logo
  • Sun, 23 Sep, 2018

  যাযাদি রিপোটর্   ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০  

প্রেসক্লাবের সভায় মওদুদ

দেশের বাস্তব অবস্থা তুলে ধরতে জাতিসংঘে বিএনপি

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, বিএনপিকে জাতিসংঘের দাওয়াতে ক্ষমতাসীনরা শঙ্কিত, বিব্রত এবং ঈষাির্ন্বত হয়েছে

দেশের বাস্তব অবস্থা তুলে ধরতে জাতিসংঘে বিএনপি
শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ -ফোকাস বাংলা
জাতিসংঘ মহাসচিবের পক্ষ থেকে আলোচনার জন্য বিএনপিকে নিউইয়কের্ আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে উল্লেখ করে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, এ জন্য ক্ষমতাসীনরা শঙ্কিত, বিব্রত এবং ঈষাির্ন্বত হয়েছে।

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

‘গণগ্রেফতার ও বিচার বিভাগের ওপর সরকারের হস্তক্ষেপ বন্ধ এবং নিদর্লীয় সরকারের দাবি’ শীষর্ক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরাম নামে একটি সংগঠন।

বিএনপি মহাসচিবের যুক্তরাষ্ট্র সফর নিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বৃহস্পতিবার বলেছিলেন, ‘বিএনপি একটি নালিশ দলে পরিণত হয়েছে। জাতিসংঘের কাছে নালিশ করতেই দলটির মহাসচিব মিজার্ ফখরুল ইসলাম যুক্তরাষ্ট্রে গেছেন।’

ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের জবাবে মওদুদ বলেন, ‘জাতিসংঘ মহাসচিব যখন বাংলাদেশে এসেছিলেন তখন সময়ের অভাবে বিরোধী দলের সঙ্গে আলোচনা করতে পারেননি। সেজন্য তিনি বিএনপিকে আমন্ত্রণ পাঠিয়েছেন। এর প্রেক্ষিতেই আমাদের মহাসচিব নিউইয়কর্ গেছেন, নিজের থেকে যাননি। তিনি নালিশ করতে নয়, দেশের বাস্তব অবস্থা তুলে ধরার জন্য গেছেন। দেশে এখন কী অবস্থা বিরাজ করছে এবং বিরোধী দলের ওপর যে অত্যাচার নিপীড়ন নিযার্তন হচ্ছে, সাধারণ মানুষের ওপর যে অত্যাচার নিযার্তন হচ্ছে, মানবাধিকার লঙ্ঘন যেটা হচ্ছে, সেগুলোই তুলে ধরার জন্য গেছেন।’

তিনি বলেন, এতে ক্ষমতাসীনরা শঙ্কিত হয়েছেন, অত্যন্ত বিব্রত বোধ করছেন। ভাবছেন কী করে জাতিসংঘ মহাসচিব বিএনপি নেতাদের আলোচনার জন্য নিউইয়কের্ আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এতে তারা ঈষাির্ন্বত হয়ে এসব কথা বাতার্ বলছেন।

মওদুদ বলেন, ‘জাতীয় ঐক্য হবে, সব রাজনৈতিক দল যারা গণতন্ত্র, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা,মানুষের মৌলিক অধিকার, ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনতে চান, সবাই আজ একটা পয়েন্টে একমত। সেটা হলো আগামী নিবার্চন সুষ্ঠু অবাধ নিরপেক্ষ হতে হবে। এই ঐক্য অনেকটাই হয়ে গেছে। এটাকে আরও সংঘবদ্ধ করতে হবে। আরও সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

তিনি বলেন, ‘নিরপেক্ষ নিবার্চন করতে চাইলে ভোটের ৯০দিন আগে সংসদ বাতিল ও প্রধানমন্ত্রীকে পদত্যাগ করতে হবে। তিনি পদত্যাগ না করলে নিদর্লীয় সরকার গঠন সম্ভব হবে না। আমরা তো সবর্দলীয় সরকার চাই না, নিদর্লীয় সরকার চাই।’

মওদুদ বলেন, ‘সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী নিবার্চনের আর তিন মাস সময় আছে। কিন্তু এর জন্য যে পরিবেশের প্রয়োজন তার অবস্থা এখন বিরাজ করছে না। সরকারি দল যেখানে ইচ্ছে সভা করতে পারে। রেল ষ্টেশনে পযর্ন্ত সভা করতে পারে। আর বাংলাদেশ জাতীয়তাবদাী দলের চেয়ারপারসন জেলখানায়, মামলার পর মামলা চলছে।

তিনি বলেন, ‘বলা হচ্ছে, নিবার্চনকালীন সরকার। নিবার্চনকালীন সরকার বলে আমাদের সংবিধানে কিছু নাই, এটা প্রতারণা। জনগণকে বিভ্রান্ত করার জন্য বলা। সবাইকে বলব, দয়া করে সংবিধানটা পড়েন, দেখুন কোথাও লেখা আছে কিনা যে দেশে নিবার্চনকালী একটা সরকার হবে।

মওদুদ বলেন, ‘এখন আদালতকে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আমাদের একজন দায়িত্বশীল মন্ত্রী, আমি তার নাম বলতে চাই না বলেছেন, বিএনপির আইনজীবীরা আইন জানেন না। দুঃখের সঙ্গে শুধু এইটুকু বলতে চাই তিনি যেটা বলেছেন সেটা সঠিক নয়।’
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

উপরে