logo
বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০  

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার প্রস্তুতি (গণিত)

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার প্রস্তুতি (গণিত)
কৃষকদের কেন শ্রদ্ধা করা উচিত?
আজ তোমাদের জন্য বাংলা থেকে যোগ্যতাভিত্তিক প্রশ্নোত্তর নিয়ে আলোচনা করা হলো

প্রদত্ত অনুচ্ছেদটি পড়ে ১, ২ (পাঠ্যবই হতে) :

বাংলাদেশের এই যে মানুষ, তাদের পেশাও কত বিচিত্র। কেউ জেলে, কেউ কুমোর, কেউ কৃষক, কেউ আবার কাজ করে অফিসে-আদালতে। সবাই আমরা পরস্পরের বন্ধু। একজন তার কাজ দিয়ে আরেকজনকে সাহায্য করছে। গড়ে তুলছে এই দেশ। ভাব তো কৃষকের কথা। তারা কাজ না করলে আমাদের খাদ্য জোগাত কে? সবাইকে তাই আমাদের শ্রদ্ধা করতে হবে, ভালোবাসতে হবে। সবাই আমাদের আপনজন।

এভাবেই তো সবাইকে নিয়ে আমরা আনন্দে আছি। কিন্তু সেই আনন্দ কী রকমের? এক ধরনের আনন্দ হচ্ছে নানা ধরনের উৎসব নিয়ে। মুসলমানদের দুটো ঈদ রয়েছে, রয়েছে মহররম। হিন্দুদের দুর্গাপূজাসহ এত উৎসব আছে যে, 'বারো মাসে তেরো পার্বণ' লেগেই থাকে। বৌদ্ধদের আছে সারা বছরে কয়েকটি বৌদ্ধপূর্ণিমা। খ্রিস্টানদের আছে ইস্টার সানডে, তা ছাড়া ২৫ ডিসেম্বর, মানে 'বড়দিন'। এর সবই তো আমরা উদ্‌যাপন করি।

১। প্রদত্ত শব্দগুলোর অর্থ লেখ : (৭টির মধ্যে ৫টি)

প্রান্তর,বিচিত্র, কৃষক, শ্রদ্ধা, উৎসব, পরস্পর,স্বজন

উত্তর :

প্রদত্ত শব্দ অর্থ

বিচিত্র - নানা রূপ

কৃষক - যে ফসল ফলায়

শ্রদ্ধা - বিশেষ সম্মান

উৎসব - আনন্দ অনুষ্ঠান

পরস্পর - একের সঙ্গে অন্যে

২। নিচের প্রশ্নগুলোর সংক্ষেপে উত্তর লেখ :

ক) বাংলাদেশের বিভিন্ন পেশার লোকজন আমাদের আপনজন কেন?

উত্তর : বাংলাদেশের সব পেশার লোকজনই আমাদের নানাভাবে সহায়তা করে। তাই তারা আমাদের আপনজন। যেমন- কৃষক ফসল ফলায়, জেলে মাছের জোগান দেয়, কুমোর বাসনকোসন তৈরি করে প্রভৃতি।

খ) কৃষকদের কেন শ্রদ্ধা করা উচিত?

উত্তর : যারা কৃষিকাজ করেন তারাই কৃষক। কৃষকরা ফসল ফলিয়ে আমাদের খাদ্যের জোগান না দিলে আমরা বাঁচতাম না। তাই তাদের শ্রদ্ধা করা উচিত।

গ) বাংলাদেশের কয়েকটি উৎসবের নাম লেখ।

উত্তর : বাংলাদেশের কয়েকটি উৎসবের নাম হচ্ছে- ঈদুল ফিতর, ঈদুল আজহা; দুর্গাপূজা, বৌদ্ধপূর্ণিমা, বড়দিন ইত্যাদি।

সুন্দরবনের প্রাণী

প্রদত্ত অনুচ্ছেদটি পড়ে ১, ২ ক্রমিক প্রশ্নের উত্তর লেখ (পাঠ্যবই হতে) :

বাংলাদেশের টাইগারের কোনো তুলনা নেই। রয়েল বেঙ্গল টাইগার অনন্য, তুলনাহীন। এই বাঘ ছাড়াও একসময়ে চিতাবাঘও প্রচুর ছিল সুন্দরবনে। কিন্তু এখন আর দেখা যায় না। ওলবাঘ নামেও এক ধরনের বাঘ এখানে আগে দেখতে পাওয়া যেত, বর্তমানে আর তা দৃষ্ট হয় না। এতদ্ব্যতীত গন্ডারও ছিল যথেষ্ট, এখন তা সম্পূর্ণভাবে অবলুপ্ত। কয়েক শত বছর আগে রাজা প্রতাপাদিত্য তার যৌবনকালে এ জঙ্গলে গন্ডার শিকারে অত্যন্ত দক্ষ ছিলেন বলে জানা যায়।

ইংরেজ আমলের প্রথম দিকে, অর্থাৎ প্রায় পৌনে তিনশ বছর আগে সুন্দরবনে গন্ডারের সংখ্যাধিক্য ছিল। কিন্তু সেই গন্ডার এখন নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। ইংরেজ শাসক ও দেশীয় কর্মচারী এবং স্থানীয় দক্ষ শিকারি সবাই মিলে ক্রমান্বয়ে গন্ডারের বংশ ধ্বংস করেছে। বিখ্যাত বিজ্ঞানী আচার্য প্রফুলস্নচন্দ্র রায়ের ভাই নলিনীভূষণ রায় ১৮৮৫ সালে সুন্দরবনের শেষ গন্ডার দেখেছিলেন বলে জানা যায়। একসময়ে এখানে হাতিও ছিল, এখন একটিও নেই। বর্তমানে একমাত্র পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে দেখা মেলে।

১। প্রদত্ত শব্দগুলোর অর্থ লেখ: (৭টির মধ্যে ৫টি)

ওলবাঘ,অনন্য, তুলনাহীন, দক্ষ, নিশ্চিহ্ন, ক্রমান্বয়ে, বিখ্যাত, গন্ডার

উত্তর:

প্রদত্ত শব্দ অর্থ

অনন্য - অভিন্ন, অদ্বিতীয়, অনুপম, একক

তুলনাহীন - অতুলনীয়, তুলনা করা যায় না এমন

দক্ষ - পারদর্শী, পটু, কৌশলী

নিশ্চিহ্ন - চিহ্নও নেই এমন

ক্রমান্বয়ে - পর্যায়ক্রমে, একের পর

এক এইভাবে

বিখ্যাত - অত্যন্ত খ্যাত, সুপ্রসিদ্ধ,

বিশেষ খ্যাতিমান

২। নিচের প্রশ্নগুলোর সংক্ষেপে উত্তর লেখ :

ক) কেন বাংলাদেশের টাইগারের কোনো তুলনা নেই?

উত্তর : বাংলাদেশের রয়েল বেঙ্গল টাইগারের গায়ের ডোরা কাটা দাগ এবং হিংস্রতা পৃথিবীর কোথাও অন্য কোনো দেশের বাঘে দেখা যায় না। তাই পৃথিবীর অন্য বাঘের সঙ্গে বাংলাদেশের রয়েল বেঙ্গল টাইগারের কোনো তুলনা নেই।

খ) রাজা প্রতাপাদিত্যের পরিচয় দাও।

উত্তর : বাংলার স্বাধীন জমিদারদের মধ্যে প্রতাপাদিত্য ছিলেন অন্যতম শক্তিশালী জমিদার। তিনি যশোরের জমিদারি লাভ করেন। জানা যায় যে, যৌবনকালে তিনি গন্ডার শিকারে দক্ষ ছিলেন এবং সুন্দরবনে গন্ডার শিকার করতেন।

গ) কে, কখন সুন্দরবনে শেষ গন্ডার দেখেছিলেন?

উত্তর : ইংরেজ আমলের প্রথম দিকে সুন্দরবনে গন্ডারের সংখ্যাধিক্য ছিল। জানা যায় যে, বিখ্যাত বিজ্ঞানী আচার্য প্রফুলস্নচন্দ্র রায়ের ভাই নলিনীভূষণ রায় ১৮৮৫ সালে সুন্দরবনে শেষবারের মতো গন্ডার দেখেছিলেন।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে