logo
  • Fri, 16 Nov, 2018

  যাযাদি রিপোটর্   ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০  

দেশীয় শ্রমিকের অভাবে আমিরাতে বিপাকে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা

২০১২ সালের ১২ আগস্ট বাংলাদেশ থেকে হঠাৎ করে শ্রমিক নেয়া বন্ধ করে দেয় সংযুক্ত আরব আমিরাত। ফলে বাংলাদেশিরা নতুন ভিসা ইস্যু ও অভ্যন্তরীণ ট্রান্সফার সুবিধা থেকে বঞ্চিত হন। বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শ্রম বাজার সংযুক্ত আরব আমিরাত। রেমিট্যান্স প্রেরণকারীর শীষের্ও দেশটি।

আমিরাতে বিগত ছয় বছর ধরে বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য নতুন কোনো ভিসা হচ্ছে না। এমন কি আমিরাত ঘোষিত সাধারণ ক্ষমাতেও ভিসা বন্ধের কারণে অবৈধ প্রবাসীরা কোম্পানি, লাইসেন্সে বা দোকানে ভিসা লাগাতে পারছেন না। ফলে দেশীয় শ্রমিকের অভাবে দেশটিতে বিপাকে পড়েছেন বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা।

দেশটিতে বাংলাদেশি প্রবাসীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মূলত বাংলাদেশি শ্রমিক দিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্য সহজে পরিচালনা করা যায়। এক্ষেত্রে বেতন নিদির্ষ্ট পরিমাণে দিয়ে কাজে লাগানো যায়। এছাড়া দেশিদের যতটুকু বিশ্বাস করা যায় অন্য দেশের ক্ষেত্রে তো সেটা সম্ভব নয়। ভাষাগতও কিছু বিষয় তো থেকেই যায়। আমাদের দেশের লোকজনকে সহজে ব্যবসা বোঝানো সম্ভব। ইন্ডিয়ান কিংবা পাকিস্তানির ক্ষেত্রে তো সেটা সহজ নয়। সংস্কৃতি সভ্যতাও অনেক সময় কাল হয়ে দঁাড়ায়।

দেশটিতে প্রায় আট লাখ বাংলাদেশি প্রবাসীদের মধ্যে হাজার হাজার অবৈধ প্রবাসী আছেন। চলতি বছরে আামিরাত ঘোষিত ১ আগস্ট থেকে ৩১ অক্টোবর পযর্ন্ত সাধারণ ক্ষমায় এসব অবৈধ প্রবাসীরা শ্রমিকদের ভিসা বন্ধের কারণে বৈধ হতে পারছেন না। হাতেগোনা কিছুসংখ্যক প্রবাসী চড়ামূল্যে ইনভেস্টর হিসেবে আর স্থানীয় আরবিদের ঘরে ১৯ ক্যাটাগরিতে ভিসা লাগানোর সুযোগ পাচ্ছেন মাত্র।

বিপুলসংখ্যক অবৈধ প্রবাসী যারা বিভিন্ন কোম্পানি বা দোকানে কাজ পাচ্ছেন কিন্তু ভিসা চালু না থাকাতে তারা বৈধ হয়ে থাকতে পারছেন না। আর যারা বিভিন্ন কোম্পানিতে আছেন তাদের সুযোগ থাকা সত্তে¡ও অন্য কোম্পানিতে উচ্চ বেতনে কাজ করতে যেতে পারছেন না।

আর যে সমস্ত প্রবাসী তাদের চাকরি হারিয়েছেন তারাও ভিসা পরিবতের্নর সুযোগ না থাকাতে চড়া মূল্যে ইনভেস্টরের ভিসা লাগানো বা দেশে যাওয়া ছাড়া অন্যকোনো বিকল্প নেই। এমতাবস্থায় দেশীয় ব্যবসায়ীরা যারা ভিসা খুলবে বা ভিসা পরিবতের্নর সুযোগ হওয়ার আশায় নতুন নতুন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালু করেছেন তারা পড়েছেন বিপাকে। ভিন্ন দেশি শ্রমিক ও কমর্চারীদের দিয়ে দেশীয় প্রতিষ্ঠান চালাতে তারা রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন।

আরব আমিরাতের অভিজাত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সুইস গ্যালারির কনর্ধার মোহাম্মদ সেলিম জাহাঙ্গীর ও দেশীয় মালিকানাধীন সুপার মাকের্ট গ্রæপ বøু স্কাইয়ের চেয়ারম্যানের মতে, নতুন ভিসা বা ভিসা পরিবতের্নর সুযোগ না থাকাতে ব্যবসা-বাণিজ্যে দিন দিন মন্দা যাচ্ছে।

তিনি বলেন, ভিন্ন দেশি কমর্চারী দিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্য চালানোটা সত্যিই কঠিন। লাভ সীমিত রেখেও অনেক সময় লোকসান দিতে হচ্ছে। এখন নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতেও হিমশিম খেতে হচ্ছে বলে জানান এসব ব্যবসায়ীরা। তাদের মতো শত দেশীয় ব্যবসায়ীদের দাবি নতুন ভিসা না হোক অন্তত ভিসা পরিবতের্নর সুযোগ সৃষ্টি করার জন্য।

ভিসার ব্যাপারে যদি সরকার আন্তরিক হয়, তাহলে অচিরেই আমিরাতে ভিসা খোলা সম্ভব। ভিসা ও ভিসা পরিবতর্নটা এখন প্রবাসীদের প্রাণের দাবি।

উল্লেখ্য, ১৯৭৬ সাল থেকে এখন পযর্ন্ত সংযুক্ত আরব আমিরাতে ২৩ লাখেরও বেশি বাংলাদেশির কমর্সংস্থান হয়েছে। এর মধ্যে নারী কমীর্ এক লাখ ২৩ হাজার ৯৮৫ জন।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে