logo
বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১৯ চৈত্র ১৪২৫

  বিনোদন রিপোর্ট   ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

গুরুত্ব বাড়ছে বিশেষ নাটকের

গুরুত্ব বাড়ছে বিশেষ নাটকের
সারা বছর বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে অসংখ্য নাটক প্রচারিত হয়। ধারাবাহিকের পাশাপাশি প্রচারিত হয় অনেক খন্ডনাটক। তবে বছরের অন্যান্য সময়ের তুলনায় বিশেষ দিবস উপলক্ষে গুরুত্ব পায় বিশেষ নাটক। বিশ্ব ভালোবাসা দিবস, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, পহেলা বৈশাখ, পহেলা মে, নারী দিবসসহ বিভিন্ন দিবস এবং সেই সঙ্গে ধর্মীয় উৎসব ঈদ, পূজা, বড়দিন নিয়ে বিশেষ নাটক নির্মাণ হয় প্রতি বছর। কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো মহান ব্যক্তিদের জন্ম ও মৃতু্যদিনেও সরব থাকে নাটকপাড়া। একটি উপলক্ষ শেষ হতে না হতেই শুরু হয় আরেকটি বিশেষ দিবসের প্রস্তুতি।

চ্যানেল কতৃপক্ষও বিশেষ দিবস নিয়ে সারা বছরের পরিকল্পা আঁকেন। সেখানে অন্যসব অনুষ্ঠানের চেয়ে একটু বেশি গুরুত্ব পায় নাটক। বিশেষ নাটকের জন্য চ্যানেল নির্দিষ্ট বাজেটও বরাদ্দ করে। সেই সুযোগের অপেক্ষায় থাকেন অভিনয়শিল্পী, পরিচালকসহ নাটকের কলাকুশলীরা। শুধু টিভি চ্যানেলই নয়, ইউটিউব চ্যানেলগুলোও বিশেষ দিবসের নাটক নির্মাণে ব্যস্ত থাকেন। অনেক অভিনেতা-অভিনেত্রী আছেন যারা বিশেষ নাটকের জন্য ধারাবাহিকে অভিনয় করেন না। কিছু তারকা আছেন যাদের শুধু বিশেষ দিবসের নাটকেই দেখা মেলে। বড় পর্দার কয়েকজন তারকা প্রায়ই বিশেষ নাটকে অভিনয় করেন। এদের মধ্যে মৌসুমী, পপি, পূর্ণিমা, রিয়াজ, আমিন খান অন্যতম। বিশেষ দিবসের নাটকের গুরুত্ব বাড়ায় খন্ড নাটকের পাশাপাশি কয়েক বছর ধরে পর্ব প্রচলন শুরু হয়েছে। প্রতি বছরই ঈদে ছয়-সাত পর্বের নাটক প্রচার হয়ে আসছে। নাটকের সিকু্যয়েল নির্মাণ হচ্ছে প্রতি বছর। এসব নাটকে দর্শক সাড়াও পাচ্ছে। সারা বছর অসংখ্য নাটকের ভিড়ে দর্শকরা বিশেষ নাটকে ভিন্ন স্বাদ খোঁজেন। মুখিয়ে থাকেন বিশেষ নাটকের জন্য। দর্শকের এই আগ্রহকে চ্যানেল কর্র্র্র্তৃপক্ষ কাজে লাগাচ্ছেন। চ্যানেলগুলো প্রতি বছর শত শত বিশেষ নাটক নির্মাণ করছে। গেল বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে প্রায় শতাধিক নাটক প্রচারিত হয়েছে বিভিন্ন চ্যানেল ও ইউটিউবে। সময়ের আলোচিত অভিনেত্রী মেহজাবিন চৌধুরী ভালোবাসা দিবসের ২৩টি নাটকে অভিনয় করেছেন। সাফা কবির অভিনয় করেছেন ৯টি ও তানজিন তিশাকে দেখা গেছে ৮টি ভালোবাসা দিবসের নাটকে। এছাড়া কম-বেশি প্রায় সব তারকাই অভিনয় করেছেন ভালোবাসা দিবসের নাটকে। ভালোবাসা দিবসের রেশ কাটতে না কাটতেই শুরু হয় একুশে নাটকের পালা। একুশের পর এবার চলছে স্বাধীনতা দিবস ও ঈদ নাটকের তোড়জোড়। ইতোমধ্যে কেউ কেউ স্বাধীনতা দিবস ও ঈদের নাটকের কাজ শুরু করে দিয়েছেন। ২৬ মার্চ উপলক্ষে নাটক নির্মাণ করলেন নিয়াজ মাহবুব। 'কঙ্কাল' শিরোনামের এ নাটকটি রচনা করেছেন আজম খান।

সম্প্রতি বৈশাখী টিভির সাথে আসন্ন ঈদুল ফিতর এবং ঈদুল আজহাতে পুষ্পিতা ভিজু্যয়ালস-এর ব্যানারে দুটি নাটক নির্মাণের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন অভিনেতা জাহিদ হাসান। ৭ পর্বের এ ধারাবাহিক নাটক দুটির নাম 'দ্য জেন্টলম্যান' ও 'বুড়া জামাই'। নাটক দুটি চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করবেন আহমেদ রোহান রুবেল ও হানিফ খান। এর মধ্যে 'বুড়া জামাই' নাটকের গল্প লিখেছেন বৈশাখী টিভির উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক টিপু আলম মিলন। নাটক দুটির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করবেন জাহিদ হাসান। জাহিদ হাসান ছাড়াও নাটকের সম্ভাব্য অভিনেতা-অভিনেত্রীরা হলেন, আরফান আহমেদ, সাজু খাদেম, নাবিলা ইসলাম, সায়লা সাবি, কাজল সুবর্ণ প্রমুখ। বিশেষ দিবসের নাটক নিয়ে অভিনেতা ও পরিচালক আবুল হায়াত বলেন, 'অনেক নির্মাতা আছেন যারা শুধু বিশেষ দিবসের জন্য নাটক নির্মাণ করেন। আমিও প্রতি বছর দু-একটি নাটক নির্মাণের চেষ্টা করি। এবারও ঈদের জন্য কিছু করব ভাবছি। আমাদের টিভি চ্যানেলগুলো বিশেষ দিবসের নাটকের প্রতি বরাবরই গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। দর্শকরাও বিশেষ দিবসের নাটকগুলো দেখার চেষ্টা করেন। তবে চ্যানেল কর্তৃপক্ষের উচিত সারা বছরই ভালো বাজেটে ভালো নাটক নির্মাণে গুরুত্ব দেওয়া।'

নির্মাতা সাগর জাহান বলেন, 'সবারই বিশেষ দিবসের নাটকের প্রতি বাড়তি আগ্রহ থাকে। নির্মাতা, অভিনয়শিল্পী থেকে শুরু করে দর্শকদেরও নজর থাকে বিশেষ দিবসের নাটকের প্রতি। বিশেষ সময়ে তারা বিশেষ কিছু দেখতে চান। এটা সত্য সারা বছরের তুলনায় বিশেষ দিবসের নাটকগুলো একটু ব্যতিক্রম হয়ে থাকে।'
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে