logo
মঙ্গলবার ২৫ জুন, ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

  ঢাবি প্রতিনিধি   ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভতির্যুদ্ধ শুরু

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভতির্যুদ্ধ শুরু
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবষের্র গ ইউনিটের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ভতির্ পরীক্ষা শুক্রবার অনুষ্ঠিত হয়। এদিন কলাভবন কেন্দ্র পরিদশর্ন করেন ঢাবির ভিসি ড. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান Ñযাযাদি

ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদভুক্ত ‘গ’ ইউনিটের পরীক্ষার মধ্য দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এ বছরের ভতির্যুদ্ধ শুরু হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ও ক্যাম্পাসের বাইরে ৫৪টি কেন্দ্রে শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে এক ঘণ্টার এই এমসিকিউ পরীক্ষা চলে। বরাবরের মতোই মোবাইল ফোনসহ টেলিযোগাযোগ করা যায় এমন যে কোনো ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ ছিল নিষিদ্ধ। প্রতিটি কেন্দ্রের প্রবেশপথে মেটাল ডিটেক্টরে তল্লাশি করে পরীক্ষাথীের্দর হলে ঢুকতে দেয়া হয়। অনিয়ম-জালিয়াতি ঠেকাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিমের পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরীক্ষার সময় দায়িত্ব পালন করে। শেষ পযর্ন্ত কোনো ধরনের জালিয়াতি ও অনিয়মের খবর ছাড়াই শেষ হয় প্রথম দিনের ভতির্ পরীক্ষা। উপাচাযর্ অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান সকাল সোয়া ১০টায় ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের এমবিএ ভবনে দুটি কক্ষ পরিদশর্ন করেন। পরে ডিন কাযার্লয়ের সামনে সাংবাদিকদের সঙ্গে তিনি কথা বলেন। নিবিের্ঘœ পরীক্ষা হওয়ায় সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে উপাচাযর্ বলেন, যে ৫৪টি কেন্দ্রে পরীক্ষা হয়েছে সেখানে অত্যন্ত নজরদারি বজায় রাখা হয়েছে। সে নজরদারি শুধু পরীক্ষার হলে আমাদের সহকমীের্দর নজরদারি নয়, তার বাইরেও আমাদের কঠিন নজরদারি রয়েছে। গত বছর পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ একটি জালিয়াত চক্রের বেশি কিছু সদস্যকে গ্রেপ্তার করার পর এবার আর তেমন কোনো তৎপরতার খবর পাওয়া যায়নি বলে জানান উপাচাযর্। তিনি বলেন, আমি কয়েকটি হল ঘুরে পরীক্ষাথীের্দর সাথে কথা বলেছি, প্রশ্নপত্রের মান, পরীক্ষার ব্যবস্থাপনা ও পরিবেশ নিয়ে তারা সন্তুষ্ট বলে আমাকে জানিয়েছে। এখন পযর্ন্ত কোথাও কোনো অনিয়মের ঘটনা ঘটেনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচাযর্ (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন ও ‘গ’ ইউনিটের ভতির্ পরীক্ষার সমন্বয়ক অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম, বিশ্ববিদ্যালয়ে কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. কামাল উদ্দিন এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন। ভতির্ পরীক্ষার সাবির্ক নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক একেএম গোলাম রাব্বানীও পরে নিজের কাযার্লয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। ‘গ’ ইউনিটের ১ হাজার ২৫০টি আসনের বিপরীতে এবার ভতির্চ্ছুর সংখ্যা ২৬ হাজার ৯৬০ জন। অথার্ৎ প্রতি আসনের বিপরীতে ভতির্র লড়াইয়ে আছেন ২১ জন। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ও ক্যাম্পাসের লাগোয়া কেন্দ্রগুলোর বাইরে এবার লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি ইনস্টিটিউট এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল ও কলেজে পরীক্ষা নেয়ার আয়োজন করা হয়। সব মিলিয়ে বিশ্ববিদ্যারয়ের পঁাচটি ইউনিটে ৭ হাজার ১২৮টি আসনের বিপরীতে এবার মোট ২ লাখ ৭২ হাজার ৫১২ জন আবেদন করেছে। এই হিসাবে প্রতি আসনের বিপরীতে পরীক্ষাথীর্ থাকছেন ৩৮ জন। ২১ সেপ্টেম্বর খ-ইউনিট, ২৮ সেপ্টেম্বর ক-ইউনিট, ১২ অক্টোবর ঘ-ইউনিট, ১৫ সেপ্টেম্বর চ-ইউনিটের সাধারণ জ্ঞান অংশের এবং ২২ সেপ্টেম্বর চ-ইউনিটের অংকন অংশের ভতির্ পরীক্ষা হবে। ভতির্ পরীক্ষার আসন বিন্যাস বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট (ধফসরংংরড়হ.বরং.ফঁ.ধপ.নফ) থেকে জানা যাবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে