logo
বৃহস্পতিবার ২০ জুন, ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ১৩ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০  

ভ‚মিমন্ত্রীর ঘোষণা

ভ‚মি অফিসের সবাইকে সম্পদের হিসাব দিতে হবে

আগামী ২৮ ফেব্রয়ারির মধ্যে ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনে ইউনিয়ন ভূমি অফিস থেকে শুরু করে মন্ত্রণালয় পযর্ন্ত সব কমর্কতার্-কমর্চারীকে সম্পদের হিসাব জমা দিতে হবে।

শনিবার চট্টগ্রামে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী এ মৌখিক ঘোষণা দেন। মন্ত্রণালয়ে গিয়ে তিনি এ বিষয়ে লিখিত পরিপত্র জারি করবেন বলে জানান।

চট্টগ্রামের প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে সাংবাদিকদের সঙ্গে এ মতবিনিময় হচ্ছে।

সারাদেশে ভূমি অফিসে অনেক সমস্যা রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কমর্কতাের্দর সাহস দিতে চান। মাঠ পযাের্য় হাত দিচ্ছেন। উপজেলা, ইউনিয়নের সব ভূমি অফিসকে সিসিটিভির আওতায় নিয়ে আসব। ভয়েস রেকডির্ংয়ের সুযোগ রাখব বিভিন্ন পয়েন্টে। দুনীির্তর ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতিতে থাকব।

তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি, যারা অভ্যাস ফেলতে

পারবে না তাদের কেটে পড়া উচিত। আমি এসেছি সম্মানের জন্য। দুনীির্ত যেদিন স্পশর্ করবে সেদিন হবে আমার শেষ দিন। যেকেউ প্রশ্ন করলে জবাব দিতে বাধ্য থাকব। আমি সবার সেবক হিসেবে থাকতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ২০১৪ সালে ভূমি প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেন। তখন অভিজ্ঞতা ছিল না। তবুও নিজস্ব উদ্যোগে অনেক কাজ করেছি। ওই সময় অনেক ভালো কাজ করেছি। ভূমি মন্ত্রণালয়ে জটিলতা, হয়রানি কাটাতে অটোমেশনের উদ্যোগ নিয়েছিলাম। এর সুফল পেতে থাকবে মানুষ।’

তদবিরে বিশ্বাস করেন না উল্লেখ করে সাইফুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ‘যা কপালে থাকবে তা-ই হবে। তিনবার সংসদ সদস্য হয়েছি। নিবার্চনের পর ঢাকায় দৌড়াইনি। এলাকার মানুষের সঙ্গে ভালো সময় কাটিয়েছি। শপথ গ্রহণের দিন ঢাকা যাই। শপথ নিয়ে নিজের কাজে ব্যস্ত ছিলাম। রোববার শেষ কমির্দবসে অফিস করি। তখন মন্ত্রী হওয়ার ফোন আসে। আমি বিশ্বাস করি, সততার বিকল্প নেই।’

তিনি বলেন, ‘শুভানুধ্যায়ীরা বিব্রতবোধ করেÑ এমন কোনো কাজ করব না। দুনীির্ত আমাকে স্পশর্ করতে পারেনি, বুকে হাত দিয়ে বলতে পারব। প্রধানমন্ত্রী আমাকে পূণর্মন্ত্রী করে পুরস্কার দিয়েছেন। আমি সততা, দক্ষতা, স্বচ্ছতার মধ্য দিয়ে কাজ করব।’

মন্ত্রী বলেন, ‘ভূমি মন্ত্রণালয় একসময় ছিল ডাম্পিং স্টেশন। কিন্তু এটি অনেক গুরুত্বপূণর্। ৫ বছরের মধ্যে ভালো অবস্থানে নিয়ে আসব। অটোমেশনসহ সব উদ্যোগ গতিশীল করব। সুশাসন নিশ্চিত করতে পারলে বৈপ্লবিক পরিবতর্ন আনতে পারব।’

তিনি বলেন, চট্টগ্রাম থেকে তিনজন মন্ত্রী ও একজন উপমন্ত্রী মিলে সারাদেশের পাশাপাশি এ জনপদের উন্নয়নে কাজ করব। মিলেমিশে কাজ করার আনন্দ অনেক। জনগণকে ভালো কিছু দেয়াতেই আমাদের তৃপ্তি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি কলিম সরওয়ার, সাবেক সভাপতি আলী আব্বাস, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ, সিইউজের সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক শহীদুল্লাহ শাহরিয়ার, নিবার্হী সদস্য শহীদ উল আলম, ম. শামসুল ইসলাম, সিনিয়র সাংবাদিক পঙ্কজ কুমার দস্তিদার, তপন চক্রবতীর্, মোস্তাক আহমেদ, এম নাসিরুল হক, এজাজ মাহমুদ, শফিউল আলম, একরামুল হক, সুমন দাশ, আলমগীর অপু, আলমগীর সবুজ প্রমুখ।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে