logo
শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

গাড়ির অপেক্ষায় টার্মিনালেই ঘুমিয়ে পড়লেন রহিম মিয়া

গাড়ির অপেক্ষায় টার্মিনালেই ঘুমিয়ে পড়লেন রহিম মিয়া
পরিবহণ ধর্মঘটের কারণে বাস না পেয়ে টার্মিনালেই ঘুমিয়ে পড়েন রহিম মিয়া নামের এক যাত্রী। ছবিটি মঙ্গলবার ঝিনাইদহ বাসটার্মিনাল থেকে তোলা -যাযাদি

যাযাদি ডেস্ক নতুন সড়ক পরিবহণ আইন সংশোধনের দাবিতে ঝিনাইদহে চলছে অনির্দিষ্টকালের পরিবহণ ধর্মঘট। ফলে জেলার অভ্যন্তরীণ ও দূরপালস্নার সব রুটে সব ধরনের বাস-মিনিবাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এর আগে সোমবার শুধু অভ্যন্তরীণ রুটে বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও ১৯ নভেম্বর সকাল থেকে দূরপালস্নার বাস চলাচলও বন্ধ করে দিয়েছেন বাস শ্রমিকরা। এদিকে ধর্মঘটের কারণে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন সর্বস্তরের মানুষ। অনেকেই ঝিনাইদহ বাস টার্মিনালে এসে বাস না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। কেউ কেউ ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়ছেন, অনেককে মালপত্র নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতেও দেখা গেছে। রহিম মিয়া নামের এক যাত্রী বলেন, 'মাগুরায় মেয়ের বাড়ি যাওয়ার জন্য টার্মিনালে এসেছি সকালে। কিন্তু গাড়ির অপেক্ষায় থাকতে থাকতে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। আদৌ গাড়ি যাবে কি-না জানি না। কিছুক্ষণ থাকব, গাড়ি না পেলে বাড়ি ফিরে যাব।' রোকসানা নামে এক নারী যাত্রী জানান, তিনি ঝিনাইদহ থেকে যশোর যাওয়ার জন্য একঘণ্টা ধরে দাঁড়িয়ে আছেন, কিন্তু গাড়ি পাচ্ছেন না। তিনি বলেন, এভাবে কতদিন থাকবে। সরকারের উচিত দ্রম্নত সমাধানে আসা। ঝিনাইদহ জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি রোকনুজ্জামান রানু বলেন, নতুন সড়ক পরিবহণ আইনের কারণে কোনো শ্রমিক গাড়ি চালাতে চাচ্ছে না। স্থানীয় রুটের বাস চালক থেকে শুরু করে পরিবহণ চালকরাও এ আইন মেনে গাড়ি চালাচ্ছে না। আমাদের সবার দাবি, নতুন আইনের ধারা ও জরিমানা সংশোধন করা হোক। এ দাবি না মানা হলে ভবিষ্যতে আরও কঠোর কর্মসূচি দিতে পারে শ্রমিকরা। তিনি জানান, সড়ক পরিবহণ আইন সংশোধনের বিষয়ে শ্রমিকদের দাবির সঙ্গে মালিক সমিতির সদস্যরাও একমত পোষণ করছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে