logo
শুক্রবার ২৩ আগস্ট, ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

  যাযাদি রিপোর্ট   ১৫ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০  

পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত

পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত
দুই শিশুর ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়
ত্যাগের মহিমা ও যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে গত সোমবার রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে মুসলিম উম্মাহর দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়েছে। মুসলমানদের ঘরে ঘরে বয়ে যায় অনাবিল আনন্দ ও খুশির বার্তা। এদিন দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ ঈদগাহ্‌, মসজিদ ছাড়াও নির্ধারিত প্রান্তরে শ্রেণি-পেশা-বয়স নির্বিশেষে

ঈদের নামাজ আদায় করেন এবং সামর্থ্যবানরা মহান প্রভুর সন্তুষ্টি লাভের আশায় পশু কোরবানি করেন। এবারও দেশের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে। এদিকে সরকার ঘোষিত ঈদের তিন দিনের ছুটি শেষ হলেও গতকাল বুধবারও রাজধানীজুড়ে ঈদের আমেজ পরিলক্ষিত হয়েছে। তবে সকাল থেকে টানা বৃষ্টির কারণে বিনোদনকেন্দ্রগুলোতে ভিড় কিছুটা কম ছিল।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসের ব্যত্যয় ঘটায় সারাদেশে কোরবানির আনন্দ আয়োজন ষোলআনাই উৎসবমুখর আবহে সম্পন্ন হয়েছে। ঈদের দিন সকাল থেকেই আকাশ মেঘমুক্ত ও রোদ্রোজ্জ্বল থাকায় রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা আনন্দ-উচ্ছ্বাসের মধ্য দিয়ে ধর্মীয় এ উৎসব পালন করেছেন। শঙ্কামুক্ত অবস্থায় মুসলিস্নরা ঈদগাহ, মসজিদ ও খোলা মাঠে নামাজ আদায়ের পর পশু কোরবানি করতে পেরেছেন।

রেওয়াজ অনুযায়ী ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাড়ে আটটায় সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ দেশের সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে সেখানে ঈদের নামাজ আদায় করেন। জাতীয় ঈদগাহের প্রধান জামাতে মন্ত্রিসভার সদস্যবৃন্দ, সুপ্রিম কোর্টের বিচারকগণ, সংসদ সদস্যগণ, সিনিয়র রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এবং বিভিন্ন মুসলিম দেশের কূটনীতিকসহ সর্বস্তরের হাজার হাজার মানুষ উৎসব-আমেজে নামাজ আদায় করেন। দেশের শান্তি ও উন্নয়ন, জনগণের কল্যাণ এবং মুসলিম উম্মাহর বৃহত্তর ঐক্য কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। নামাজ শেষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ উপস্থিত সবার সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

জাতীয় ঈদগাহে সুষ্ঠুভাবে ঈদের জামাত অনুষ্ঠানে নেয়া হয় বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ঈদগাহে সকল প্রবেশপথ এবং ভিভিআইপি ও ভিআইপিদের নামাজের স্থানসহ ঈদগাহ মাঠের প্যান্ডেলে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়। প্রধান এ জামাতের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সাদা পোশাকের্ যাব এবং পুলিশ সদস্যরা ঈদগাহ ময়দানে সার্বক্ষণিক তৎপর ছিলেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র দাবি করে।

রাজধানীর দ্বিতীয় বৃহত্তর জামাত অনুষ্ঠিত হয় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে সকাল সাতটায়। সেখানে প্রতি এক ঘণ্টা অন্তর একটি করে মোট ৫টি ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে ঈদুল আজহার নামাজ আদায়ের লক্ষ্যে মুসলিস্নদের সুবিধার্থে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে পর্যাপ্ত পানি ও নিশ্চিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

ধর্মীয় এ উৎসবে রাজধানীর মুসলিস্নরা যাতে নির্বিঘ্নে নামাজ আদায় করতে পারেন, সে লক্ষ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন অন্যান্য বারের মতো এবারও বিভিন্ন ঈদগাহ, খেলার মাঠ ও মসজিদে ঈদ জামাত আদায়ের সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করে। জাতীয় ঈদগাহসহ রাজধানীর দুই সিটি করপোরেশন এলাকার ৯২টি ওয়ার্ডে ৩৬২টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করেপারেশন এলাকায় ঈদুল আজহার ২২৮টি এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকায় ১৩৪টি স্থানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

ঈদের দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায়ের পর দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপসহ অন্যান্য বালা-মুসিবত দূর করার জন্য আলস্নাহর দরবারে বিশেষ প্রার্থণা জানিয়ে মোনাজাত করা হয়। এরপর হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর মহান আত্মত্যাগের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে নিজের ভেতরের পশুত্বকে পরিহার ও আলস্নাহর অনুগ্রহ লাভের আশায় মহিষ, গরু, ছাগল, ভেড়া ইত্যাদি পশু কোরবানি করেন তারা। পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতাল, কারাগার ও সরকারি আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়। ঈদ উপলক্ষে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছিল।

দীর্ঘদিনের রেওয়াজ অনুযায়ী এবারও বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠান হয়। ঈদ উপলক্ষে সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এই শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে