logo
রোববার ২১ জুলাই, ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

  মোফাজ্জল হোসেন জামান   ১৮ জুন ২০১৯, ০০:০০  

এই সুন্দর রাত!

এই সুন্দর রাত!
রাত এখনও ভোর হয়নি। তবুও কেন জানি আজ মাঝ রাতেই ঘুম ভেঙে গেছে আমার। বিছানা থেকে উঠে রুমের ভেতর কিছুক্ষণ পায়চারি করে, এক গস্নাস পানি খেয়ে আবার শুয়ে পড়লাম। মনে হচ্ছে ঘুম আমার চোখের সঙ্গে দিয়েছে আড়ি! আবার বিছানা ছেড়ে উঠে পড়লাম। পা বাড়ালাম বেলকনির দিকে। বেলকনিতে যাওয়া মাত্রই আমার ঘুম হারানো চোখের দৃষ্টি চলে যায় আকাশের দিকে। আমি তখন অবাক হয়ে গেছি মাঝ রাতের সৌন্দর্য দেখে! কারণ, মাঝ রাতের এত সৌন্দর্য আগে কখনও দেখিনি। আকাশের তারাগুলো জ্বলছে আর জ্বলেছে। তার সঙ্গে মনে হচ্ছে পূর্ণিমার চাঁদটা আমার দিকে যেন এক পলকে তাকিয়ে আছে। ওই আকাশের চাঁদটাকে দেখেই মনে হচ্ছে, চাঁদের বুকে যেন জমে আছে হাজারও ভালোবাসা, হাজারও না বলার কথা। চারদিকে জোনাকিরা উড়া-উড়ি করছে। বাগান থেকে কাঁঠালি চাঁপা ফুলের গন্ধ দক্ষিণা বাতাসে আমার রুমে পৌঁছে দিচ্ছে। আর আমি কাঁঠালি চাঁপা ফুলের গন্ধ পেয়ে বুক ভরে নিঃশ্বাস নিচ্ছি। তার সঙ্গে জোনাকিদের মতো উড়ে উড়ে কোথায় যেন হারিয়ে যাচ্ছি তো হারিয়ে যাচ্ছি! হঠাৎ মোবাইলে বেজে উঠল ছোট্ট একটা শব্দ... টুং-টাং। আমি নিজের মধ্যেই একটা ধাক্কা খেলাম। আর খানিক সময়ের মধ্যেই হারিয়ে যাওয়া স্বপ্নের শহর থেকে ফিরে এলাম। চোখ ফিরালাম মোবাইলের দিকে। মোবাইলের স্কিনের তাকিয়ে দেখি আছিয়ার মেসেজ। শুধু মাত্র কয়েকটা শব্দে লিখা। জামান, তুমি কি এই তারা ভরা রাতে এখনও জেগে আছ? আমি আছিয়ার মেসেজটা দেখে চমকে উঠলাম! কিভাবে যে বোঝলো জেগে আছি আমি, ভাবতেই পারিনি! আমি আর আছিয়ার মেসেজের উত্তর দিতে পারিনি। মোবাইল হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছি। আর মনে মনে ভাবছি। আমার মনে হয় এটা রসায়নের টান, ভালোবাসার টান, হৃদয়ের টান, আবেগের টান। আছিয়ার সঙ্গে আমার অনেকগুলো বছর কেটে গেল। যত দিন যাচ্ছে আছিয়ার প্রতি তত আমার ভালোবাসা বৃদ্ধি পাচ্ছে, আছিয়াও আমার প্রতি। আমার হৃদয় জুড়ে শুধু আছিয়ার অস্থিত্ব। জোনাকিরা যেমন রাতের আশায় থাকে, কোকিল যেমন বসন্তের আশায় থাকে, নদী যেমন বর্ষার আশায় থাকে, ঠিক আমিও প্রতিটা সেকেন্ড, প্রতিটা মিনিট, প্রতিটা ঘণ্টা, প্রতিটা দিন, প্রতিটা সপ্তাহ, প্রতিটা মাস, প্রতিটা বছর আছিয়ার আশায় আছি। এই তারা ভরা রাত, পূর্ণিমার চাঁদ, নির্মল বাতাস, এক আকাশ ভালোবাসা নিয়ে আমি আর আছিয়া সুন্দর একটি পৃথিবী তৈরি করব। যেখানে থাকবে না আমি আর আছিয়া ছাড়া অন্য কোনো মানুষ। যেখানে থাকবে শুধু আমার ভালোবাসা, আছিয়ার হৃদয় জুড়ে ও আছিয়ার ভালোবাসা, আমার হৃদয় জুড়ে। এই কথাগুলো ভাবতে ভাবতে ভুলেই গিয়েছিলাম সুন্দর চাঁদটির কথা, জোনাকির কথা, কাঁঠালি চাঁপা ফুলটির কথা। কেনই-বা ভুলবো না! ওই চাঁদ, জোনাকি, কাঁঠালি চাঁপা ফুলের চেয়ে বহুগুণ সুন্দর আমার আছিয়ার প্রিয় মুখ। কথাগুলো ভাবতে ভাবতে রাত অনেকটা কেটে গেল। ভোর হতে আরও অনেক সময় বাকি। তবুও ঘুম নেই চোখে। ঘুম কী আর আসে, আছিয়ার মুখের কথা মনে হলে! এই জ্যোৎস্নার রাতের মতনই আছিয়ার প্রিয় মুখ। অন্ধকারের মধ্যে আছিয়া যেদিকে হেঁটে যায়, সেই দিকেই জ্যোৎস্নার আলোর মতো আলোকিত হয়ে যায়। যেন জ্যোৎস্নাকে হার মানাবে। পৃথিবীতে এত সুন্দর মুখ থাকতে পারে আমার জানা নেই, এত মিষ্টি করে কেউ হাসতে পারে আমার জানা নেই, এত সুন্দর করে কেউ কথা বলতে পারে আমার জানা নেই, এত সুন্দর করে কেউ পথ চলতে পারে আমার জানা নেই। যা আছিয়াকে দেখে বোঝলাম। আছিয়া পৃথিবীর সবার থেকে আলাদা। আছিয়ার সৌন্দর্য মোনালিসাকেও হার মানাবে! হঠাৎ আমার শরীর শিহরণ দিয়ে উঠল।

যৌবনের এক টান টান উত্তেজনার ভাব। মনে হচ্ছে পাগল হয়ে যাব আমি। সারা শরীরে যেন ঘূর্ণিঝড় ফণী বয়ে যাচ্ছে! যৌবনের কী যে কষ্ট একমাত্র তারাই বোঝে, যারা ভালোবাসার যৌবনে পা রেখেছে। আজ আমার মনে হচ্ছে। যে জন যৌবনে পুড়েছে একবার। সে জন যৌবনে পুড়িতে চাই বারবার। মনে হচ্ছে, যদি শরীর থেকে একটু ভালোবাসার বৃষ্টি ঝরাতে পারতাম। তাহলে, হয়তো এক আকাশ ভালোবাসার সুখ পেতাম। তত ক্ষণে আমার সারা শরীর ভিজে গেছে ঘামে। এরই মধ্যে আবার শুরু হয়েছে দক্ষিণা বাতাস। সে বাতাসের সঙ্গে আস্তে আস্তে আমার শরীরও শীতল হচ্ছে। আর বাতাসের সঙ্গে বাগান থেকে কাঁঠালি চাঁপা ফুলের গন্ধ ভেসে আসচ্ছে। আর আমি বুক ভরে নিঃশ্বাস নিয়ে দীর্ঘশ্বাস ছাড়ি। এভাবেই নিঃশ্বাস নেয়া এবং ছাড়ার মধ্যেই কখন যে, ভালোবাসার এই সুন্দর রাত ভোর হয়ে গেল বোঝতেই পারিনি।

হায়রে যৌবন...... হাই ভালোবাসা......এমনি করে হারিয়ে যায় এক সময়.... এটাই প্রকৃতির নিয়ম।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে