logo
সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০, ১৬ চৈত্র ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

লাস্যময়ীর কলকাতা মিশন

তারিন জাহান। নাম শুনলেই মনের পর্দায় ভেসে ওঠে লাস্যময়ী জনপ্রিয় এক অভিনেত্রীর অবয়ব। রূপে, গুণে আর অভিনয়ে কয়েক দশক ধরেই যিনি মাতিয়ে রেখেছেন দর্শকদের। তারিনের অভিনয় মানেই দর্শকদের বাড়তি আকর্ষণ। পরিপাটি গল্পের নাটকে তার নিখুঁত অভিনয়ে দর্শক মুগ্ধ হন বরাবরই। শৈল্পিক গুণ আর অভিনয় দক্ষতায় এখনো রয়েছেন তিনি জনপ্রিয়তায়। তারই ধারাবাহিকতায় এই অভিনেত্রী এবার সুভাস ছড়াবেন সীমানার বাইরে ওপার বাংলায়। তাও ছোটপর্দায় নয়, তারিনের দেখা মিলবে কলকাতার সিনেপর্দায়। সেই গল্পই শোনাচ্ছেন তারার মেলা প্রতিবেদক - মাসুদুর রহমান

লাস্যময়ীর কলকাতা মিশন
তারিন জাহান

বর্তমানে কলকাতাতেই অবস্থান করছেন তারিন। গতকাল বুধবার থেকে শুরু হয়েছে তার কলকাতা মিশন। আর তারিন কলকাতায় পৌঁছেন আগের দিন মঙ্গলবার। আর তারার মেলার সঙ্গে তারিনের কথা হয় ২৩ ফেব্রম্নয়ারি। যখন তিনি মেকাপ রুমে বসে মেকাপ নিচ্ছিলেন। মেকাপ নিতে নিতেই কথা বললেন তিনি। জানালেন, ছবিটির নাম- 'এটা আমাদের গল্প'। ছবিটি পরিচালনা করছেন কলকাতার প্রতিষ্ঠিত অভিনেত্রী মানসি সিনহা। গল্পও তার। এ ছবির মাধ্যমে পরিচালনায় নাম লেখালেন তিনি। টানা ১০ দিন কলকাতার বিভিন্ন লোকেশনে ছবিটির শুটিং হবে। ছবির গল্প সম্পর্কে বিস্তারিত না বললেও গল্পে তাকে একজন বাংলাদেশি মেয়ে হিসেবে দেখা যাবে বলে জানালেন তারিন। তার চরিত্রের নাম সুদেষ্ণা। তিনি বলেন, 'ছবিটি পারিবারিক গল্পের। খুব সুন্দর গল্প। প্রতিটি চরিত্রই গুরুত্বপূর্ণ। এতে আমি একজন বাংলাদেশি মেয়ে। আমার বিয়ে হয় কলকাতায়। এরপর থেকে সেখানেই বসবাস।' নিজ আঙিনার বাইরে ভিনদেশের প্রযোজনায় অভিনয় করার ইচ্ছে কার না জাগে। কিন্তু সবার ভাগ্যে সে সুযোগ হয় না। বাংলাদেশি অনেক অভিনয়শিল্পীরাই কলকাতার ছবিতে কাজ করতে নানাভাবে তদবিরও করেন। কিন্তু তারিন তদবির ছাড়াই পেয়ে গেলেন এমন সুযোগ। তিনি বলেন, 'ওনারই আমাকে তাদের প্রডাকশনে কাজ করার প্রস্তাব দেন। প্রায় দুই মাস আগ থেকে কথাবার্তা চলে আসছিল। গল্প ও চরিত্র পছন্দ হওয়ায় রাজি হয়ে গেলাম। কেন কি কারণে তারা আমাকে বেছে নিলেন তা তো আমি বলতে পারব না, সেটা তাদের ব্যাপার, হয়তো আমার কাজগুলো তাদের ভালো লেগেছে। এ জন্য আমাকে নিয়ে চিন্তা করেছেন। তবে একটি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে নির্মাতার সঙ্গে আমার পরিচয় হয়েছিল।' 'এটা আমাদের গল্প' চলচ্চিত্রে তারিনের বিপরীতে অভিনয় করছেন দেবদূত ঘোষ। তিনি কলকাতার ছোট পর্দা ও বড় পর্দার একজন অভিনেতা। পরিচালকও। বছর দুয়েক আগে ভালোবাসা দিবসে বাংলাদেশের একটি নাটকে দেবদূত ঘোষের বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন তারিন। এই অভিনেত্রী বলেন, 'ছোট পর্দা ও বড় পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা দেবদূত। আগে তার সঙ্গে একটি নাটকে অভিনয়ের অভিজ্ঞতা আছে আমার। এবার দুজনে চলচ্চিত্রে কাজ করছি। আশা করছি, ভালো কিছু হবে।' ছবিটি প্রযোজনা করছেন ক্রিয়েটিভ ওয়ার্ল্ড এন্টারটেইনমেন্ট। এর কর্ণধার শর্মিষ্ঠা ঘোষ জানান, তারিনকে ভেবেই চরিত্রটি লেখা। দুই দেশের শিল্পী মিলে ভালো কিছু আশা করছেন তিনি। আরও জানান, ঢাকা এবং কলকাতার দুই পরিবারের গল্প নিয়ে সাজানো হয়েছে গল্পটি। ছবিতে তারিন ও দেবদূত ছাড়াও অভিনয় করছেন শাশ্বত চ্যাটার্জি, পূজা কর্মকার, কণিকা ব্যানার্জি, সঞ্জীব শর্মা, খরাজ মুখার্জি প্রমুখ। কলকাতার এ ছবিটি শুধু ওপার বাংলাতেই নয়, এপার বাংলাতেও দেখতে পাবেন দর্শক। এ নিয়ে তারিন জানান, ছবিটি কলকাতা ও বাংলাদেশে একসঙ্গে মুক্তির সম্ভাবনা রয়েছে। তবে কনে নাগাদ মুক্তি পেতে পারে সে বিষয়ে নির্দিষ্ট করে কিছু বলতে পারেননি এই অভিনেত্রী। তারিন এর আগে বাংলাদেশের 'পিরিত রতন পিরিত ধন' ও 'কাজলের দিনরাত্রি' নামে দুটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছিলেন। চলচ্চিত্রে নিয়মিত না হলেও অভিনয় করেছেন অসংখ্য নাটকে। অভিনয় করেছেন বৈচিত্র্যময় বহু চরিত্রে। ক্যারিয়ারে তার অনেক প্রাপ্তিও রয়েছে। পেয়েছেন নানা পুরস্কার। বাংলাদেশের প্রথম ডেইলি সোপ 'জোয়ার ভাটা'য় অভিনয় করে তিনি ইতিহাস হয়েও রয়েছেন। তারিনের মিডিয়ায় যাত্রাটা অনেকের মতো হুট করে নয়। সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলেই তিনি বেড়ে উঠেছেন। তাই ছোটবেলা থেকেই তার ছোটপর্দায় বিচরণ। নাচ, গান আর অভিনয়ের সঙ্গেই তিনি বড় হয়েছেন। জাতীয় সাংস্কৃতি প্রতিভা অন্বেষণ 'নতুন কুঁড়ি'তে অভিনয়, নাচ এবং গল্প বলা প্রতিযোগিতায় প্রথম হন। তখন থেকেই তিনি শিশু শিল্পী হিসেবে ছোটপর্দায় কাজ করতে শুরু করেন। শুরুটা নাচ দিয়ে হলেও অভিনেত্রী হিসেবেই পরিচিতি পেয়েছেন তারিন। আগের মতো নাটকে নিয়মিত না হলেও অভিনয় থেকে দূরে নয়। ভালো কাজ পেলে অভিনয় করেন, নয়তো বসে থাকেন তবুও মানহীন কাজের সঙ্গে আপস করেন না তিনি। এখনো ভালো স্ত্রিপ্ট হাতে পেলে প্রমাণ করে ছাড়েন তিনি সত্যিই একজন জাদরেল অভিনেত্রী। সম্প্রতি আগামী ঈদের একটি বিশেষ নাটকে অভিনয় করেছেন তারনি। 'খুব জানতে ইচ্ছে করে' নাটকে তার স্বামীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাহিদ হাসান। তাবারক হোসেনের গল্প অবলম্বনে নাটকটি পরিচালনা করেছেন যুবরাজ খান। নাটকটির নাট্যরূপ দিয়েছেন রাজিবুল ইসলাম রাজিব। তারিন বলেন, 'সংখ্যা বাড়ানোর জন্য অভিনয় করতে চাই না। দর্শক দিনশেষে একটি ভালো কাজের কথাই মনে রাখেন। যে কারণে বছরজুড়ে কাজ না করলেও ভালো গল্পের নাটক কিংবা টেলিছবিতে বেছে বেছে অভিনয় করছি। কিছুদিন আগে জাহিদ হাসানের সঙ্গে কাজ করেছি। আরও কয়েকটি নাটকের প্রস্তাব এসেছে। কলকাতা থেকে ফিরে এসে যদি স্ক্রিপ্ট পছন্দ হয় তাহলে অভিনয় করব।' বর্তমান সময়ের নাটকের পরিবেশ আগের মতো নেই বলে মন্তব্য করেন এই অভিনেত্রী। তিনি বলেন, 'এখন মিডিয়ার কাঠামো পরিবর্তন হয়েছে। অনেক কিছুর পরিবর্তন হয়েছে। আমাদের মতো কিংবা সিনিয়র শিল্পীদের নিয়ে কাজ করা বোধ হয় কমে গেছে। প্রতিষ্ঠিত শিল্পীদের যথাযথ সম্মান এখন আর দেয়া হয় না। রেসপেক্টের জায়গায় ঘাটতি আছে। আমরা যদি পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের দিকে তাকাই তা হলে দেখব, সেখানে গুণী শিল্পীদের যথেষ্ট সম্মান করা হয়। সেখানে একজন শিল্পীর বিষয়টি মাথায় রেখে ডিরেক্টর স্ক্রিপ্টের চিন্তা করেন। শুধু ভারত নয়, অন্যান্য দেশেও একই রকম। সিন্ডিকেটের মাধ্যমে এখন মিডিয়া নিয়ন্ত্রণ হচ্ছে। এ কারণেই মিডিয়ায় ধস নেমেছে। সিন্ডিকেট থেকে মিডিয়ামুক্ত না হলে এর অবস্থা আরও ভয়াবহ হবে। টিভি নাটক নিয়ে অনেক অভিযোগ শোনা যায়। দর্শক আগের মতো টিভি দেখে আনন্দ পান না। কিন্তু দর্শক এখনো বিনোদন খোঁজেন টিভি পর্দায়। তারিন বলেন, 'দর্শক ভালো নাটক দেখতে চান। তারা মঞ্চ, টিভি নাটক, টিভি অনুষ্ঠান এবং হলে গিয়ে সিনেমা দেখতে চান। এক সময় তাই হতো। সিনেমা হলে দর্শক যেত, মঞ্চে নাটক দেখত, পরিবারের সবাই মিলে টিভি নাটক দেখতো কিন্তু এখন তা আর নেই।'

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে