logo
শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

সংবাদ সংক্ষেপ

পরিবেশ আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে ছট পূজা

য় আইন ও বিচার ডেস্ক

প্রতিমা নিরঞ্জন, ছট পুজো ইত্যাদি জলাশয়কেন্দ্রিক আচার-অনুষ্ঠানের ফলে যে দূষণ ছড়ায়, তা নিয়ে বহুদিনই সরব পরিবেশকর্মীরা। সেই প্রতিবাদকে মান্যতা দিয়ে বিভিন্ন ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান উপলক্ষে জলদূষণ রুখতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে জাতীয় পরিবেশ আদালত। দুর্গা প্রতিমার বিসর্জনের ক্ষেত্রেও সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে।

হিন্দিভাষীদের উৎসব ছট উপলক্ষেও রবীন্দ্র সরোবরের সীমানায় বিশেষ সতর্কতা টাঙানো হয়েছিল। পুলিশ মোতায়েন থাকারও কথা ছিল। কিন্তু ছট পুজোর দিন পরিবেশ আদালতের নির্দেশকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে প্রতিবারের মতো সাড়ম্বরে উৎসব পালিত হলো। জলে নেমে এবং জলাশয়ের পাড়ে প্রায় ২০ হাজার মানুষের পুজো-অর্চনা চলল দিনভর।

পুলিশের সামনেই সরোবরের সাতটি গেটের তালা ভাঙা হলো। ১৮টি গেটে কোনো পুলিশের দেখা মেলেনি। এমনকি ছট পুজোর জন্য রবীন্দ্র সরোবরের বিকল্প জলাশয়ের ব্যবস্থা করতে কলকাতা মেট্রোপলিটন ডেভেলপমেন্ট অথরিটির (কেএমডিএ) তরফে ৩৯ লাখ টাকা খরচ হচ্ছে বলে আদালতে হলফনামাও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এত টাকা খরচ করেও 'দক্ষিণ কলকাতার ফুসফুস' বলে পরিচিত রবীন্দ্র সরোবর দূষণের কবলে পড়ে।

চোখের সামনে কার্যত বিনা বাধায় সরোবরকে দু্যতি হতে দেখে ক্ষিপ্ত পরিবেশকর্মীরা। তাদের বক্তব্য, ধর্মীয় ভাবাবেগের দোহাই দিয়ে নিজেদের অকর্মণ্যতা ঢাকতে চাইছে প্রশাসন। অতীতে বায়ুদূষণ রোধে ব্যর্থ প্রশাসন আদালতের রায়ে জরিমানার মুখে পড়েছিল। এবারেও যে বড় জরিমানার মুখে পড়বে রাজ্য, তাতে সন্দেহ নেই।

জার্মানিতে ইমামদের ভাষাজ্ঞানের প্রমাণের জন্য নতুন আইন

য় আইন ও বিচার ডেস্ক

ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাইরে থেকে জার্মানিতে আসা ধর্মীয় নেতারা জার্মানিতে থাকতে চাইলে জার্মান ভাষা বলার দক্ষতা অর্জন করতে হবে। সব ধর্মের ক্ষেত্রেই এই আইন প্রযোজ্য হবে। তবে মন্ত্রিসভায় উত্থাপিত এই খসড়া আইনে বিশেষভাবে ইসলাম ধর্মের কথা উলেস্নখ করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র। তিনি বলেন, 'বিদেশি ইমামরা জার্মান বলতে পারবেন বলে আমরা আশা করি।'

জার্মানির বর্তমান শ্রম আইনে দাতব্য কিংবা ধর্মীয় কাজের জন্য ভিসা ইসু্য করতে কোনো শর্ত আরোপ করা নেই। খসড়া আইনে এই ব্যবস্থায় পরিবর্তন আনার প্রস্তাব করা হয়েছে। এটি পাস হলে বিদেশি ধর্মীয় নেতাদের জার্মানিতে আসার এক বছরের মধ্যে পরিবার, কেনাকাটা, কাজের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে জার্মান ভাষায় আলোচনা করার দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

খসড়া আইনে বলা হয়েছে, ধর্মীয় কারণে নেতারা তাদের সম্প্রদায়ে প্রায় সময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।

জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফার বলেছেন, সফলভাবে অভিবাসনের জন্য জার্মান ভাষায় দক্ষতা অর্জন করা অপরিহার্য। সবুজ দলের আইনপ্রণেতা ফিলিৎস পোলাট খসড়া আইনের সমালোচনা করেছেন। তিনি বলেন, এটি পাস হলে ইমাম স্বল্পতার বিষয়টি আরও বেড়ে যাবে।

বর্তমানে জার্মানিতে প্রায় দুই হাজার মসজিদ রয়েছে। প্রায় ৯০ শতাংশ ইমাম বিভিন্ন দেশ থেকে এসেছেন। জার্মানির অনেক ক্যাথেলিক ও প্রোটেস্টান্ট গির্জায়ও ইইউর বাইরের যাজকরা কাজ করছেন।

জাপানে কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে নারীদের চশমা পরায় নিষেধাজ্ঞা

য় আইন ও বিচার ডেস্ক

জাপানের কয়েকটি প্রতিষ্ঠান কাজ করার সময় নারীকর্মীদের চশমা পরতে নিষেধ করা হয়েছে- এমন খবর প্রকাশিত হওয়ার পর দেশটির সামাজিক মাধ্যমে সমালোচনার জন্ম দিয়েছে।

বেশ কয়েকটি স্থানীয় সংবাদমাধ্যম খবর প্রকাশ করেছে, কয়েকটি প্রতিষ্ঠান বিবিধ কারণে নারী কর্মীদের চশমা পরায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। তাদের মধ্যে কয়েকটি রিটেইল প্রতিষ্ঠান মনে করে, চশমা পরলে দোকানের নারী কর্মীদের মুখভঙ্গি অপেক্ষাকৃত বেশি কঠোর মনে হয়। এর পরই নারীদের কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ এবং পোশাক পরার রীতির বিষয়ে জাপানের সামাজিক মাধ্যমে আলোচনার সৃষ্টি হয়।

জাপানে এয়ারলাইনে কর্মরত নারীদের জন্য নিরাপত্তার খাতিরে চশমা পরায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। আবার বিউটি পার্লার বা প্রসাধন প্রতিষ্ঠানের মতো জায়গায় কাজ করা নারীদের জন্য চশমা না ব্যবহারের অজুহাত হলো, চশমা পরলে তারা ঠিকমতো মেকআপ দেখতে পারবে না।

তবে এ ধরনের নিষেধাজ্ঞা প্রতিষ্ঠানের নীতির কারণে নেয়া হয়েছে নাকি সামাজিক ধ্যান-ধারণার ওপর ভিত্তি করে কার্যকর করা হয়েছে, সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

কিন্তু কারণ যাই হোক, এ বিষয়টি সামাজিক মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে