logo
বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০, ২৫ চৈত্র ১৪২৫

  অনলাইন ডেস্ক    ১৪ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

সংবাদ সংক্ষেপ

মিথ্যা মামলা করায় বাদীর জেল-জরিমানা

য় আইন ও বিচার ডেস্ক

ফেনীর আদালতে মিথ্যা মামলা ও প্রতিপক্ষকে অন্যায়ভাবে হয়রানির অভিযোগে মামলার বাদী আবদুল খালেককে (৬০) দশ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে এক হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে আরও তিন দিনের কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আদালতের বিচারক মো. জাকির হোসাইন এ রায় দেন।

আদালত সূত্র জানায়, গ্রামের জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ঘর পোড়া ও মারামারির ঘটনা দেখিয়ে ২০১১ সালের ১৯ ডিসেম্বর আবদুল খালেক ফেনীর আমলি আদালতে একটি মামলা করেন। এতে প্রতিপক্ষের ১১ জনকে আসামি করা হয়। একই ঘটনা দেখিয়ে আবদুল খালেকের মেয়ে মর্জিনা আক্তার ওই বছর ২২ ডিসেম্বর ৬ জনকে আসামি করে আরও একটি মামলা করেন। কিছুদিন আগে মর্জিনা আক্তারের মামলায় রায়ে আসামিদের সবাইকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

আবদুল খালেকের করা মামলায় উভয়পক্ষের শুনানির ভিত্তিতে মামলার বাদীকে ১১ জন আসামির বিরুদ্ধে তথ্য গোপন করে একই ঘটনাকে দেখিয়ে পৃথক মামলা করা, আদালতে মিথ্যা তথ্য প্রদান করা এবং আসামিদের দুটি মামলায় দীর্ঘদিন ধরে হয়রানি করায় ফৌজদারি আইনের ধারায় ১০ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড ও এক হাজার টাকা জরিমানা করেন, অনাদায়ে আরও তিন দিনের কারাদন্ডের আদেশ দেন।

আদালত রায় পর্যালোচনায় বলেন, অভিযোগকারী আবদুল খালেক ইচ্ছাকৃতভাবে আসামিদের হয়রানি করার উদ্দেশ্যে একই ঘটনাকে দেখিয়ে দুটি পৃথক মিথ্যা মামলা করায় এবং ওই অভিযোগ অস্বীকার করায় দৃষ্টান্ত হিসেবে এ সাজা দেওয়া হয়।

এবার হাইকোর্টে তালিকাভুক্তিতে যুক্ত হলো এমসিকিউ

য় আইন ও বিচার ডেস্ক

বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে আইনজীবী হিসেবে প্রাকটিস করতে তালিকাভুক্তির জন্য প্রিলিমিনারি পরীক্ষা দিতে হবে। এর আগে কেবল লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার রেওয়াজ থাকলেও এবার এমসিকিউ যুক্ত করা হয়েছে। আইনজীবীদের সনদ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ও দেশের আইন পেশার সর্বোচ্চ সংস্থা বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সংক্রান্ত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বার কাউন্সিলের ভারপ্রাপ্ত সচিব আফজাল-উর রহমান স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সবার অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে পরবর্তী হাইকোর্ট পারমিশন পরীক্ষায় এমসিকিউ যুক্ত করা হয়েছে। ১০০ নম্বরের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে প্রার্থীকে নূ্যনতম ৫০ নম্বর পেতে হবে। প্রিলিমিনারি পরীক্ষার সময় ১ ঘণ্টা।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, ১৯৭২ সালের বাংলাদেশ বার কাউন্সিল অর্ডারের আর্টিকেল ২১(১) এবং ৬৫এ(ঝ) ধারা অনুযায়ী সনদপ্রাপ্ত যে সব অ্যাডভোকেটের বৈধ রেজিস্ট্রেশন কার্ড রয়েছে তারা প্রিলিমিনারি পরীক্ষার জন্য ফরম পূরণ করতে পারবেন।

গোরুর বিয়ে দেবে মধ্যপ্রদেশ সরকার

য় আইন ও বিচার ডেস্ক

এবার 'গোকন্যা'দের বিয়ে দেবে ভারতের মধ্যপ্রদেশ সরকার। আর তার জন্য বিবাহযোগ্য ষাঁড়ের খোঁজ করা শুরু হয়ে গেছে। দেশটির মধ্যপ্রদেশের অ্যানিমাল হাসব্যানড্রি দপ্তর এরই মধ্যে ১৬টি প্রজাতির ২০০টি ষাঁড়েরও খোঁজ পেয়ে গেছে। যাদের সঙ্গে বিয়ে দেয়া হবে দেশি গরুর। কৃষকরাই তাদের পোষ্য গরুর জন্য বিবাহযোগ্য পাত্র অর্থাৎ ষাঁড় খুঁজে নিতে পারবেন। শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। বিবাহযোগ্য ষাঁড়ের তালিকা সাজিয়ে রাখার জন্য একটি ওয়েবসাইটও খোলা হয়েছে, পংংনযড়ঢ়ধষ.পড়স।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর, যে ষাঁড়দের বেছে নেয়া হয়েছে, তাদের ছবিসহ সব তথ্য অর্থাৎ তাদের কোনো জিনগত বিকৃতি আছে কিনা, সবকিছু। এমনকি সেই ষাঁড়েদের 'সিমেন'ও সংগ্রহ করা হয়েছে। সেই তথ্য দেখেই কৃষকরা ঠিক করবেন, তাদের পোষ্য গরুর জন্য কোন পাত্র উপযুক্ত। বেশির ভাগ প্রজাতির ষাঁড়ই নাকি বিদেশি।

মধ্যপ্রদেশ পশুপালন ও পোল্ট্রি উন্নয়ন করপোরেশনের কর্মকর্তা ড. এইচবিএস ভাদুরিয়া জানান, 'আমরা ১৬টি প্রজাতির ২০০টি ষাঁড়ের সিমেন সংগ্রহ করেছি। ওয়েবসাইটে ষাঁড়দের সম্পর্কে সব তথ্য দেয়া আছে।'
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে