logo
মঙ্গলবার ২৫ জুন, ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ১৪ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০  

নতুন করে আলোচনায় সেই মামলাগুলো

হারিয়ে গেছে শিক্ষিকা অঞ্জলি দেবী হত্যা মামলা মিতু হত্যা মামলার তদন্ত অনিশ্চিত অনিশ্চিত গন্তব্যে তনু হত্যা মামলা কূলকিনারা হয়নি ত্বকী হত্যা মামলার গন্তব্যহীন সাগর-রুনি হত্যা মামলা

নতুন করে আলোচনায় সেই মামলাগুলো
সাগর-রুনি দম্পতি

যাযাদি ডেস্ক ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির মৃতু্যর পর নতুন করে আলোচনায় এসেছে হারিয়ে যাওয়া সেই হত্যা মামলাগুলো। উচ্চ আদালত থেকে বলা হয়েছে, মিতু, তনু বা সাগর-রুনির মতো নুসরাতের মামলাটা যেন হারিয়ে না যায়, সেদিকে নজর রাখা হবে। নুসরাত হত্যাকান্ডের মামলাটির বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে এক আর্জির পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ বৃহস্পতিবার বলেন, 'আমরা যতটুকু জানি এ মামলা পিবিআইতে ট্রান্সফার করা হয়েছে তদন্তের জন্য। প্রধানমন্ত্রী নিজে এটা তদারক করছেন।?তারপরও আমরা সমভাবে ব্যথিত।?আমরা কোনোভাবেই চাই না সাগর-রুনির মতো, মিতুর মতো, তনুর মতো এ মামলাটা হারিয়ে যাক।' বিচার বিভাগীয় তদন্তের আর্জি জানানো আইনজীবী সাইয়ে্যদুল হক সুমনকে উদ্দেশ্য করে বিচারক বলেন, 'আপনারা খেয়াল রাখেন।? আমরাও খেয়াল রাখছি। তদন্তের কোনো জায়গায় কোনো কারণে যদি মনে হয় গাফিলতি আছে, আপনারা চলে আসবেন, আমরা ইন্টারফেয়ার (হস্তক্ষেপ) করব।' পুলিশের একজন উপ-পরিদর্শককে (এসআই) তদন্তের ভার না দিয়ে হাইকোর্টে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ চেয়েছিলেন জানিয়ে আইনজীবী সুমন সাংবাদিকদের বলেন, এ ঘটনায় বড় বড় দলের নেতারা থাকতে পারেন। ধর্মীয় অনুভূতির ব্যাপার থাকতে পারে। পুরো দেশের মানুষ বসে আছে এ ঘটনার একটা পূর্ণাঙ্গ তদন্ত দেখার জন। সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী শাহদীন মালিক বলেন, 'প্রতিবছর চার হাজার হত্যাকান্ড হয়। ২০১০ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত দেশে ৩৮ হাজার হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। কয়টা ঘটনার রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ? বহু মামলা এভাবেই হারিয়ে গেছে। যেগুলো নিয়ে মিডিয়ায় একটু বেশি লেখালেখি হয়, সেটা আলোচিত মামলা। পুলিশ পারে ঘরের মধ্যে স্ত্রীকে হত্যা করল স্বামী, ভাই ভাইকে হত্যা করল, এই সব মামলার রহস্য উৎঘাটন করতে। যেখানে একটু কষ্ট করে অপরাধী বের করতে হয়, সেখানে আর পারে না। বলা হয়, জঙ্গি তৎপরতা রোধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সফল, কিন্তু দেশে কত জঙ্গি ছিল? সর্বোচ্চ ৫০ জন? তাদের তো মেরেই ফেলা হয়েছে। আবার উলটো দিক দিয়ে দেখলে দেখবেন, পুলিশ কী করবে? একজন এস আইয়ের কাঁধে ২৫টি মামলা। সে কোন মামলার তদন্ত করবে? পুলিশের তো প্রটোকল দিতেই সময় চলে যাচ্ছে। কয়জন পুলিশ সঠিকভাবে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছেন? হারিয়ে গেছে শিক্ষিকা অঞ্জলি দেবী হত্যার ঘটনা। ২০১৫ সালের ১০ জানুয়ারি চট্টগ্রাম নগরের চকবাজার তেলিপট্টি এলাকার নিজ বাসার গলির মুখে অঞ্জলি দেবীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। তিনি চট্টগ্রাম নার্সিং কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।? এই ঘটনায় অজ্ঞাত পরিচয় যুবকদের আসামি করে পাঁচলাইশ থানায় হত্যা মামলা করেন তার স্বামী ডা. রাজেন্দ্র লাল চৌধুরী। প্রথমে মামলাটি তদন্ত করেন পাঁচলাইশ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুল মোতালেব। পরে মামলাটি তদন্ত শুরু করে নগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। এই হত্যাকান্ডে জড়িত সন্দেহে আল জামিয়া আল ইসলামিয়া পটিয়া মাদ্রাসার সাবেক ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা মোহাম্মদ রেজাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তিনি জামিনে মুক্তি পান। নার্সিং কলেজে ছাত্রীদের হিজাব পরা নিয়ে আন্দোলনের সময় অঞ্জলি দেবীকে আইনি নোটিশ দিয়েছিলেন রেজা।? অঞ্জলি দেবীর স্বামী রাজেন্দ্র লাল চৌধুরী বলেন, 'পুলিশ আসামিদের খুঁজে পায় না, শুধু বারবার আমাকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। আমি তাদের পরিষ্কারভাবে বলে দিয়েছি, যেভাবে হত্যাকান্ডটি হয়েছে, তাতে আমার মনে হয়েছে এটা সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর কাজ। পরিষ্কারভাবে পুলিশকে সেই কথাটি বলেছি, কিন্তু তারা কিছুই করেনি।' মিতু হত্যা মামলার তদন্ত অনিশ্চিত ২০১৬ সালের ৫ জুন চট্টগ্রামের জিইসির মোড় এলাকায় ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় দুর্বৃত্তদের হাতে খুন হন মাহমুদা খানম মিতু। এ ঘটনার পর তার স্বামী বাবুল আক্তার বাদী হয়ে অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা করেন। অস্ত্র আইনের মামলাটি বিচারাধীন থাকলেও মাহমুদা হত্যা মামলায় এখনো অভিযোগপত্র জমা দেয়নি গোয়েন্দা পুলিশ। এই মামলায় ভোলা গত ১৩ মে হাইকোর্ট থেকে জামিন পেয়েছেন।?এখন এই মামলায় কারাগারে কেউ নেই।? মামলাটি বর্তমানে তদন্ত করছেন ডিবির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান। তিনি বলেন, 'তদন্ত নিজস্ব গতিতে চলছে। এই মুহূর্তে কোনো অগ্রগতি নেই। এর বেশি কিছু বলা যাবে না।' প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ২৭ জুন চট্টগ্রামের বাকলিয়া এলাকা থেকে মাহমুদা হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্র-গুলিসহ ভোলা ও তার সহযোগী মো. মনিরকে গ্রেপ্তার করে ডিবি। অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় ওই বছরের ২৮ জুলাই বাকলিয়া থানার পুলিশ দু'জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় কিন্তু মিতু হত্যা মামলার কোনো সুরাহা হচ্ছে না। অনিশ্চিত গন্তব্যে তনু হত্যা মামলা ২০১৬ সালের ২০ মার্চ সন্ধ্যায় কুমিলস্না সেনানিবাসের ভেতরে টিউশনি করাতে গিয়ে আর বাসায় ফেরেননি কুমিলস্না ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের ছাত্রী সোহাগী জাহান তনু।? অনেক খোঁজাখুঁজির পর রাতে তনুদের বাসার অদূরে সেনানিবাসের ভেতরের একটি জঙ্গলে তার মরদেহ পায় স্বজনরা। পরদিন তার বাবা কুমিলস্না ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের অফিস সহায়ক ইয়ার হোসেন বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ঘাতকদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। থানা পুলিশ ও ডিবির পর ২০১৬ সালের ১ এপ্রিল থেকে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব পায় সিআইডি। ২০১৭ সালের মে মাসে সিআইডি তনুর জামা-কাপড় থেকে নেয়া নমুনার ডিএনএ পরীক্ষা করে তিনজন পুরুষের শুক্রাণু পাওয়ার কথা গণমাধ্যমকে জানিয়েছিল। পরে সন্দেহভাজনদের ডিএনএ ম্যাচিং করা হলেও রিপোর্ট আসেনি।? মামলাটি বর্তমানে তদন্ত করছেন সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জালাল উদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, 'ম্যাচিং রিপোর্ট এখনো পাইনি।? আমরা তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছি। রিপোর্ট পেলে তখন বলা যাবে?'কখন রিপোর্ট আসবে? সে ব্যাপারেও কিছু বলতে পারেননি জালাল উদ্দিন। কূলকিনারা হয়নি ত্বকী হত্যা মামলার ২০১৩ সালের ৬ মার্চ নারায়ণগঞ্জের শিক্ষার্থী তানভীর মুহাম্মদ ত্বকীকে অপহরণ ও খুন করা হয়। ৮ মার্চ নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীর শাখা চারারগোপ এলাকার খাল থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এই হত্যাকান্ডের পর দেশজুড়ে আলোচনা পড়ে যায়। অভিযোগের আঙুল উঠে নারায়ণগঞ্জের একটি অভিজাত পরিবারের দিকে। ক্ষমতাশালী হওয়ার কারণে তাদের কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। কিছুদিন আগে ত্বকীর মৃতু্যবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, 'যে-কোনো কারণেই হোক এই বিচার পিছিয়ে যাচ্ছে আমরা এটি চাই না। সাত খুনের হত্যার যদি বিচার হতে পারে, তাহলে ত্বকী হত্যার বিচার নয় কেন? ত্বকীকে যারা হত্যা করেছে, সেই পরিবারের বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস নারায়ণগঞ্জের অনেকের ছিল না। ত্বকী হত্যার প্রতিবাদে মঞ্চ করে আমরা প্রতিবাদ করতে পারছি। অনেকে ভেবেছিল, ত্বকীকে হত্যা করে নারায়ণগঞ্জ স্তব্ধ হয়ে যাবে।? কিন্তু নারায়ণগঞ্জ তো স্তব্ধ হয়নি, বরং সারাবিশ্ব, বাংলাদেশ প্রতিবাদ করেছে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে কোনো বাধাই বাধা নয়, কোনো কৌশলগত কারণে হয়তো তিনি বিচার করছেন না। আমার দৃঢ় বিশ্বাস, তিনি এর বিচার করবেন। গন্তব্যহীন সাগর-রুনি হত্যা মামলা ২০১২ সালের ১১ ফেব্রম্নয়ারি সাগর সরওয়ার এবং মেহেরুন রুনি সাংবাদিক দম্পতিকে ঢাকায় পশ্চিম রাজাবাজার এলাকায় তাদের বাসায় নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। ঘটনার সময় ওই বাসায় থাকা তাদের একমাত্র শিশু সন্তান মাহি সরওয়ার মেঘ বেঁচে যায়। হত্যাকান্ডের পর সাত বছরে তদন্তে অগ্রগতি নেই। এমন পরিস্থিতিতে সান্ত্বনা পাওয়ার পথও খুঁজে পাচ্ছে না সাংবাদিক দম্পতির বিপর্যস্ত পরিবার দুটি।? মেহেরুন রুনির ভাই নওশের রোমান বলছিলেন, তাদের মাঝে একদিকে রয়েছে শূন্যতা, অন্যদিকে হতাশা তৈরি হচ্ছে। তিনি বলেন, মেঘ বড় হচ্ছে। সে যখন বুঝবে তার মা-বাবাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে, কিন্তু বিচার হয়নি। তখন তার মানসিক অবস্থা কী হবে, সেটা নিয়েই সবাই শঙ্কিত। এই মামলাটির আদৌ কোনো কূলকিনারা হবে কিনা তা নিয়ে সাংবাদিক মহলে রয়েছে হতাশা। ডয়চে ভেলে

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে