logo
শুক্রবার ২১ জুন, ২০১৯, ৭ আষাঢ় ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০  

বাবরি মসজিদ মামলার শুনানি থেকে সরলেন বিচারপতি ললিত

সুপ্রিম কোটের্র ঠিক করে দেয়া সাংবিধানিক বেঞ্চ থেকে এক বিচারপতির সরে দঁাড়ানোর পর অযোধ্যার বিতকির্ত রাম জন্মভ‚মি-বাবরি মসজিদ মামলার শুনানি পিছিয়েছে।

বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সাড়ে ১০টা নাগাদ শুনানি শুরু হওয়ার কিছু সময়ের মধ্যেই বিচারপতি উদয় ইউ ললিত পঁাচ সদস্যের বেঞ্চ থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নেন।এরপর প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ শুনানি পিছিয়ে ২৯ জানুয়ারি নতুন দিন ধাযর্ করেন বলে জানিয়েছে আনন্দবাজার।

সনাতন ধমার্বলম্বীদের একাংশ অযোধ্যাকে দেবতা রামের জন্মভ‚মি হিসেবেই বিবেচনা করে। সেই জন্মভ‚তিতে রামমন্দির ভেঙেই বাবরি মসজিদ নিমির্ত হয়েছিল বলেও অভিযোগ তাদের।

এ নিয়ে হওয়া মামলায় এলাহাবাদ হাইকোটর্ মসিজদ সংশ্লিষ্ট জমিকে হিন্দু ও মুসলমানদের তিনটি সংগঠনের মধ্যে ভাগ করে দেয়ার নিদের্শ দেয়।

যদিও রামমন্দির ভেঙেই বাবরি মসজিদ হয়েছিল কিনা, সে বিষয়ে সবর্সম্মত কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেনি তিন সদস্যের ওই হাইকোটর্ বেঞ্চ। হিন্দু-মুসলমান উভয় পক্ষই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করলে সুপ্রিম কোটর্ এলাহাবাদ আদালতের রায়ে স্থগিতাদেশ দেয়।

সাবেক প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রর সম্মতি না থাকলেও পরে সাংবিধানিক বেঞ্চ গঠনের অনুরোধেও সাড়া দেন এখনকার প্রধান বিচারক গগৈ।

বৃহস্পতিবার শুনানির শুরুতেই আইনজীবী রাজীব ধাওয়ান প্রশ্ন করার অনুমতি চাইলে তাকে থামিয়ে দিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘কী শুরু করবেন? আজকের দিনটা শুনানির জন্য নয়, মামলার চ‚ড়ান্ত শুনানি কবে, সে দিনটা ঠিক করার জন্য।’

এর মধ্যেই সুপ্রিম কোটর্ কেন তিন সদস্যের বেঞ্চ থেকে পঁাচ সদস্যের বেঞ্চ গঠন করল তা জানতে চান ধাওয়ান। তিনি বেঞ্চের সদস্য বিচারপতি ললিতকে নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

ধাওয়ান বলেন, ১৯৯৭ সালে বিচারপতি ললিত নিজেও বিতকির্ত বাবরি মসজিদ মামলার একজন আইনজীবী ছিলেন।

‘তিনি কোনো এক পক্ষের হয়ে মামলায় লড়েছিলেন। তাই তার সাংবিধানিক বেঞ্চে থাকা উচিত হবে না,’ বলেন এ আইনজীবী। তার এ বক্তব্যের সঙ্গে অন্য বিচারকরা সহমত পোষণ করলে বিচারপতি ললিত বেঞ্চ থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন।

প্রধান বিচারপতি পরে জানান, সরে যাওয়া বিচারপতির শূন্য আসনে আরেকজনকে নিয়োগ দিয়ে ২৯ জানুয়ারি থেকে ফের শুনানি হবে।

গগৈ ছাড়াও সাংবিধানিক এ বেঞ্চে আর যে ৩ বিচারক আছেন, তারা হলেন- এস এ ববদে, এন ভি রামানা ও বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দচ‚ড়।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে