logo
মঙ্গলবার ১৬ জুলাই, ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ২১ মে ২০১৯, ০০:০০  

সংবাদ সংক্ষেপ

বন্দিদের জন্য জুমার

নামাজের ব্যবস্থা

য় আইন ও বিচার ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুযায়ী যার যার ধর্ম স্বাধীনভাবে সে সে পালন করবে। এমনকি যারা জেলে রয়েছে তারাও ধর্ম পালনে স্বাধীন। যুক্তরাষ্ট্রের জেলগুলোতে ধর্ম পালনের নানা সুবিধা রাখা হয়েছে বন্দি বা কয়েদিদের জন্য।

আর্লিংটনের একটি ডিটেনশন সেন্টারে ওংষধসরপ ঈরৎপষব ড়ভ ঘড়ৎঃয অসবৎরপধ মুসলিম কয়েদিদের সব ধর্মীয় আচার পালনে সহায়তা করে। জেল কর্মকর্তারা জানান এখানকার কয়েদিদের বেশির ভাগই ছোটখাটো অপরাধের কারণে বন্দি। একজন নারী কয়েদি বলেন, 'এই সুবিধার কারণে আমি আমার বিশ্বাসের প্রতি অবিচল থাকছি। আমার মন ভালো থাকছে'।

ডিটেনশন সেন্টারের প্রোগ্রাম ম্যানেজার ক্রিস্টেন কেন বলেন এখানে নামাজ ও নানা ধর্মীয় আচার পালনের জন্য মুসলিম স্কলার দরকার মনে করেই স্থানীয় ইসলামিক সেন্টারে যোগাযোগ করেন। তারপর থেকে ওংষধসরপ ঈরৎপষব ড়ভ ঘড়ৎঃয অসবৎরপধ (ড়ৎ ওঈঘঅ ) ২০১৭ সাল থেকে গঁংষরস চৎরংড়হবৎ ঝঁঢ়ঢ়ড়ৎঃ চৎড়লবপঃ নামে একটি প্রকল্প শুরু করে। তারপর ১২টি কারেকশনাল কেন্দ্রে স্বেচ্ছাসেবীরা শুক্রবারের জুমার নামাজ পড়াচ্ছেন। ইসলামী শিক্ষা দিচ্ছেন কয়েদি বা বন্দিদের।

আর্লিংটন কাউন্টির এই ডিটেনশন সেন্টারের এক বন্দি শন ডায়সন গত বছর মুসলমান হয়েছেন। তিনি বলেন এই সেবার কারণে তিনি কৃতজ্ঞ, 'একজন নতুন মুসলিম হিসেবে এই বিষয়টি আমার জন্য খুবই সহায়ক। শুক্রবার জুমার নামাজ পড়তে পারছি, ইসলামিক নানা বিষয়ে জ্ঞান লাভ করছি'।

গত বছর ১০০ বন্দি রমজান পালন করেন। স্বেচ্ছাসেবী এবং এই প্রকল্পের ব্যবস্থাপকরা আশা করছেন এই প্রকল্পটি যুক্তরাষ্ট্রের সর্বত্র চালু হবে।

যুক্তরাষ্ট্রে ইউটিউব

তারকার কারাদন্ড

য় আইন ও বিচার ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোর একটি আদালত এক ইউটিউব তারকার ১০ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে। তার বিরুদ্ধে অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়ে শিশুদের যৌন উত্তেজক ভিডিও তৈরি করতে উৎসাহিত করার অভিযোগ রয়েছে। অস্টিন জোনস গান গেয়ে ভিডিও প্রস্তুত করে অনলাইনে প্রকাশ করতেন। তার ভক্তরা মূলত টিনএজ মেয়ে।

২০১৭ সালে অস্টিনকে গ্রেপ্তার করা হয়। ২০১৯ সালের শুরুতে তিনি এই ঘটনায় তার অপরাধ স্বীকার করেন।

ছয়টি মেয়ের কাছ থেকে এ ধরনের ভিডিও আনার কথা অস্টিন স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছেন মামলার আইনজীবী। আরও ৩০ জন মেয়েকে অন্যদের কাছ থেকে এমন ভিডিও আনতে বলার কথাও স্বীকার করেছেন অস্টিন।

১০ মে এক ফেডারেল আদালতের বিচারক ২৬ বছর বয়সি এই ইউটিউবারকে ১০ বছরের সাজা দিয়েছেন। অপরাধের প্রকৃতি অনুযায়ী ৫ থেকে ২০ বছরের সাজার বিধান রয়েছে আইনে। অস্টিনের পাঠানো বিভিন্ন টেক্সট ম্যাসেজের সূত্র ধরে আইনজীবীরা তার অপরাধ প্রমাণ করতে সমর্থ হয়েছেন। তারা জানিয়েছেন, অস্টিন অডিশনের কথা বলে মেয়েদের এমন কাজে প্রলুব্ধ করতেন।

আইনজীবীরা জানান, ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার ব্যবহার করে ১৪-১৫ বছর বয়সি মেয়েদের সঙ্গে অস্টিনের এমন আলাপচারিতার তথ্য কর্তৃপক্ষ 'ন্যাশনাল সেন্টার ফর মিসিং অ্যান্ড এক্সপস্নয়টেড চিলড্রেন'-কে জানিয়েছে। অস্টিনের আইনজীবী অবশ্য সাজা কমিয়ে পাঁচ বছর করার আবেদন জানিয়েছিলেন। আদালতে তারা দাবি করেন, অস্টিন বিষণ্নতা ও অন্যান্য মানসিক সমস্যায় ভুগছেন।

টিকা না দিলে ২৫০০

ইউরো জরিমানা

য় আইন ও বিচার ডেস্ক

বাচ্চাদের হামের টিকা না দিলে বাবা-মায়ের জন্য আড়াই হাজার ইউরো জরিমানার বিধান রেখে আইনের প্রস্তাব করেছেন জার্মান স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইয়েনস স্পান। হাম রোগ সমূলে উৎপাটন করার কথা বলছেন রক্ষণশীল এই আইনপ্রণেতা। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর প্রস্তাবিত ওই আইনে বলা হয়, যেসব বাবা-মা বাচ্চাদের হামের টিকা দেয়ার বিরোধিতা করবেন, তাদের ২৫০০ ইউরো জরিমানা গুনতে হবে। পাশাপাশি তাদের সন্তানদের কিন্ডারগার্টেন থেকে বের করে দেয়া হতে পারে।

৯৩ শতাংশ শিশু টিকার আওতায় রয়েছে বলে জার্মানির রবার্ট কোখ ইনস্টিটিউটের তথ্য, যদিও এটা প্রত্যাশিত ৯৫ শতাংশ থেকে কম। স্পান বলছেন, কিন্ডারগার্টেনে নিষেধাজ্ঞা একেবারে খুদে বাচ্চাদেরও রক্ষা করতে সহায়তা করবে।

জার্মানিতে প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষা বাধ্যতামূলক হওয়ায় টিকাবিহীন শিশুদেরও স্কুলের বাইরে রাখার সুযোগ নেই। সে কারণে তাদের বাবা-মায়েদের জরিমানা করার চিন্তা করা হচ্ছে। এদিকে, নবজাতকদের পাশাপাশি এমন কিছু শিশুও আছে, লিউক্যামিয়াসহ বিভিন্ন কারণে যাদের টিকা দেয়া সম্ভব হয় না। এই শিশুদের টিকার বাইরে রাখার জন্য বাবা-মায়েদের তাদের ডাক্তারি পরীক্ষার প্রমাণ দিতে হবে।

হাসপাতাল ও প্রাইভেট মেডিকেলের কর্মীদের সন্তানদের জন্যও হামের টিকা দেয়ার বিষয়ে বাধ্যবাধতা আরোপ করা হচ্ছে। মন্ত্রিসভায় আলোচনার পর্যায়ে রয়েছে এই আইন। চলতি বছর আইনটি পাস এবং ২০২০ সাল থেকে কার্যকর হতে পারে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে