logo
রোববার ২০ জানুয়ারি, ২০১৯, ৭ মাঘ ১৪২৫

  ছবি ঘোষ   ০৭ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০  

একাকিত্ব থেকে সরে আসতে হবে

একাকিত্ব থেকে সরে আসতে হবে
একটি পরিস্থিতির কথা তুলে ধরি। ধরুন, আপনি বাসায় বসে ফেসবুক বা ইন্সটাগ্রাম চালাচ্ছেন। এমন সময় দেখলেন, আপনার পরিচিত কয়েকজন বন্ধু কোথাও ঘুরতে গিয়েছে আর সেই ছবিগুলো ফেসবুকে বা ইন্সটাগ্রামে দিয়েছে। আপনার তখন কেমন লাগবে? নিশ্চয়ই মনে হবে যে, ইশ, আমিও যদি যেতে পারতাম তাদের সঙ্গে! অথবা তারা আমাকে না জানিয়ে ঘুরতে গেল! এমনটা আমাদের সবার সঙ্গেই কমবেশি হয়েছে। এমন হতেই পারে যে, আপনি কোনো এক ব্যস্ততার জন্য আপনার বন্ধুদের সঙ্গে সময় দিতে পারেননি। কিন্তু তারপরও আমাদের মধ্যে কেমন যেন একটা অনুভ‚তি কাজ করে। নিজেকে একা একা মনে হয়। এর নামই হলো একাকিত্ব।

এখানে তো কেবল একটি উদাহরণ দেখালাম। এমনও হতে পারে যে, সম্প্রতি আপনার প্রিয়জনের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়েছে কিংবা আপনি আপনার পরিবার-প্রিয়জনদের ছেড়ে দূরে কোথাও একা থাকতে বাধ্য হচ্ছেন। তখনও এই একাকিত্বের অনুভ‚তিটা চলে আসে। আজকে আসুন এই একাকিত্ব সামলানোর কিছু উপায় নিয়েই আলোচনা হয়ে যাক।

শুরুতেই বলে রাখা উচিত, একাকিত্ব অনুভ‚ত হওয়া আর একা একা থাকা কিন্তু এক জিনিস নয়। আপনার বেশ ভালো কয়েকজন বন্ধু আছে, আপনি একটি গোষ্ঠীর সঙ্গে থাকেন। কিন্তু তারপরও আপনার মনে একাকিত্ব আসতে পারে। কারণ হয়তো আপনার সবার সঙ্গে সম্পকর্ এতটা ঘনিষ্ঠ না। আবার এমন ঘটনাও হতে পারে যে, আপনাকে সবসময় একা একা দেখা যায়। আপনি পরিবার থেকে অনেক দূরে থাকেন ঠিকই, কিন্তু আপনি আপনার পরিবারের সঙ্গে প্রতিদিন কথা বলে অনেক ভালো সময় কাটান। আপনার মনের হাসি-কান্নার কথা প্রকাশ করার মতো লোক হয়তো আপনার পাশেই আছে। এখানে আপনি একাকিত্ব অনুভব নাও করতে পারেন। অথবা এমনটাও হতে পারে যে, আপনি একা থাকতেই পছন্দ করেন। যা-ই হোক, আসল কথা হলো, একা থাকা আর একা অনুভব করা এক জিনিস নয়।

এখন আসা যাক একাকিত্বের বিষয়টিতে। এটি এমন একটি অনুভ‚তি, যা আপনাকে সামাজিক যোগাযোগ বৃদ্ধি করার জন্য বা বন্ধুমহল খুঁজে বের করার জন্য আকৃষ্ট করবে। সাধারণত বয়স্কদের মধ্যে এই জিনিসটি অধিক দেখা যায়। তবে সম্প্রতি ১৬-২৪ বছর বয়সীদের মধ্যেও এই একাকিত্বের অনুভ‚তিটি বেশ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কারণটাও খুবই স্বাভাবিক। এই বয়সের মধ্যেই সাধারণত পড়ালেখা কিংবা কমের্ক্ষত্র খুঁজে বের করার জন্য আমরা পরিবার ছেড়ে দূরে কোথাও বাস করি। আবার বতর্মান সময়ে এই বয়সেই অনেকের মধ্যে সম্পকর্ বিচ্ছেদের মতো ঘটনা ঘটে। এগুলো খুব সহজেই আপনাকে একাকিত্বের দিকে ঠেলে দিতে পারে। কারণ হঠাৎ করেই আপনি আশপাশে আপনার আপনজনদের দেখতে পাবেন না।

একটা বিষয় খেয়াল করেছেন কি? আমাদের যখন খুব ক্ষুধা লাগে, তখন যে কোনো খাবারই আনা হোক না কেন, তা আমাদের কাছে খেতে অনেক মজার মনে হয়। ঠিক তেমনি যারা একাকিত্বের মধ্যে থাকে, তারা আশপাশে একজন বন্ধু পেলেই তার সঙ্গে দিনের পুরোটা সময় কাটিয়ে দিতে চায়। এটা হলো বন্ধুমহলের প্রতি একটি আকষর্ণ, যা আপনি চাইলেই উপেক্ষা করতে পারবেন না।

এবার আসি একাকিত্ব আমাদের শারীরিকভাবে এবং মানসিকভাবে কি কি ক্ষতি করতে পারে, তা নিয়ে। আমরা যারা একাকিত্বের মধ্য দিয়ে গিয়েছি, প্রায় সবাই হয়তো লক্ষ্য করেছি, যখন নিজেকে খুব একা একা মনে হয়, তখন যেন শরীরে শীত অনুভ‚ত হয়। হতে পারে বাইরে ভালো গরম পড়েছে। কিন্তু আপনার তারপরও শীত অনুভ‚ত হবে। লম্বা সময় ধরে একাকিত্বের মধ্যে থাকা আবার আপনাকে মৃত্যুর দিকেও ঠেলে দিতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে, দীঘর্ সময় ধরে একাকিত্বের মধ্যে থাকলে হৃদরোগের সম্ভাবনা ২৯% এবং স্ট্রোকের সম্ভাবনা ৩২% বেড়ে যায়। আবার একদিন একাকিত্বের মাঝে নিজেকে আবদ্ধ করে রাখা দিনে ১৫টি সিগারেট খাওয়ার সমান ক্ষতিকর। তাই শরীর ও মন সুস্থ রাখার জন্য আমাদের অবশ্যই একাকিত্ব থেকে বেঁচে থাকা উচিত। বলা হয়, যারা একাকিত্বের মধ্যে থাকে না, তারা একাকিত্বের মধ্যে থাকা লোকদের চেয়ে ৫০% বেশি জীবনকাল পায়। কিন্তু একাকিত্ব থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখা তো এত সহজও না। এটি যখন আপনাকে পায়, তখন একদম জেঁকে বসে। নিজেকে তখন সবকিছু থেকেই আড়াল করে রাখতে ইচ্ছা করে। এখানেই আমরা প্রথম ভুলটি করে ফেলি। আপনার যখন একাকিত্ব অনুভ‚ত হবে, তখন ভুলেও নিজেকে একা করে রাখা চলবে না। যদিও এ সময় কথা বলার লোক খুঁজে পাওয়া অনেক কঠিন, তবুও চেষ্টা করুন নিজেকে ব্যস্ত রাখতে।

এখানে কয়েকটি উপায় তুলে ধরা হলো, যা আপনাকে একাকিত্ব থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে সাহায্য করবে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে