগ বিতর্ক প্রতিযোগিতা। গত ৬ জুলাই বিতর্ক প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন বিইউবিটি ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য এএফএম সরওয়ার কামাল। উদ্বোধনের পর বিইউবিটির ১১টি বিভাগের মোট ২০০ জন শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে বিতর্ক কর্মশালা হয় এবং তিনদিনব্যাপী বিতর্ক প্রতিযোগিতাগুলো অনুষ্ঠিত হয়। ৯ জুলাই বিতর্ক প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়া। তাকে ফুলেল শুভেচ্ছায় বরণ করে নেয় কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের মেধাবী শিক্ষার্থী ও 'ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি' কর্তৃক নির্বাচিত সেরা বিতার্কিক তানজিলা আহমেদ পিংকি। চূড়ান্ত পর্বের বিতর্ক পরিচালনা করেন ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়া। তিনি সমাপনী বক্তব্যে বলেন, 'দুর্নীতিবাজদের খুঁটির জোর কার কতটুকু সরকার তার তোয়াক্কা করে না। বরং তাদের আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। বাংলাদেশ থেকে দুর্নীতি অবশ্যই বন্ধ হতে হবে। দুর্নীতি দমনে সরকার জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে।' এ সময় তিনি শিক্ষার্থীদের দেশপ্রেমিক ও সুনাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, 'উচ্চশিক্ষা প্রসারে এবং জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও মাদক ঠেকাতে দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।' তিনি আরও বলেন, 'দেশ চালাতে যোগ্য লোকবলের প্রয়োজন। আর তাই যোগ্য লোকবল তৈরি করতে হলে মানসম্মত উচ্চশিক্ষাব্যবস্থার অবশ্যই প্রয়োজন, যারা দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়ে তুলবে। আমি মনে করি, বর্তমান সরকার দুর্নীতি দমনে আন্তরিক।'

ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়া 'বর্তমান সরকার দুর্নীতি দমনে অনমনীয়' বিষয়ের ওপর অনুষ্ঠিত বিতর্কে বিজয়ীদের হাতে ট্রফি তুলে দেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, বিইউবিটি ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. সফিক আহমেদ সিদ্দিক। তিনি বলেন, 'কালো টাকা কখনোই সাদা করা যায় না। ডাকাতির টাকা ট্যাক্স দিলেও সাদা হয় না। সরকারের উচিত এ ক্ষেত্রে 'অপ্রদর্শিত অর্থ' শব্দটি ব্যবহার করা।' সভাপতিত্ব করেন বিইউবিটির উপাচার্য প্রফেসর মো. আবু সালেহ। তিনি তারুণ্যের উদ্দীপনা ফিরিয়ে আনার পরামর্শ দেন শিক্ষার্থীদের। তিনি বলেন, 'তারুণ্যের শক্তির কাছে জঙ্গিবাদ ও মাদক, সন্ত্রাস ও দুর্নীতি কিছুই টিকতে পারে না। শুধু পুঁথিগত বিদ্যা দিয়ে সব কিছু অর্জন করা যায় না।' স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিইউবিটির ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা প্রফেসর মিঞা লুৎফর রহমান। কর্মশালা পরিচালনা করেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সুপ্রিম কোর্টের বর্তমান আইনজীবী অমিত দাশ গুপ্ত। বিতর্ক প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয় বিইউবিটির আইন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। রানার আপ হয় বিবিএর শিক্ষার্থীরা। সেরা বিতার্কিক নির্বাচিত হয় আইন বিভাগের কথামিত্র। বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউবিটি) বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ধরনের কর্মশালা, সেমিনার ও কালচারাল প্রোগ্রামের আয়োজন করে থাকে। তার মধ্যে বিতর্ক প্রতিযোগিতা অন্যতম।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে