logo
মঙ্গলবার ১৬ জুলাই, ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ২৮ মার্চ ২০১৯, ০০:০০  

দুই বাংলাতেই নিজেকে তুলে ধরতে চাই

বাংলা ছবির নতুন ক্রেজ। খুব অল্প সময়েই দুই বাংলা এমনকি তেলেগু ছবিতেও দু্যতি ছড়িয়েছেন মডেল অভিনেত্রী দর্শনা বণিক। অরিন্দম শীল, কমলেশ্বর মুখার্জী, অঞ্জন দত্তের মতো ওপারের নামি পরিচালকের সঙ্গে কাজ করছেন তিনি। ওপার বাংলার বেশ কয়েকটি মনস্তাত্ত্বিক ছবির পর এবারই প্রথম কমার্শিয়াল বাংলা ছবিতে কাজ করতে যাচ্ছেন তিনি। শুধু তাই নয়, দর্শনা বাংলাদেশের ছবিতেও কাজ করছেন। এখনো সবকিছু চূড়ান্ত হয়নি বলে এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাতে রাজি নন। এদিকে গত ২২ মার্চ বাংলাদেশের এ সময়ের আলোচিত গায়ক ইমরান মাহমুদুলের সঙ্গে দর্শনার 'তোর নামে ইচ্ছেরা' নামের নতুন গানের মিউজিক ভিডিও প্রকাশ পেয়েছে। বর্তমানে তেলেগুর একটি ছবিতে টানা কাজ করছেন এ অভিনেত্রী। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলাপ হয় তার সঙ্গে...

দুই বাংলাতেই নিজেকে তুলে ধরতে চাই
প্রশ্ন : বাংলা ইন্ডাস্ট্রি ছেড়ে হঠাৎ তেলেগুতে? অভিযোগ উঠেছে, বাংলা ছেড়ে তেলেগুতেই স্থায়ী হচ্ছেন!

দর্শনা বণিক : কাজের সুযোগ পেয়েছি তাই করছি। তবে, বাংলা ইন্ডাস্ট্রি ছাড়ার প্রশ্নই নেই। আমি তো মডেলিং দুনিয়ার মানুষ। কাজ শুরু করি ২০১৩ সালে। আর গত বছরে অভিনয়ে এসেছি। সেভাবে বলতে গেলে দুই ইন্ডাস্ট্রিতেই সবে কাজ করা শুরু করলাম। এখনও অনেক অনেক পথ চলা বাকি।

প্রশ্ন : এই প্রথম কমার্শিয়াল বাংলা ছবিতে অভিনয় করছেন। তাও আবার এস কে মুভিজের মতো নামকরা প্রতিষ্ঠানের। সবমিলিয়ে কেমন লাগছে?

দর্শনা বণিক : এক কথায় অন্যরকম এক অনুভূতি হচ্ছে। এস কে মুভিজের কর্ণধার হিমাংশুদাকে বহুদিন ধরে চিনি। অভিমন্য দা আর হিমাংশুদা একদিন আমায় অফিসে ডেকে গল্পটা শোনায়। গল্পটা খুব ভালো লেগে যায়। এ ছবিতে আমার সঙ্গে আছে শ্রাবন্তী, সোহম, ওম। অন্যদিকে শুভাশিসদা, কাঞ্চনদা, বিশ্বনাথদা, সুপ্রিয়দা। দুর্ধর্ষ কাস্টিং। সবমিলিয়ে অবশ্যই ভালো কিছু হবে বলেই আমার বিশ্বাস।

প্রশ্ন : ছবির নাম কি? আর এখানে আপনার চরিত্রই বা কি?

দর্শনা বণিক : ছবির নাম এখনও ঠিক না হলেও আজ ছবির মহরত হয়ে গেল। কাস্টিং থেকেই বোঝা যাচ্ছে এ ছবি জমজমাট কমেডির গল্প বলবে। ছবিতে ওতো কলকাতার মধ্যবিত্ত মেয়ের চরিত্রে ওমের বিপরীতে অভিনয় করব। দুটো গানও থাকবে। সেরকম কথা হয়েছে। এটা কমার্শিয়াল ছবি হলেও দারুণ লোকেশন। বিদেশ, এ ভাবে শুট করা হবে না কিন্তু! কলকাতার অলিগলিতে এই ছবির লোকেশন।

প্রশ্ন : এবার আসা যাক বাংলাদেশি প্রসঙ্গে। আবারও বাংলাদেশের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী ইমরানের সঙ্গে মিউজিক ভিডিওতে কাজ করলেন। এবারের কাজের অভিজ্ঞতা কেমন?

দর্শনা বণিক : ইমরান আমার খুব ভালো বন্ধু। যখন আমরা একসঙ্গে কাজ করি তখন আমরা প্রচুর আড্ডা দেই। গল্প করি। গান নিয়ে আলোচনা করি। ও আমাকে অনেক রকম গান শোনায়। এবার লাদাখে শুটিং করেছি। শুটিং পরিকল্পনার সময় ইমরান আমাকে বলেছিল, এর আগে বাংলাদেশের কোনো মিউজিক ভিডিওর শুটিং হয়নি লাদাখে। কাজের প্রতি ইমরানের ডেডিকেশনটা খুব ভালো লাগে। সবসময় নতুন কিছু করতে চায়। ভক্তদের কথা ভেবে কাজ করে।

প্রশ্ন : শুনেছি, জয়া আহসান নাকি আপনার সবচেয়ে পছন্দের অভিনেত্রী। এতো অভিনেত্রীর ভিড়ে জয়া আহসান ঠিক কি কারণে আপনার পছন্দের?

দর্শনা বণিক : একমাত্র কারণ, অভিনয়। ওনার মতো এতো ভালো, এতো স্বাভাবিক অভিনয় খুব কম অভিনেত্রীকে করতে দেখেছি। পুরো ভারতে আমার দেখা কয়েকজন মেধাবী অভিনেত্রীর মধ্যে একজন জয়া। এ ছাড়া তার নজরকাড়া সৌন্দর্য তো আছেই। তার সঙ্গে যতবার দেখা হয়েছে ততবার খুব সুন্দর ব্যবহার আমাকে মুগ্ধ করেছে। খুব মিষ্টি মানুষ।

প্রশ্ন : অরিন্দম শীল, কমলেশ্বর মুখার্জী, অঞ্জন দত্ত তিনজন বাঘা পরিচালকের সঙ্গে কাজ করেছেন। আবার তেলেগু ছবিতেও অভিনয় করেছেন। আপনি তো ছুটে চলেছেন রেসের ঘোড়ার মতো। সামনের লক্ষ্য কি?

দর্শনা বণিক : ভালো ভালো কাজ করে যাওয়া আমার লক্ষ্য। আমি মনে করি, প্রত্যেক শিল্পীরই এরকম লক্ষ্য থাকে। বাংলাদেশের ছবিতে অভিনয় করার ইচ্ছা আছে। আমি দুদেশের সব মানুষের কাছে নিজেকে তুলে ধরতে চাই। নিজের গ্রহণযোগ্যতা বাড়াতে চাই তাদের কাছে।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের ছবিতে অভিনয় করতে যাচ্ছেন। কোন ছবি, কার ছবি?

দর্শনা বণিক : একটা নয়, বেশ কয়েকটি ছবির প্রস্তাব পেয়েছি। তার মধ্যে থেকে একটির কথাবার্তা অনেক দূর এগিয়েছে। চূড়ান্ত না হওয়া অব্দি কিছু বলতে পারছি না। দেখা যাক কি হয়!

প্রশ্ন : বাংলাদেশের ছবি সম্পর্কে আপনার ধারণা কেমন?

দর্শনা বণিক : বাংলাদেশকে আমি আলাদা করে ধরতে চাই না। আমি বাংলা ছবি সম্পর্কে আমার ধারণা কথা বলতে চাই। বাংলায় অনেক ভালো কাজ হচ্ছে। আরও ভালো ভালো ছবি হচ্ছে, সেসব ছবির খবর রাখি। কারণ, আমি বাংলা ছবি ভালোবাসি। আর হঁ্যা, আমি বাংলাদেশের দর্শকদের নিয়ে একটি কথা বলব। পশ্চিমবঙ্গের দর্শকের চেয়ে বাংলাদেশের দর্শক সম্পূর্ণ আলাদা। বাংলাদেশের দর্শক অনেক বেশি ক্রেজি আর লাভিং।

প্রশ্ন : ওয়েব সিরিজেও কাজ করেছেন আপনি। ভারতে ওয়েব সিরিজগুলোতে যৌনতার ছড়াছড়ি দেখা যায়। আপনার কাছে কি মনে হয়, এটা বাড়াবাড়ি পর্যায়ে চলে গেছে? সেন্সর করা উচিত?

দর্শনা বণিক : সত্যি বলতে, এটা বাড়াবাড়ি হয়ে যাচ্ছে কিছু কিছু ক্ষেত্রে। তবে সেন্সরশিপ নিয়ে আমি কথা বলব না। কারণ, আমি এটাকে সাপোর্ট করি না। শিল্পের ক্ষেত্রে সেন্সর কখনো বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে না। কিন্তু যদি আমি প্যাকটিকেলি দেখি তাহলে তো বলাই যায়, ইন্ডিয়াতে সেন্সরশিপ কাজ করে। তবে যেভাবে কিছু কিছু ওয়েব চ্যানেল সেক্সোয়ালিটি দেখাচ্ছে বা পাশবিক সেক্সোয়ালিটি নিয়ে কাজ করছে, তাতে যে কোন সময় সেন্সরবোর্ড হস্তক্ষেপ করতে পারে।

প্রশ্ন : সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনার বোল্ড ফটোশুটতো পুরুষের বুকে কাঁপন তুলে দেয়। এক সাক্ষাৎকারে আপনি আপনার শরীর নিয়ে আত্মবিশ্বাসের কথাও বলেছিলেন। শরীর নাকি অভিনয়- কোনটার গুণে দর্শনা দর্শকের কাছাকাছি পৌঁছাতে চায়?

দর্শনা বণিক : (হাসি) অবশ্যই অভিনয় দর্শকের কাছাকাছি নিয়ে যায়। শরীর যদি দর্শকের কাছাকাছি নিয়ে যেতে পারতো, তাহলে এমন অনেকে আছেন যারা জনপ্রিয় হয়ে যেতে পারতেন। শরীর দিয়ে সবকিছু হয়ে গেলে আজ টাইগার শ্রফ আর নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকীর মধ্যে পার্থক্যটা থাকতো না। তাহলে মানুষ টাইগার শ্রফের সিনেমা দেখার জন্য পাগল হয়ে যেতো। নওয়াজকে লোকের ভালো লাগতো না। ইরফান, রাজ কুমার রাওকে ভালো লাগতো না। অভিনেত্রীদের কথা এখানে নাইবা বললাম।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে