logo
বুধবার, ০৫ আগস্ট ২০২০, ২১ শ্রাবণ ১৪২৬

  যাযাদি রিপোর্ট   ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

শহিদদের আত্মত্যাগ চিরভাস্বর হয়ে থাকবে: প্রধানমন্ত্রী

শহিদদের আত্মত্যাগ চিরভাস্বর হয়ে থাকবে: প্রধানমন্ত্রী
শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন -ফোকাস বাংলা
সবাইকে দায়িত্বশীল ও সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ভবিষ্যতে বাংলাদেশের ভাগ্য নিয়ে কেউ যেন ছিনিমিনি খেলতে না পারে সেই দায়িত্ব জনগণকে নিতে হবে। এজন্য প্রজন্ম থেকে প্রজন্মকে সচেতন থাকতে হবে।

শনিবার বিকালে রাজধানীর খামারবাড়িতে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, 'এই বাংলাদেশের মাটি এখানে আমরা দেখি সেই মীর জাফর, মোশতাক থেকে শুরু করে বেইমানের জন্ম বারবার হয়েছে। জিয়ার মতো খুনিরা বারবার এসেছে।'

তিনি আরও বলেন, 'কিন্তু ভবিষ্যতে আর এদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে কেউ যেন ছিনিমিনি খেলতে না পারে সেই দায়িত্ব বাংলাদেশের জনগণকে নিতে হবে। আমাদের তরুণ সমাজকে নিতে হবে। প্রজন্মের পর প্রজন্মকে এ ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে।'

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'স্বাধীন বাংলাদেশ জাতির পিতা দিয়ে গেছেন, এই স্বাধীনতাকে সমুন্নত রেখে বাংলাদেশ যেখানে অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, রাজনৈতিকভাবেও সেভাবে এগিয়ে যাবে। বিশ্বসভায় যেন বাংলাদেশ মর্যাদা নিয়ে চলতে পারে। তাহলেই শহিদের আত্মত্যাগ এবং তাদের মহান অবদান চির ভাস্বর হয়ে থাকবে।'

শহিদের আত্মত্যাগ কখনো বৃথা যায়নি উলেস্নখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে যারা এদেশের জন্য জীবন দিয়ে গেছেন, যাদের নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। তাদের নামটাও মুছে ফেলা হয়েছিল। কিন্তু সেটাতো মুছে ফেলতে পারেনি। কারণ আত্মত্যাগ কখনো বৃথা যায় না। কখনো বৃথা যায় নাই। সেটা প্রমাণ হয়েছে এখন বাংলাদেশে।'

শেখ হাসিনা বলেন, 'জাতির পিতার যে স্বপ্ন ছিল দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো বাংলাদেশকে সেভাবে গড়ে তুলতে চাই। সে লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের প্রতিটি লক্ষ্যই হচ্ছে

দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো।'

তিনি বলেন, 'আমাদের প্রতিটি কাজ আপনারা দেখবেন- একেবারে তৃণমূলে মানুষের ভাগ্য কিভাবে পরিবর্তন করবো সেখান থেকে আমাদের সব পরিকল্পনা। তাদের সহযোগিতা করে যাচ্ছি, এই দেশের যেন কোনোদিন আর কারও কাছে হাত পেতে চলতে না হয়।'

১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যার কথা তুলে ধরে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, 'জিয়াউর রহমান খুনের সঙ্গে জড়িত, ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত।'

বঙ্গবন্ধুর অবদান ইতিহাস থেকে মুছে ফেলার চেষ্টা হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, 'ইতিহাস থেকে জাতির পিতার নাম মুছে ফেলার চেষ্টা, মিথ্যা ইতিহাস তৈরি করা, মানুষকে বিভ্রান্ত করা। কিন্তু সত্যকে কেউ কখনো একেবারে মুছে ফেলতে পারে না।'

'আজকে সেটা প্রমাণ হয়েছে সারা বিশ্বের কাছে, বাংলাদেশের জনগণের কাছে। আজকের প্রজন্ম সঠিক ইতিহাস জানার সুযোগ পেয়েছে। ভবিষ্যতে কেউ এটা মুছে ফেলতে পারবে না।'

'দেশের ওপর একটা কালো মেঘের ছায়া ছিল' মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'একটা কালো মেঘের ছায়া ছিল আমাদের ওপর। কারণ যখন জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় ছিল- যারা আমাদের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছে তাদের মন্ত্রী বানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছে। তাদের ক্ষমতায় বসিয়েছে।'

'আর জাতির পিতার হত্যাকারী সেই খুনিদের বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দিয়েছিল বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করতে। একবার চিন্তা করে দেখেন বাংলাদেশে চাকরি করে, তাদের কোয়ালিফিকেশন কি? তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি। শিশু হত্যাকারী, নারী হত্যাকারী।'

শেখ হাসিনা বলেন, 'যারা বাংলাদেশ চায় না, পাকিস্তানে চলে গিয়েছিল, তাদেরই ফেরত নিয়ে আসা। গোলাম আজমকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে, সে তো ফিরে এসেছে পাকিস্তানি পাসপোর্ট নিয়ে। নিয়ে আসলো কে? জিয়াউর রহমান। আব্দুল আলিম, মাওলানা মান্নান থেকে শুরু শাহ আজিজ, যে শাহ আজিজকে পাকিস্তান প্রতিনিধি হিসেবে জাতিসংঘে পাঠিয়েছিল।

'তিনি সেখানে (জাতিসংঘ) গিয়ে ওই যুদ্ধ (মুক্তিযুদ্ধ) বিচ্ছিন্নতাবাদী এসব বলার জন্য, ওকালতি করার জন্য। যদিও সেখানে খুব একটা পাত্তা পায়নি। কিন্তু গিয়েছিল। তাকে জিয়াউর রহমান বানালো প্রধানমন্ত্রী। যে বাংলাদেশের স্বাধীনতা চায়নি সে হলো দেশের প্রধানমন্ত্রী।'

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'খালেদা জিয়া এসে আরও এক ধাপ ওপরে। তার স্বামী যা করেছে তার চেয়ে আরেকটু বেশি। সেই রাজাকার বাহিনী, আল বদর বাহিনী, যারা এই বুদ্ধিজীবীদের ঘরে গিয়ে ধরে নিয়ে এসে হত্যা করেছে তাদের বানালো মন্ত্রী।'

'তারা মন্ত্রী হয়ে দেশকে ধ্বংস করেছে। দেশটা যে লাখো শহিদের রক্তে স্বাধীন হয়েছে তার বিষয়ে তাদের কোনো সহানুভূতি ছিল না। পাকিস্তানের প্রতি যে তাদের একেবারে গভীর আনুগত্য। সেই আনুগত্যই তারা দেখিয়ে গেছে। তাদেরই তোষামোদি খোষামোদি করে গেছে, করে যাচ্ছে এখনো।'

অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতা আমির হোসেন আমু, মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুর রহমান, শহিদ আলতাফ মাহমুদের মেয়ে শাওন মাহমুদ প্রমুখ।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে