logo
শনিবার ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮, ১ পৌষ ১৪২৫

  যাযাদি রিপোটর্   ০৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০  

ইকবাল মাহমুদের তথ্য

নিবার্চনে কালোটাকা নজর রাখছে দুদক

নিবার্চনে কালোটাকা নজর রাখছে দুদক
বৃহস্পতিবার গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ Ñযাযাদি
নিবার্চনে কালোটাকা ব্যবহার করা হচ্ছে কিনা, তার ওপর নজর রাখছে দুনীির্ত দমন কমিশন (দুদক)। কোন উৎস থেকে নিবার্চনী ব্যয় করা হচ্ছে, সেটা নিবার্চনের পর খতিয়ে দেখা হবে। এমনটাই জানিয়েছেন দুদকের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার সংস্থাটির প্রধান কাযার্লয়ে গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে এক মতবিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, কেউ কালোটাকা ব্যবহার করলে তাদের তালিকা তৈরি করে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে কাজ করতে সংস্থার গোয়েন্দা বিভাগকে নিদের্শ দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘দেশের মানুষ বা আপনারা আমরা কেউ চাই না যে নিবার্চনে কালোটাকা ব্যবহার করা হোক। আমাদের ইনটেলিজেন্স ইউনিটকে একটি গাইড লাইন দিয়েছি। সেটা আমি প্রকাশ করতে চাই না।’ এ বিষয়ে উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, ‘কে কতগুলো গরু জবাই করলেন, কতগুলো খাসি জবাই করলেন, কতগুলো লাল পোস্টার করলেন। যেটা আইনসিদ্ধ নয়। সেগুলো আমাদের ইনটেলিজেন্স ইউনিট কালেক্ট করে একটি তালিকা তৈরি করবেন। আমরা ওই রিপোটর্ নিয়ে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।’

দুদক চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘ফ্ল্যাট ও প্লটে কালোটাকা চলে যাচ্ছে। এ বিষয়টি দুদক অবহিত। দুদক সরকারের কাছে বেশ কিছু সুপারিশ পাঠিয়েছে। সরকার এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে বলে দুদকের প্রত্যাশা। কালোটাকা যদি বিনিয়োগ হতো তাহলে দেশে কমর্সংস্থান সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখতে পারত।’

নিবার্চনী হলফনামার বিষয়ে দুদক কী ব্যবস্থা নেবে, জানতে চাইলে ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘পৃথিবীর সব দেশেই জনগণের প্রত্যাশা থাকে নেতাদের চরিত্র পূত-পবিত্র হতে হবে। আমাদের দেশেরও নেতার নেতৃত্বে অবশ্যই সততা ও জবাবদিহি থাকতে হবে। এ জন্য আমি বলেছিলাম, যারা হলফনামায় তথ্য দেবেন তা যেন সঠিকভাবে দেন। হলফনামা পাবলিক ডকুমেন্ট। আমাদের গোয়েন্দা ইউনিট সেগুলো সংগ্রহ করছে।’ হলফনামায় দেয়া তথ্য যাচাইয়ের জন্য এনবিআর, ব্যাংকসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহের কথাও জানালেন তিনি।

নিবার্চনে মনোনয়ন-বাণিজ্য নিয়ে যে তথ্য এসেছে, সে বিষয়ে দুদক কোনো ব্যবস্থা নেবে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, এটা দুদকের বিষয় নয়।

খেলাপি ঋণ প্রসঙ্গে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘বিষয়টি দুদকের না, ব্যাংকের। তবে যদি কেউ জাল-জালিয়াতি করে ঋণ নেন, তাহলে বিষয়টি দুদকের। এ জন্য প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকেই একটি অডিট রিপোটর্ দিতে হবে। অনেকেই আছেন যারা এনবিআরে এক রকম ও ব্যাংক ঋণ নেয়ার সময় আলাদা অডিট রিপোটর্ দেন। আমরা এসব জালিয়াতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া শুরু করেছি।’

এর আগে লিখিত বক্তব্যে দুদক চেয়ারম্যান জানান, কমিশন গত ১২ বছরে (২০০৭ সাল থেকে ২০১৮ সালের অক্টোবর পযর্ন্ত) পঁাচ হাজার ৮৯টি মামলা দায়ের করেছে। একই সময়ে পঁাচ হাজার ৫২০টি মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে (বিলুপ্ত ব্যুরো আমলের মামলাসহ)। ২০০৯ সাল থেকে ২০১৮ সালের অক্টোবর পযর্ন্ত ১০ বছরে ১ হাজার ৩২১টি মামলায় আসামিদের বিচারিক আদালতে সাজা হয়েছে। কমিশনের মামলায় সাজার হার ২০১৭ সালে ছিল ৬৮ ভাগ। এ হার ক্রমাগত বাড়ছে। কমিশন প্রতিটি মামলা মনিটরিং করছে। মামলার বাদী, সাক্ষী ও প্রসিকিউটরদের উপস্থিতি নিশ্চিত করা হচ্ছে।

কমিশনের অনুসন্ধান ও তদন্ত এবং প্রসিকিউশন কাযর্ক্রম ডিজিটালাইজড করার জন্য এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের সহযোগিতায় একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানান ইকবাল মাহমুদ। তিনি বলেন, কমিশনের প্রত্যাশা শতভাগ মামলায় সাজা দেয়া। এ ক্ষেত্রে কমিশনের সক্ষমতার ঘাটতিকে আমরা অন্যান্য আনুষঙ্গিক কারণের পাশাপাশি একটি কারণ হিসেবে মনে করি। আমরা আমাদের প্রতিষ্ঠানের ত্রæটি-বিচ্যুতি প্রকাশে ন্যূনতম কুণ্ঠাবোধ করি না।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, দুনীির্ত দমন কমিশনে মানুষ প্রতিনিয়তই অভিযোগ জানাচ্ছে। গত বছরই কমিশন প্রায় ১৮ হাজার লিখিত অভিযোগ পেয়েছে। এ বছরের নভেম্বর পযর্ন্ত ১২ হাজার ২২৭টি অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২০১৭ সালের ২৭ জুলাই থেকে ৩০ নভেম্বর ২০১৮ পযর্ন্ত কমিশনের অভিযোগ কেন্দ্রের হটলাইনে (১০৬) অভিযোগ জানাতে ১৯ লাখ ৪৪ হাজার ২২০টি ফোন কল এসেছে। এতে আমাদের মনে হয় দুনীির্তর বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের দৃঢ় অবস্থান রয়েছে। মানুষ দুনীির্তপরায়ণদের মন থেকে ঘৃণা করে।

মতবিনিময় সভায় দুদকের পক্ষে আরও বক্তব্য দেন কমিশনার মোজাম্মেল হক খান ও সচিব সামসুল আরেফিন। সাংবাদিকদের মধ্যে বক্তব্য দেন ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহ্?ফুজ আনাম, প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম, একুশে টিভির প্রধান সম্পাদক ও প্রধান নিবার্হী মনজুরুল আহসান বুলবুল, কালের কণ্ঠের সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি, আরটিভির প্রধান নিবার্হী আশিক রহমান, ডিবিসি টেলিভিশনের প্রধান নিবার্হী মঞ্জুরুল ইসলাম, একাত্তর টিভির প্রধান নিবার্হী মোজাম্মেল বাবু, এটিএন বাংলার প্রধান নিবার্হী সম্পাদক জ ই মামুন, দেশ টিভির উপব্যবস্থাপনা পরিচালক আরিফ হাসান, চ্যানেল ২৪-এর বাতার্ প্রধান রাহুল রাহা, ইন্ডিপেনডেন্ট টিভির প্রধান বাতার্ সম্পাদক আশিষ সৈকত প্রমুখ।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে